তদন্ত প্রতিবেদন মিথ্যা ও বানোয়াট আমি সম্পূর্ণ নির্দোষ : খালেদা জিয়া
Published : Friday, 24 November, 2017 at 12:00 AM, Update: 23.11.2017 10:33:54 PM
তদন্ত প্রতিবেদন মিথ্যা ও বানোয়াট আমি সম্পূর্ণ নির্দোষ : খালেদা জিয়ারফিক মৃধা, দিনকাল : জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলার বাদী কোনো একটি পরে হয়ে এই মামলা করেছেন বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী  বেগম খালেদা জিয়া। তিনি বলেন, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলার তদন্ত কর্মকর্তা হারুন অর রশীদ বিরাগের বশবর্তী হয়ে স্বার্থান্বেষী মহলের ইচ্ছা ও নির্দেশ অনুযায়ী কাজ করছেন। স্বার্থান্বেষী মহলের নির্দেশেই বিরাগের বশবর্তী হয়ে এই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আমার বিরুদ্ধে বিজ্ঞ আদালতে অসত্য সাক্ষ্য দিয়েছেন। তিনি (মামলার তদন্ত কর্মকর্তা) আমার বিরুদ্ধে বিজ্ঞ আদালতে যে জবানবন্দি প্রদান করেছেন তা ভিত্তিহীন, বানোয়াট ও উদ্দেশ্য প্রণোদিত। এখানে কোনো দুর্নীতি হয়নি। আমি সম্পূর্ণ নির্দোষ। : গতকাল বৃহস্পতিবার পুরান ঢাকার বকশীবাজারের আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে স্থাপিত অস্থায়ী ঢাকার পাঁচ নম্বর বিশেষ জজ আদালতে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় ৩৪২ ধারায় বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় বিএনপির চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার পরবর্তী হাজিরা ৩০ নভেম্বর দিন ধার্য করেছে আদালত। এর আগে গতকাল বৃহস্পতিবার বকশীবাজারে আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে স্থাপিত ঢাকার ৫ নম্বর বিশেষ জজ ড. আখতারুজ্জামানের আদালতে বেগম খালেদা জিয়া জবানবন্দিতে বক্তব্য রাখেন। এর আগে দুই মামলায় হাজিরা দিতে বেলা সাড়ে এগারটার দিকে আদালতে পৌঁছান বেগম খালেদা জিয়া। এর আগে সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটে তিনি তার গুলশানের বাসভবন ‘ফিরোজা’ থেকে আদালতের উদ্দেশে বের হন। : বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের সাথে আমার ব্যক্তিগত কোনো সম্পর্ক নাই। অথচ এই সাী আমার নামটি জড়িয়ে এজাহারে মিথ্যা অভিযোগ করেছেন এবং আমার নামে মিথ্যা জবানবন্দি দিয়েছেন। মামলার বিচার্য বিষয় প্রধানমন্ত্রীর এতিম তহবিল সংক্রান্ত কোনো মূল নথি দুদক কর্তৃক মৌখিক এবং লিখিতভাবে চাওয়ার পরেও এইরূপ নথি উপস্থাপন করা হয়নি। প্রধানমন্ত্রীর এতিম তহবিলে বিদেশি অনুদান সোনালী ব্যাংক রমনা কর্পোরেট শাখায় এসেছে, এরূপ দাবির সমর্থনে সংশ্লিষ্ট ব্যাংক শাখা থেকে মূল ডিডি সোনালী ব্যাংক দিতে পারেনি। : বেগম খালেদা জিয়ার স্থায়ী জামিন