ঢাকা-নেপিদু সমঝোতা স্মারক
Published : Friday, 24 November, 2017 at 12:00 AM, Update: 23.11.2017 10:34:11 PM
ঢাকা-নেপিদু সমঝোতা স্মারকদিনকাল রিপোর্ট : রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে বাংলাদেশের সঙ্গে মিয়ানমারের সমঝোতা স্মারক সই হয়েছে। আগামী দুই মাসের মধ্যেই এ প্রক্রিয়া শুরু হবে। গতকাল  বৃহস্পতিবার মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চির সঙ্গে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীর বৈঠক হয়। এরপরই এ স্মারক সই হয়। তাতে সই করেন আবুল হাসান মাহমুদ আলী ও মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সেলরের দফতরের মন্ত্রী চ টিন্ট সোয়ের। : বাংলাদেশ সরকারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দেয়া সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সমঝোতা স্মারক অনুযায়ী আগামী দুই মাসের মধ্যে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়ার কার্যক্রম শুরু হবে। সমঝোতা স্মারক স্বারের তিন সপ্তাহের মধ্যে এ-সংক্রান্ত একটি জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ গঠন করা হবে। রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানোর জন্য দুই দেশের মধ্যে একটি সুনির্দিষ্ট দ্বিপীয় কাঠামো দ্রুত গঠন করা হবে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দেয়া সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়েছে, পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী ও মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সেলরের দফতরের মন্ত্রী চ টিন্ট সোয়েরের মধ্যে নাফ নদীর উত্তরাংশের স্থলভাগের সীমা নির্দেশকারী চুক্তির অনুসমর্থনের দলিল আদান-প্রদান হয়। এ ছাড়া দুই দেশ নাফ নদীর সীমানা নির্ধারণ-সংক্রান্ত সম্পূরক দলিলেও স্বার করেছে। ২০০৭ সালেই এ ব্যাপারে দুই দেশের মধ্যে সমঝোতা হয়েছিল। এ ছাড়া রাখাইন রাজ্যে ব্যবহারের জন্য বাংলাদেশের : প থেকে মিয়ানমারের সরকারকে উপহার হিসেবে তিনটি অ্যাম্বুলেন্স দেয়া হয়েছে। : নেপিডোতে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী এই অ্যাম্বুলেন্সগুলো হস্তান্তর করেন। রাখাইনে গত ২৫ আগস্ট তল্লাশিচৌকিতে সন্ত্রাসী হামলার জেরে রোহিঙ্গাদের ওপর মিয়ানমার সশস্ত্র বাহিনীর নৃশংসতা শুরুর পর থেকে গত মঙ্গলবার পর্যন্ত ৬ লাখ ২২ হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। তাদের ফিরিয়ে নিতে বাংলাদেশের আহ্বানে আন্তর্জাতিক বিশ্ব মিয়ানমারকে চাপ দিয়ে যাচ্ছে। রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের প্রক্রিয়া চূড়ান্ত করতে বাংলাদেশের খসড়া প্রস্তাব নিয়ে গত বুধবার দুই প দীর্ঘ আলোচনা করেছে। বিশেষ করে সমঝোতা স্মারকটির গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো চূড়ান্ত না হওয়ায় এগুলো নিয়ে আলোচনা হয়েছে। এ বিষয়গুলোর মধ্যে রয়েছে ২০১৬ সালের অক্টোবরের পর থেকে এ পর্যন্ত আসা রোহিঙ্গাদের ফেরত, নাকি বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া প্রায় ১০ লাখের সবাইকে ফিরিয়ে নেয়া হবে,  ফেরত পাঠানোর আগে রোহিঙ্গাদের পরিচয় যাচাইয়ে জাতিসংঘকে রাখা না-রাখা, রাখাইনে ফেরত পাঠানোর পর রোহিঙ্গাদের কোথায় রাখা হবে। এসবের পাশাপাশি রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠাতে সময়সূচি ঠিক করে দিয়ে কাজ করা এবং এ বিষয়ে দুই দেশ সমঝোতা স্মারক সই করলে প্রত্যাবাসন নিয়ে কোনো ধরনের জটিলতা দেখা দিলে তা নিয়ে তৃতীয় কোনো দেশের সহযোগিতা চাওয়া যাবে কি না ইত্যাদি আলোচনায় এসেছে। : :





প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

ঢাকা-নেপিদু সমঝোতা স্মারককে আপনি কি ধোঁকা বলে মনে করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
4698 জন