আ’লীগের সমাবেশ
তীব্র যানজটে ভোগান্তিতে নগরবাসী
Published : Sunday, 19 November, 2017 at 12:00 AM
দিনকাল রিপোর্ট : রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে গতকাল শনিবার সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের নাগরিক সমাবেশের কারণে তীব্র জানজটে দুর্ভোগে পড়েছেন হাজারও মানুষ। বাধ্য হয়ে মানুষ হেঁটে গন্তব্যে গিয়েছেন। সমাবেশকেন্দ্রিক জনসমাগম, রাস্তায় রাস্তায় মিছিল ও নেতাকর্মীদের অবস্থানের কারণে সোহরাওয়ার্দীর আশপাশের রাস্তাগুলো বন্ধ করে দেয়া হয়। নাগরিক সমাবেশ নামের এ অনুষ্ঠানের আয়োজক সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট হলেও প্রকারান্তরে এটি ক্ষমতাসীন দলের শোডাউনে পরিণত হয়। : গতকাল শনিবার বেলা ১২টার পর থেকে মৎস্য ভবন, শাহবাগ, পল্টন, কাকরাইল, প্রেসক্লাব গুলিস্তান, দৈনিক বাংলা ও বিজয়নগর এলাকার সড়কগুলোতে যানবাহন থেমে থাকতে দেখা যায়। ফলে সৃষ্টি হয় তীব্র যানজট। ভোগান্তিতে পড়েছেন সাধারণ মানুষ। : উপায় না দেখে দীর্ঘক্ষণ বাসে থাকার পর অনেক যাত্রী বাস থেকে নেমে হাঁটা শুরু করেন। গাড়ি থেকে নেমে মৎস্য ভবনের সামনে হাঁটছিলেন তৌফিক আহমেদ। তিনি বলেন, মতিঝিল থেকে শাহবাগের বাসে উঠেছিলাম। কিন্তু পল্টন এসে দেখে প্রেসক্লাবের দিকে যাওয়ার রাস্তা বন্ধ। বাস ঘুরিয়ে দেয়া হচ্ছে। বিজয়নগরের রাস্তাতেও তীব্র যানজট। তাই কোনো উপায় না পেয়ে হেঁটে যাচ্ছি। : তিনি বলেন, ‘রাজধানীতে যেকোনো সমাবেশ করলে ভোগান্তি বেড়ে যায়। গত সপ্তাহে বিএনপি সমাবেশ করেছে। ভোগান্তি সবাই দেখেছেন। গতকাল ছিল ক্ষমতাসীনদের সমাবেশ। যানজটের ভোগান্তি আরো বেশি। কারণ বিএনপির সমাবেশকে কেন্দ্র করে রাস্তায় যানবাহন থাকে না। ক্ষমতাসীনদের সমাবেশে যানবাহন থাকে কিন্তু চলে না। কারণ রাস্তা বন্ধ করে দেয়। যে যত কথাই বলুক ভোগান্তি পোহাতে হয় সাধারণ মানুষদের।’ : এদিকে যানজটে আটকে থাকা বাস চালক কবির বলেন, আধা ঘণ্টা ধরে এক জায়গায়ই বসে আছি। আমাদের দিন শেষে গাড়ির জমা দিতে হয়। যানজটের যে অবস্থা আজ মনে হয় নিজের পকেট থেকে জমা দিতে হবে। সমাবেশ করবে কোনো সম্মেলন কেন্দ্রে করুক। এখানে সমাবেশ করলে রাস্তা বন্ধ হয়ে যায়। যাত্রী-চালক সবার ভোগান্তিতে পড়তে হয়। : :





প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেছেন, প্রধান বিচারপতির পদত্যাগে বিচার বিভাগের স্বাধীনতার মৃত্যু ঘটেছে। আপনি কি তাই মনে করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
16473 জন