আবেদন নামঞ্জুর : জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় বেগম খালেদা জিয়ার করা স্থায়ী জামিনের আবেদন নাকচ করেছেন আদালত। পরবর্তী শুনানির তারিখ ধার্য করা হয়েছে ৩০ নভেম্বর। গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর বকশীবাজারের আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে স্থাপিত ঢাকার ৫ নং বিশেষ জজ ড. আখতারুজ্জামানের আদালতে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার আইনজীবী দুই মামলায় স্থায়ী জামিনের আবেদন করেন। স্থায়ী জামিনের বিরোধিতা করেন দুদকের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মোশাররফ হোসেন কাজল। উভয় পক্ষের শুনানি শেষে ড. আখতারুজ্জামান জামিন আবেদন নাকচ করেন। : বেগম খালেদা জিয়া তার দেয়া অসমাপ্ত জবানবন্দির ৬ষ্ঠ দিনে ফৌজদারী কার্যবিধির ৩৪২ ধারায় আদালতে দেয়া জবানবন্দির পূর্ণ বিবরণ : : বেগম খালেদা জিয়া বলেন, রাষ্ট্রপক্ষে সাক্ষীদের সাক্ষ্যে আমি প্রধানমন্ত্রী হিসাবে আমার ক্ষমতার অপব্যবহার করে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এতিম তহবিল সংক্রান্তে কোনোরূপ অনুদান গ্রহণের সাথে সম্পৃক্ত ছিলাম- এরূপ কোনো বক্তব্য কোনো পর্যায়ে কোনো সাক্ষী দেয় নাই। আমি প্রধানমন্ত্রীর এতিম তহবিল সংক্রান্ত  কোনো অনুদান গ্রহণ বা বিতরণের সাথে সম্পৃক্ত ছিলামÑ এরূপ সাক্ষ্য রাষ্ট্রপক্ষের সাক্ষীগণের কেউই বলেন নাই। রাষ্ট্রপক্ষের সাক্ষীগণের সাক্ষ্যে এটা দৃশ্যমান যে, প্রধানমন্ত্রীর দফতরে ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিল এবং স্বেচ্ছাধীন তহবিল সংক্রান্ত নথি চলমান ছিল এবং আছে। উক্ত দুটি তহবিল পরিচালনা সংক্রান্ত যাবতীয় রেকর্ডপত্র বিজ্ঞ আদালতে রাষ্ট্রপক্ষের সাক্ষীগণ দ্বারা উপস্থাপন করা হয়েছে। এই দুটি তহবিল সংক্রান্ত যাবতীয় আবেদন নোটশীটের মাধ্যমে উপস্থাপন এবং সংশ্লিষ্ট সাচিবিক দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে যথার্থ বিবেচিত হয়েছে বলে তাদের মতামত নোট আকারে নোটশীটের মাধ্যমে উপস্থাপনের পরেই প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব ও কর্তব্য হিসেবে আমি তাতে আমার স্বাক্ষর দিয়েছি। এইরূপ মূল নথি এবং যাবতীয় রেকর্ডপত্র উপস্থাপন করা হয়েছে এবং রাষ্ট্রপক্ষের সাক্ষীগণ তা প্রমাণ করেছেন। এ বিষয়ে আমার দায়িত্ব পালনে কোনো ব্যতয় ঘটে নাই। : তিনি বলেন, ইংরেজি ০৯/০৬/১৯৯১ তারিখ থেকে ২৮/০৩/২০০৭  তারিখ পর্যন্ত এই মামলার ঘটনার বিবরণ রয়েছে এবং ০৫/০৮/২০০৯ তারিখে এই মামলায় অভিযোগপত্র দাখিল হয়েছে। এই ১৮ বছরের দীর্ঘ সময়কালের যাবতীয় কার্যক্রম সম্পর্কে ন্যায়বিচারের স্বার্থে আপনার নিকট প্রকৃত তথ্য ও ব্যাখ্যা তুলে ধরা প্রয়োজন। এই