বার্মার আবদার অযৌক্তিক
Published : Thursday, 23 November, 2017 at 12:00 AM, Update: 22.11.2017 10:37:34 PM
বার্মার আবদার অযৌক্তিকবিশেষ প্রতিনিধি, দিনকাল : রোহিঙ্গাদের স্বদেশে ফিরে যেতে দ্বিপক্ষীয় কোনো সমঝোতা সুফল বয়ে আনতে পারবে কিনা সে বিষয়ে সন্দেহ প্রকাশ করা হচ্ছে। মিয়ানমারের রাজধানীতে চলমান আলোচনার প্রেক্ষিতে সংশ্লিষ্ট মহলে এই সন্দেহের সৃষ্টি হয়েছে।  বিশিষ্টজনের মতে, রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানোর বিষয়ে মিয়ানমারের ওপর আস্থা রাখা ঠিক হবে না। কেননা দ্বিপীয়ভাবে সমস্যা সমাধানের পরিবেশ নষ্ট করেছে দেশটি। তাই আলোচনায় তৃতীয়পরে কাউকে রাখার পরামর্শ সাবেক কূটনীতিক হুমায়ুন কবিরের। আর আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষক অধ্যাপক দেলোয়ার হোসেনের মতে, চীন-রাশিয়ার সাথে সম্পর্ক রেখে মিয়ানমারের ওপর চাপ সৃষ্টি করতে হবে। রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে বরাবরই দ্বিপীয় সম্পর্ককে গুরুত্ব দিয়েছে মিয়ানমার। সম্প্রতি ঢাকা সফর করে যাওয়া অংসান সু চির বিশেষ দূতও দিয়েছেন সেই ইঙ্গিত। কিন্তু এবারের পরিস্থিতি একেবারেই ভিন্ন। তাই আগের চুক্তি মেনে রোহিঙ্গাদের পুনর্বাসন বাস্তবসম্মত নয়Ñ এমনটাই জানিয়েছে বাংলাদেশ। তবে তা মানতে নারাজ মিয়ানমার। যদিও দেশটির কাছ থেকে তাদের ফেরত নেয়ার ব্যাপারে এখনও মেলেনি বিশ্বাসযোগ্য কোনো আশ্বাস। এমনকি তারা চায় না রোহিঙ্গা পুনর্বাসনে জড়িত থাকুক জাতিসংঘ কিংবা অন্য কোনো প। এমন বাস্তবতায় পররাষ্ট্রমন্ত্রীর মিয়ানমার সফরে সংকট আদৌ কাটবে কিনা তা নিয়ে দেখা দিয়েছে সংশয়।  সাবেক এই কূটনীতিক বলছেন, দ্বিপীয়ভাবে সংকট সমাধানে মিয়ানমারের আবদার যুক্তিহীন। হুমায়ুন কবিরের মতে, দ্বিপীয়ভাবে সংকট সমাধানে আস্থার সংকট তৈরি করেছে মিয়ানমারই। আর এ বিশ্লেষক বলছেন, প্রথমবারের মতো রোহিঙ্গা সংকটকে স্বীকার করেছে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়। তাই সংকটের টেকসই সমাধানে এবার চীন-রাশিয়াকে নিজেদের পে নিয়ে চেষ্টা চালানোর পরামর্শ তার। কেননা এ দেশ দুটির মাধ্যমে প্রভাবিত মিয়ানমার।  এ ক্ষেত্রে মিয়ানমারের আবদার অযৌক্তিক। উল্লেখ্য, গতকাল বুধবার রোহিঙ্গা ইস্যুতে মিয়ানমারের রাজধানী নেপিদোতে বাংলাদেশ-মিয়ানমারের মধ্যে যে আলোচনা শুরু হয় তা আজো চলবে। গতকালের প্রথম দিনের আলোচনা শেষে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী যদিও জানিয়েছেন যে, ‘দ্বিপক্ষীয় সমঝোতা চুক্তি’ চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে। : এদিকে দেশের ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় আলোচকরা ইতিমধ্যেই রোহিঙ্গা ফেরৎ পাঠাতে দ্বিপক্ষীয় সমঝোতার বিপক্ষে বলেছেন। অধ্যাপক শহিদুজ্জামান ও অধ্যাপক আফসান চৌধুরী বলেছেন, দ্বিপক্ষীয় নয়; বহুপক্ষীয় চুক্তি দরকার। জাতিসংঘসহ পশ্চিমা দেশগুলো যে অবস্থান নিয়েছে, তাই অনুসরণ করা উচিত। : অধ্যাপক শহিদুজ্জামান খোলামেলাভাবেই বলেন যে, চীন-রাশিয়া-ভারত যে অবস্থান নিয়েছে তা সুফল বয়ে আনবে না। তিনি বলেন, ভারত বাংলাদেশের পক্ষে ভোট দেয়নি। অথচ পাকিস্তান বাংলাদেশের পক্ষালম্বন করেছে। :  





প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে। এতে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু হবে বলে বিশ্বাস করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
26058 জন