দুর্বৃত্তদের দাপটে মৌলভীবাজার শহরে জনমনে ব্যাপক আতংক!
Published : Tuesday, 21 November, 2017 at 12:00 AM
মৌলভীবাজার প্রতিনিধি : মৌলভীবাজারের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি দিন দিন কেবলই অবনতির দিকে যাচ্ছে। শহরের বিভিন্ন স্থানে চুরি, ডাকাতি, ছিনতাই, হামলা ও লুটপাটের মতো ঘটনা নৈমিত্তিক হয়ে উঠেছে। দোকানের সাটার কেটে চুরি, মুক্তিযোদ্ধা, ব্যবসায়ী ও সরকারি অফিসেও হামলার ঘটনাও ঘটছে। এ অবস্থায় জানমালের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বিগ্ন হয়ে উঠেছেন স্থানীয় ব্যবসায়ী ও রাজনৈতিক নেতা থেকে বিভিন্ন পেশার সাধারণ মানুষ। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মৌলভীবাজার শহরে চলতি মাসে একাধিক চুরি, ছিনতাই, ডাকাতি ও সন্ত্রাসের ঘটনা ঘটলেও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী অপরাধীদের শনাক্ত করতে পারেনি। গত ১৬ নভেম্বর বিকেলে মৌলভীবাজার সাব-রেজিস্ট্রার কার্যালয়ে কনকপুর ইউনিয়নের আক্কাছ মিয়ার ছেলে রুবেল আহমদ ও রিপন আহমদ তাদের নিজ নামীয় জমি বিক্রি করেন প্রবাসী মাহমুদুর রহমানের কাছে। কিন্তু এক প্রভাবশালী দলিল লেখকের ছেলে রুমান ও দলিল লেখক ফয়সল চাঁদা দাবি করলে চাঁদার টাকা না দেয়ায় কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে সংর্ষের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় মধ্যস্থতাকারী রাসেল, সুমন ও আফজলসহ ৪ দলিল লেখক আহত হন। এ সময় জমি বিক্রেতা ও দলিল লেখকের মাইক্রোবাস ও কারসহ ২ চালককে আটক করে পুলিশ। গত ১৪ নভেম্বর মঙ্গলবার রাত ৮টায় শহরের চৌমুহনা এলাকায় পূর্ব শত্রুতার জেরে মৌলভীবাজার সদর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আনসার আলীকে কুপিয়ে জখম করে পালিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। এ অভিযোগে সাবেক ছাত্রলীগ সভাপতি মŸশির আলীকে আটক করে পুলিশ। গত ৮ নভেম্বর বুধবার রাত ১০টার দিকে দোকান বন্ধ করে ঢাকায় হাটের উদ্দেশে প্রায় ৭ লাখ টাকা নিয়ে বের হওয়ার সময় নিজ দোকানের সামনেই সন্ত্রাসী হামলার শিকার হন শহরের সমশেরনগর রোডের নাইন্টি নাইন দোকানের মালিক ও বালু মহালদার মুহিবুর রহমান মুহিব। গত ১৭ নভেম্বর রাতে শহরের লেক রোড ও কলাপাড়া তিনটি দোকানের সাটার ভেঙে নগদ টাকা ও মালামাল চুরি হয়। ১ নভেম্বর দুপুরে শহরের কাশিনাথ রোডে অবসরপ্রাপ্ত ব্যাংক কর্মকর্তা ডা. মো. ইয়াজ উদ্দিনের স্ত্রী ছালেহা চৌধুরীকে অজ্ঞান করে নগদ টাকা ও স্বর্ণালঙ্কার নিয়ে পালিয়ে যান কাজের মহিলা। গত মাসের ২৮ অক্টোবর মৌলভীবাজার পৌরসভার কার্যালয় ও মেয়রের কক্ষসহ শহরের কয়েকটি স্থানে হামলা ও ভাঙচুর করে সন্ত্রাসীরা। : :





দেশের পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আওয়ামী লীগ আমলেই সংখ্যালঘুরা বেশি নির্যাতিত। আপনি কি একমত?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
9008 জন