মামলার এজাহারকারী মোঃ হারুন-অর-রশীদ  পি. ডব্লিউ-১ হিসাবে অত্র মামলায় স্যা প্রদান করেছেন। তার জবানবন্দির কিছু অংশ আমাকে শুনানো হয়েছে। পি. ডব্লিউ-১ হারুন-অর-রশীদ মামলা দায়েরের পূর্বে অনুসন্ধান কার্য করেছেন বলে দাবি করেন। তিনি গত ২৫/০৬/২০০৮ তারিখ একটি অনুসন্ধান প্রতিবেদন দাখিল করেন। তার পূর্বে গত ১১/০৬/২০০৮ তারিখে দুদকের সহকারী পরিচালক মোঃ নুর আহাম্মদও একটি পূর্ণাঙ্গ অনুসন্ধান প্রতিবেদন দাখিল করেন। সেই প্রতিবেদনে মোঃ নুর আহাম্মদ এই মামলায় আমার কোনরূপ সম্পৃক্ততা না পাওয়ায় আমার বিরুদ্ধে তিনি কোনো মতামত প্রদান করেননি। অথচ মোঃ নুর আহাম্মদ কর্তৃক এইরূপ একটি পূর্ণাঙ্গ  প্রতিবেদন দাখিলের পর সম্পূর্ণ বেআইনিভাবে হারুন-অর-রশীদকে একই বিষয়ে পুনরায় অনুসন্ধানের দায়িত্ব দেয়া হয় এবং তিনি আমার বিরুদ্ধে কোনো তথ্য প্রমাণ ছাড়াই গত ২৫/০৬/২০০৮ তারিখে একটি মনগড়া অনুসন্ধান রিপোর্ট দাখিল করেন। : বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, এই দুইটি অনুসন্ধান রিপোর্ট পাশাপাশি পর্যালোচনা করলে আপনি দেখতে পাবেন অনুসন্ধান রিপোর্ট দুইটি ভিন্ন ভিন্ন ব্যক্তি কর্তৃক দাখিল হওয়া সত্ত্বেও দুইটি রিপোর্টের ভাষা, বাক্য ও শব্দ চয়ন এক ও অভিন্ন। ১১/০৬/২০০৮ তারিখের রিপোর্টে “সোনালী ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপক মোঃ আজিজুল ইসলামকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।” মর্মে একটি বাক্য রয়েছে। ২৫/০৬/২০০৮ তারিখের  রিপোর্টেও “সোনালী ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপক মোঃ আজিজুল ইসলামকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।” মর্মে অনুরূপ একটি বাক্য রয়েছে। দুইটি রিপোর্টের দুইটি বাক্যেই “আজিজুল” নামটি কেটে একই হাতে আজিজুলের উপরে “মফিজুল” নামটি বসানো হয়েছে। দুইজন অনুসন্ধানকারী কর্মকর্তা কর্তৃক দুইটি ভিন্ন ভিন্ন সময়ে দুইটি ভিন্ন ভিন্ন রিপোর্ট দাখিল করা হলে একই হাতের লেখায় একই নাম অনুরূপভাবে কাটাকাটি কী করে সম্ভব তা আপনি বিবেচনা করে দেখবেন। এতে স্পষ্ট বোঝা যায় যে, সাী হারুন-অর-রশীদ কোনো নিরপে অনুসন্ধান না করে একটি মহল কর্তৃক নির্দেশিত হয়ে পূর্বের রিপোর্ট অর্থাৎ নুর আহাম্মদ কর্তৃক ১১/০৬/২০০৮ তারিখের রিপোর্টটিই হুবহু প্রিন্ট করে রিপোর্টের শেষাংশে শুধু আমার নামটি সংযোজন করেছেন। দুর্নীতি দমন কমিশনের কর্মকর্তা সাী হারুন-অর-রশীদ নিরপে অনুসন্ধান না করে নিজেই দুর্নীতির আশ্রয় গ্রহণ করে একটি অসত্য রিপোর্ট দাখিল করে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেন। ফলে এই সাীর স্যা আইনের দৃষ্টিতে অগ্রহণযোগ্য। : সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমার বক্তব্য হচ্ছে ১১/০৬/২০০৮ তারিখের রিপোর্টে আমার বিরুদ্ধে অনুসন্ধানে কোনো প্রাথমিক অভিযোগ না পাওয়ায় পি.