ঝিনাইদহে পাউবোর মরা সেচ খাল দীর্ঘদিন যাবত পরিত্যক্ত
Published : Thursday, 23 November, 2017 at 12:00 AM
স্টাফ রিপোর্টার, ঝিনাইদহ : ঝিনাইদহের হরিণাকুন্ডু উপজেলার চাঁদপুরে গ্রামের একটি সেচ খাল দীর্ঘদিন ধরেই পরিত্যক্ত। বলা যায় বর্ষা মৌসুমেও সেই খাল দিয়ে পানি নিষ্কাশন হয় না। অথচ সেই মরা সেচ খালের অফটেক রেগুলেটর গেট নির্মাণে সাড়ে ২৭ লাখ টাকা ব্যয় করে পানি উন্নয়ন বোর্ডের কতিপয় কর্মকর্তা সরকারি অর্থ পকেটস্থ করেছেন। ইতিমধ্যে গেটটি নির্মাণ না করতে পানি উন্নয়ন বোর্ডের মহাপরিচালকের কাছে অভিযোগ করা হয়েছে। এলাকাবাসীও মরা সেচ খালে বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যয়ে গেট নির্মাণের বিরোধী। তাদের ভাষ্য, হরিণাকুন্ডু উপজেলার চাঁদপুরে গ্রামের টি-৬/এস-৫এ সেচ খালটি মরা। খননের পর থেকেই ওই খালে পানি নেই। তারপরও সেখানে গেট নির্মাণ করে সরকারি অর্থ তছরুপ করা হচ্ছে। এ টাকার গেট না করে সেচ খালের অন্য কাজে লাগালে কৃষকরা উপকৃত হতেন। হরিণাকুন্ডুর চাঁদপুর হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক আব্দুল মজিদ অভিযোগ করেন, এই খালটি চাঁদপুর থেকে যাবদপুর গ্রামের খালাশি শেড পর্যন্ত তিন কিলোমিটার দৈর্ঘ্য। গত বছর দেড় কিলোমিটার খনন করা হলেও সেখানে পানি ওঠেনি। তারপরও দেড় লাখ টাকা ব্যয়ে তিনটি স্থানে আউটলেট বসিয়ে টাকা তছরুপ করা হয়েছে। এলাকার কৃষক মোবারক হোসেন জানান, আউটলেট পয়েন্ট দিয়ে কৃষকের ক্ষেতে পানি সরবরাহ করা হয়। অথচ ওই সেচ খালে কোনো পানিই নেই। অপ্রয়োজনীয়ভাবে আউটলেট বসানোর ফলে এলাকার কৃষকের কোনো উপকারেই আসেনি বা কখনোই আসবে না। অনুসন্ধানে জানা গেছে, হরিণাকুন্ডু উপজেলার চাঁদপুরে গ্রামের টি-৬/এস-৫এ সেচ খালে নির্মিত গেটটির ডিজাইন ও ইস্টিমেট কুষ্টিয়ার জেলার কোনো একটি খালের। সেই ডিজাইন ব্যবহার করে গেটটি নির্মাণ করায় খালের পাড় থেকে অনেক নিচে গেটটি নির্মিত হবে। যেনতেনভাবে সরকারি বরাদ্দ আত্মসাৎ করতেই ঝিনাইদহ পানি উন্নয়ন বোর্ডের সাবেক নির্বাহী প্রকৌশলী ও বর্তমানে মাগুরায় কর্মরত আব্দুল লতিফ, সহকারী প্রকৌশলী বর্তমান অবসরপ্রাপ্ত মতিয়ার রহমান ও বর্তমানে বাগেরহাটে কর্মরত ঝিনাইদহের সাবেক শাখা কর্মকর্তা জাকারিয়া ফেরদৌস এই ভুয়া প্রকল্প বাস্তবায়ন করেন। অভিযোগ উঠেছে, এই তিন কর্মকর্তা চলতি বছরের ১৫ মে ঠিকাদারকে ওয়ার্ক অর্ডার দিয়ে অর্ধেক টাকা ভাগাভাগি করে নিয়ে ঝিনাইদহ ছেড়েছেন। কাজটি বাস্তবায়ন করছে চট্টগ্রামের পাঁচলাইশ এলাকার মোহাম্মদ ইউনুস অ্যান্ড ব্রাদার্স প্রাইভেট লিমিটেড নামের একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। : :





দেশের পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে। এতে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু হবে বলে বিশ্বাস করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
26065 জন