ডব্লিউ-১ হারুন-অর-রশীদকে উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে এবং বেআইনিভাবে পুনরায় অনুসন্ধান কর্মকর্তা নিয়োগ করা হয়। দুর্নীতি দমন কমিশন আইন-২০০৪ ও দুর্নীতি দমন কমিশন বিধিমালা-২০০৭ অনুযায়ী একই ব্যক্তি কর্তৃক বারবার কিংবা একই বিষয়ে বারবার অনুসন্ধান কিংবা প্রতিবেদন দাখিলের কোনো আইনগত বিধান নাই। পি. ডব্লিউ-১ হারুন-অর-রশীদ সম্পূর্ণরূপে একজন ইন্টারেস্টেড সাী। তিনি অতি উৎসাহী। আওয়ামী লীগ সরকারের আজ্ঞাবহ। এই মামলায় একই সাথে তিনি অনুসন্ধানকারী কর্মকর্তা, মামলার বাদী এবং তিনিই এই মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। ফলে তিনি নিরপে কোনো অনুসন্ধান করেন নাই বা নিরপে কোনো তদন্তও করেন নাই। দুদকের উপ-সহকারী পরিচালক হিসাবে এই সাী গত ২৫/০৬/২০০৮ তারিখে অনুসন্ধান প্রতিবেদন দাখিল করেন। এই হারুন-অর-রশীদ ১৯৭৯ সালে ‘অ্যাসিস্টেন্ট’ পদে তৎকালীন ব্যুরো অব এন্টিকরাপশনে যোগদান করেন বলে দাবি করেছেন। অথচ ১৯৭৯ সনের ব্যুরো অব এন্টিকরাপশনের অর্গানোগ্রামে ‘অ্যাসিস্টেন্ট’ নামের কোনো পদ বা পদবী ছিল না। এই অ্যাসিস্টেন্ট পদটি  ব্যুরো অব এন্টিকরাপশনে স্থান পায় ১৯৮৫ সনের ১১ সেপ্টেম্বর। তাহলে ১৯৭৯ সালে অ্যাসিস্টেন্ট হিসাবে তার নিয়োগ প্রশ্নবিদ্ধ এবং অবৈধ। তার নিয়োগ অবৈধ হওয়ায় তিনি নিরপে অনুসন্ধান বা তদন্ত করার মতো তার কোনো নৈতিক মনোবল ছিল না। ফলে সরকারের আজ্ঞাবহ হয়ে তাদের নির্দেশিত মতে অনুসন্ধান ও তদন্ত করে মিথ্যা প্রতিবেদন দাখিল করেছেন। : আদালতে বেগম খালেদা জিয়া বলেন, এই সাী ১৯৭৯ সালে অ্যাসিস্টেন্ট পদে প্রশ্নবিদ্ধ নিয়োগের পর বিভিন্ন কৌশলে ১৯৮৫ সালে অ্যাসিস্টেন্ট ইন্সপেক্টর এবং ১৯৯২ সনে ইন্সপেক্টর পদে পদোন্নতি নেন। ২০০৫ সালে বিএনপি ও চার দলীয় জোট সরকারের শাসনামলে তাকে অযোগ্য হিসাবে দুর্নীতি দমন কমিশনে আত্তীকরণ না করে তাকে অব্যাহতি দেয়া হয়। সেই অব্যাহতি আদেশের বিরুদ্ধে এই সাী মহামান্য হাইকোর্ট বিভাগে রীট পিটিশন দায়ের করে হেরে যান। সেই আদেশের বিরুদ্ধে মহামান্য সুপ্রিম কোর্টে লীভ টু আপিল ফাইল করে তিনি অদৃশ্য ইশারায় সেই লীভ টু আপিল প্রত্যাহার করে নেন এবং তার পরপরই ২০০৮ সনে তাকে সরাসরি উপ-সহকারী পরিচালক পদে দুর্নীতি দমন কমিশনে নিয়োগ দেয়া হয়। নিয়োগের মাত্র দুই দিন পর এই মামলার অনুসন্ধানের দায়িত্ব তাকে দেয়া হয়। শুধু তাই নয়, আমার বিরুদ্ধে চার্জশীট দাখিলের সময়ের মধ্যেই তাকে পদোন্নতি দিয়ে সহকারী পরিচালক করা হয়। আর চার্জশীট দাখিলের পর ২০১২ সালে পুরস্কার স্বরূপ আবারো তাকে পদোন্নতি দিয়ে করা হয় উপ-পরিচালক। : পি.ডব্লিউ-১ হারুন-অর-রশীদ ২০০৫ সালে চাকরিচ্যুত হওয়ার কারণে তিনি আমাদের ওপরে প্তি ছিলেন। তারই ফলশ্রুতিতে আমাদের বিরুদ্ধে কাজে লাগানোর জন্য তাকে বেছে নেয়া হয়। ফলে এই সাী বিরাগের বশবর্তী হয়ে স্বার্থান্বেষী মহলের ইচ্ছা ও নির্দেশ অনুযায়ী আমার বিরুদ্ধে অনুসন্ধান ও তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন এবং তারই ধারাবাহিকতায় আমার বিরুদ্ধে বিজ্ঞ আদালতে অসত্য স্যা প্রদান করেন। তিনি আমার বিরুদ্ধে আদালতে যে জবানবন্দি প্রদান করেছেন তা ভিত্তিহীন, বানোয়াট ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। পি.ডব্লিউ-১ আদালতে দেয়া তার জবানবন্দিতে বলেছেন যে, ১৯৯১-১৯৯৬ সালে প্রধানমন্ত্রী থাকাকালে আমি নাকি প্রধানমন্ত্রীর এতিম তহবিল নামে চলতি হিসাব খুলি। সাীর এই বক্তব্য মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। সোনালী ব্যাংক লিঃ, রমনা কর্পোরেট শাখার হিসাব নং-৫৪১৬ খোলার ফরমে আমার কোনো স্বার নাই। অথবা বাগেরহাটে জিয়া মেমোরিয়াল ট্রাস্ট কিংবা জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টে টাকা বিলি বন্টনের েেত্র কোনো ফাইলেও আমার স্বার নাই। এই নামে কোনো তহবিলও নাই। অথচ আমার নিজের ও দলীয় ভাবমূর্তি ুণœœ করার উদ্দেশ্যে এই সাী উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা জবানবন্দি প্রদান করেছেন। এই সাী সোনালী ব্যাংক, রমনা কর্পোরেট শাখা থেকে উপরোক্ত হিসাবের সমস্ত তথ্যবিবরণী কিংবা সংশ্লিষ্ট রেজিস্টার আপনার সামনে উপস্থাপন করেন নাই। ০২/০৬/১৯৯১ তারিখের পূর্বে সোনালী ব্যাংক, রমনা কর্পোরেট শাখায় কে ম্যানেজার ছিলেন, সেই তথ্যও আপনার সামনে আনেন নাই। ফরেন কারেন্সিতে রেমিটেন্স আসলে কী কী তথ্য থাকা প্রয়োজন বা এই েেত্র বাংলাদেশ ব্যাংকের কোনো সংশ্লিষ্টতা ছিলো কিনা কিংবা এই সংক্রান্ত লেনদেনের েেত্র আমার কোনো সম্পৃক্ততা আছে কিনা সেই সব বিষয়ে কোনো তথ্য-প্রমাণ ছাড়াই আমার বিরুদ্ধে তিনি এজাহার দায়ের করেছেন। এই টাকার উৎস সম্পর্কে তিনি কোনো তথ্য প্রাপ্তি ছাড়াই এজাহার রুজু করেছেন। : তিনি আরো বলেন, সাী হারুন-অর-রশীদ আমার কোনোরূপ সংশ্লিষ্টতা না পাওয়া সত্ত্বেও ‘সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া ১৯৯১ থেকে ১৯৯৬ সময়কালে প্রধানমন্ত্রী থাকাকালীন সোনালী ব্যাংক, রমনা শাখায় প্রধানমন্ত্রীর এতিম তহবিল নামীয় একটি চলতি হিসাব খোলেন যার হিসাব নং-৫৪১৬’  মর্মে এজাহারে সম্পূর্ণ মিথ্যা উক্তি করেছেন। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট সম্পূর্ণরূপে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান হওয়া সত্ত্বেও ঐ প্রতিষ্ঠানের সাথে প্রধানমন্ত্রিত্বের পদকে অহেতুক সম্পৃক্ত করে কতিপয় গোঁজামিল ও মিথ্যা বক্তব্য এজাহারে উল্লেখ করেন। এই সাক্ষী “চেক নং- ৮৪৩১১০৩, তারিখ ১৩/১১/১৯৯৩ মূলে অনুদানের অর্থ হইতে ২,৩৩,৩৩,৫০০/- টাকা তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক বগুড়ায় একটি এতিমখানা স্থাপনের নামে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের অনুকূলে প্রদান করেন”  মর্মে প্রধানমন্ত্রীর পদ জড়িয়ে যে বক্তব্য প্রদান করেছেন তা উদ্দেশ্যমূলক ও মিথ্যা। আমি প্রধানমন্ত্রী হিসাবে কিংবা আমি নিজে স্বার করে এইরূপ কেনো চেক প্রদান করি নাই। এই সাী আমাকে জড়িয়ে এজাহারে ও জবানবন্দিতে বলেছেন যে, আমি নাকি বিভিন্ন চেকের মাধ্যমে প্রাইম ব্যাংক, গুলশান শাখায় এফডিআর হিসাব খোলার নামে অর্থ স্থানান্তর করেছি। সাীর এইরূপ অভিযোগ মনগড়া ও ভিত্তিহীন। তিনি ব্যক্তিগত ও চাকরি জীবনে বিশেষ সুবিধা পাওয়ার আশায় এবং ক্ষমতাসীনদের অসৎ উদ্দেশ্য বাস্তবায়নের জন্য এবং আমি এবং আমার দলকে সামাজিক ও রাজনৈকিভাবে তিগস্ত করার উদ্দেশ্যে এইরূপ মিথ্যা উক্তি তিনি এজাহারে উল্লেখ করেছেন এবং জবানবন্দি প্রদান করেছেন। তার এই মিথ্যা বক্তব্যের সূত্র ধরেই আমার প্রতিপ রাজনৈতিক দল জনসম্মুখে মিথ্যা প্রচারণা চালিয়ে আমার ভাবমূর্তি ুণœœ করে চলেছে। : বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের সাথে আমার ব্যক্তিগত কোনো সম্পর্ক নাই। অথচ এই সাী আমার নামটি জড়িয়ে এজাহারে মিথ্যা অভিযোগ করেছেন এবং আমার নামে মিথ্যা জবানবন্দি দিয়েছেন। মামলার বিচার্য বিষয় প্রধানমন্ত্রীর এতিম তহবিল সংক্রান্ত কোনো মূল নথি দুদক কর্তৃক মৌখিক এবং লিখিতভাবে চাওয়ার পরেও এইরূপ নথি উপস্থাপন করা হয়নি। প্রধানমন্ত্রীর এতিম তহবিলে বিদেশি অনুদান সোনালী ব্যাংক রমনা কর্পোরেট শাখায় এসেছে, এরূপ দাবির সমর্থনে সংশ্লিষ্ট ব্যাংক শাখা থেকে মূল ডি.ডি. সোনালী ব্যাংক দিতে পারেনি। এ সংক্রান্ত বিষয়ে সংশ্লিষ্ট ব্যাংক শাখা থেকে একটি একাউন্ট খোলার আবেদন বিজ্ঞ আদালতে দাখিল করা হয়েছে এবং তা প্রধানমন্ত্রীর দফতরের তদানীন্তন সচিব ড. কামাল সিদ্দিকী কর্তৃক খোলা হয়েছে বলে দাবি করা হয়। উক্ত একাউন্ট সম্পর্কে সংশ্লিষ্ট ব্যাংক কর্মকর্তা কোনো লেজার বা অন্য কোনো ডকুমেন্ট দ্বারা কোনো সাক্ষ্য প্রদান করেন নাই। একাউন্ট ওপেনিং ফরমের কোথাও প্রধানমন্ত্রীর দফতরের কোনো দাফতরিক আদেশ অথবা প্রধানমন্ত্রী হিসেবে আমার অনুমোদন গ্রহণ করা হয়েছেÑ এরূপ কোনো দালিলিক সাক্ষ্য কেউ উপস্থাপন করেননি। এই একাউন্ট ওপেনিং আবেদনে কোথাও আমার কোনো সই-স্বাক্ষর নেই। সাক্ষীগণের সাক্ষ্যের স্বীকৃত মতে তদানীন্তন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএসএম মোস্তাফিজুর রহমান নিজ উদ্যোগে এই অনুদানের অর্থ আনার ব্যবস্থা করেন। পি.ডব্লিউ-৩১ ও পি.ডব্লিউ-৩২ উভয়ে তাদের সাক্ষ্যে তদানীন্তন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমানের নাম মূল অনুদান আনার বিষয় বিভিন্ন তথ্যাবলী সংগ্রহের মাধ্যমে স্বীকার করেন। সোনালী ব্যাংক সংশ্লিষ্ট শাখার কর্মকর্তা একাউন্ট খোলা সম্পর্কিত অভিযাচনপত্রের পরেও কোনরূপ তথ্য সরবরাহ করতে পারেন নাই। এক্সিবিট-৪৮-এ এই সাক্ষ্য আছে। : বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার জবানবন্দির সময়ে আদালতে উপস্থিত ছিলেন ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ব্যারিস্টার জমির উদ্দীন সরকার, অ্যাডভোকেট আবদুর রাজ্জাক খান, ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর, অ্যাডভোকেট জয়নাল আবেদিন, ব্যারিস্টার আমিনুল হক, অ্যাডভোকেট আহমেদ আজম খান, ব্যরিস্টার মাহবুব উদ্দীন খোকন, ব্যারিস্টার আমিনুল ইসলাম, অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার, অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া, অ্যাডভোকেট মাসুদ আহমেদ তালুকদার, অ্যাডভোকেট জাকির হোসেন, অ্যাডভোকেট সিমকী ইমাম খান, অ্যাডভোকেট হেলাল উদ্দিন, অ্যাডভোকেট মো. শরীফ উদ্দিন মামুন,  অ্যাডভোকেট  মো. নুরুজ্জামান তপন প্রমুখ। : অপরদিকে আদালতে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল আউয়াল মিন্টু, অধ্যাপক ডা. এজেড এম জাহিদ হোসেন, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান, আবুল খায়ের ভূইয়া, আব্দুস সালাম, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, বিএনপি চেয়ারপারসনের বিশেষ সহকারী শামছুুর রহমান শিমুল বিশ্বাস, সাংগঠনিক সম্পাদক  বিলকিস জাহান শিরিন, নির্বাহী কমিটর সদস্য নাজিম উদ্দিন আলম, রফিক শিকদার, অধ্যাপক আমিনুল ইসলাম, মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাস, সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহমেদ, ঢাকা মহানগর যুবদল উত্তরের সভাপতি এসএম জাহাঙ্গীর হোসেন, বিএনপি চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইং সদস্য শায়রুল কবির খান, শামসুউদ্দিন দিদার উপস্থিত ছিলেন। : বেগম খালেদা জিয়ার আদালতে উপস্থিতি উপলক্ষে নেতাকর্মীদের ঢল : জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার হাজিরা উপলক্ষে আদালতে যাওয়া ও আসার পথে মৎস্য ভবন, হাইকোর্ট, দোয়েল চত্বর, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা, চানখাঁরপুল ও আদালত প্রাঙ্গণের আশেপাশের সড়কে বেগম খালেদা জিয়াকে বহনকারী গাড়িকে ঘিরে ব্যাপক শোডাউন তৈরি করে ঢাকা মহানগর বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠন। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টা থেকেই এ সব স্থানে নেতাকর্মীরা অবস্থান নেন। এ সময় বিভিন্ন শ্লোগানে শ্লোগানে মুখরিত হয়ে ওঠে পুরো এলাকা। “খালেদা জিয়া ভয় নাই, রাজপথ ছাড়ি নাই”, “খালেদা জিয়া এগিয়ে চল, আমরা আছি তোমার সাথে”, “জেল জুলুম হুলিয়া, নিতে হবে তুলিয়া” এ ধরনের শ্লোগান অসংখ্য নেতাকর্মীর কণ্ঠে শোনা যায়। এ সময়ে কয়েকজন নেতাকর্মীকে আটক করে পুলিশ। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হামলায় আহত হয়েছে অনেক নেতাকর্মী। ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি হাবিব-উন- নবী খান সোহেল, সাধারণ সম্পাদক কাজী আবুল বাশার, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শেখ রবিউল আলম রবি, ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আহসান উল্লাহ হাসান, সিনিয়র সহ-সভাপতি মুন্সি বজলুল বাসিদ আঞ্জু, বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য আ ক ম মোজ্জামেল হক, বিএনপি নেতা অধ্যাপক আনোয়ার হোসেন মন্ডল, জাতীয়তাবাদী যুবদলের সভাপতি সাইফুল আলম নিবর, সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাহউদ্দিন টুকু, সিনিয়র সহ-সভাপতি মোরতাজুল করিম বাদরু, যুগ্ম সাধারণ সম্পদক নূরুল ইসলাম নয়ন, সাংগঠনিক সম্পাদক মামুন হাসান, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী বাবু, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদের ভূইয়া জুয়েল, সাংগঠনিক সম্পাদক ইয়াছিন আলী, যুবদল ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি এসএম জাহাঙ্গীর হোসেন, সাধারণ সম্পাদক সফিকুল ইসলাম মিল্টন, সিনিয়র সহ-সভাপতি মোস্তফা কামাল রিয়াদ, সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শরিফ উদ্দিন জুয়েল, সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তফা জগলুল পাশা পাপেল, যুবদল দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মাওলা শাহীন, ছাত্রদলের সভাপতি রাজিব আহসান, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ, যুগ্ম সম্পাদক আলমগীর হাসান সোহান, আবু আতিক আল হাসান মিন্টু, ওমর ফারুক মুন্না, মেহবুব মাছুম শান্ত, কাজী মোখতার হোসেন, সহ-সাধারণ সম্পাদক আরিফা সুলতানা রুমা, ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক সৈয়দ মাহমুদ, কর্মসূচি ও পরিকল্পনা বিষয়ক সম্পাদক তরিকুল ইসলাম, ঢাকা মহানগর উত্তর ছাত্রদলের দফতর সম্পাদক তানভীর আহমেদ খান ইকরাম, যুবদল নেতা মঈনুল ইসলাম হিটু প্রমুখ নেতৃবৃন্দও শোডাউনে অংশ নেন। : : : : : :





প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

ঢাকা-নেপিদু সমঝোতা স্মারককে আপনি কি ধোঁকা বলে মনে করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
4679 জন