মিয়ানমারের সঙ্গে সম্পাদিত চুক্তি জনসমক্ষে প্রকাশ করুন
প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে প্রমাণ হয় গুমের সঙ্গে সরকারই জড়িত : মির্জা ফখরুল
Published : Saturday, 25 November, 2017 at 12:00 AM, Update: 24.11.2017 11:23:22 PM
দিনকাল রিপোর্ট : গুম নিয়ে জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া বক্তব্যকে ‘গুমের পক্ষে স্বীকারোক্তি’ হিসেবে দাবি করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। একই সঙ্গে তিনি বলেন, বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে হরতাল নয়, জনসম্পৃক্তমূলক কর্মসূচি দেবে বিএনপি। বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে আমরা অবশ্যই কর্মসূচি দেবো। আমাদের একটা ধারণা আছে হরতাল দেয়া মানে জনগণের সম্পৃক্ততা, এটা সব সময় সঠিক নয়। জনগণের সম্পৃক্ততা নিয়েই আমরা আমাদের পক্ষে যেটা সম্ভব হবে সেই কর্মসূচি দেবো। আমরা জনগণের সঙ্গে আছি। : তিনি বলেন, গত বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রী যে কথা বলেছেন গুমের উপরে- এটা স্বীকার করে নিয়েছেন যে, গুম হচ্ছে এবং তারা এই গুমের সাথে জড়িত। ডিফারেন্সটা নিতে হবে আপনাদেরকে, অন্যান্য দেশের তুলনা করেছেন। একটাকে বলা হয়, এনফোর্স ডিজএপিয়ারেন্স অর্থাৎ যেটা সরকারি পর্যায়ে, রাষ্ট্র পর্যায়ে যাদেরকে গুম করা হয়। গতকাল শুক্রবার বায়তুল মোকাররমে জাতীয় মসজিদে সাবেক প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের ছোট ভাই মরহুম আহমেদ কামালের জানাজায় যাওয়ার আগে নয়াপল্টনের কার্যালয়ের সামনে সাংবাদিকদের সাথে তিনি এসব কথা বলেন। : মির্জা ফখরুল বলেন, এই গুম মধ্য যুগে বিশেষ করে ল্যাটিন আমেরিকার দেশগুলোতে ছিল, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে এই ঘটনাগুলো ছিল। এখন কয়েক বছর ধরে বাংলাদেশে এনফোর্স ডিজএপিয়ারেন্স চলছে। প্রতিপক্ষকে গুম করে ফেলা হচ্ছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী দিয়ে-এই অভিযোগ প্রত্যেকটা পরিবার দিয়ে আসছে যে, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী পরিচয় দিয়ে তুলে নিয়ে গেছে। এটা কিন্তু অন্য কোনো গুমের ব্যাপার নয়। এই গুমটা ওনারা (প্রধানমন্ত্রী) শিকার করে নিয়েছেন যে, এই গুমটা বাংলাদেশে হচ্ছে। এটা একটা ভালো কথা যে একটা সত্য স্বীকার করেছেন। : মির্জা ফখরুল বলেন, এই গুম প্রতিহত করার জন্য এই সরকারের কোনো উদ্যোগ থাকবে না এজন্য যে, গুমটাকে তারা ব্যবহার করছেন তাদের রাজনৈতিক উদ্দেশ্য চরিতার্থ করার জন্য। বৃহস্পতিবার সংসদ অধিবেশনে সমাপনী বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, গুম কী কারণে হচ্ছে, কোথায় হচ্ছে। এটা কি শুধু বাংলাদেশে? ২০০৯ সালের একটি হিসাব, ব্রিটেনে দুই লাখ ৭৫ হাজার ব্রিটিশ নাগরিক গুম হয়ে গেল। তার মধ্যে ২০ হাজারের কোনো হদিসই পাওয়া গেল না। আমেরিকার অবস্থা আরও ভয়াবহ। বাংলাদেশের মতো জনবহুল দেশে নিখোঁজ ব্যক্তিদের সন্ধান বের করার অন্তরায়ের কথাও বলেন প্রধানমন্ত্রী। সেই তুলনায় বাংলাদেশের পরিস্থিতি ভালো দাবি করে তিনি বলেন, সেই তুলনায় আমাদের অবস্থা অনেক বেশি নিয়ন্ত্রণে। যখন কোনো ঘটনা ঘটছে, সাথে সাথে খোঁজ নিচ্ছি। : বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধির সমালোচনা করে মির্জা ফখরুল বলেন, বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি শুধুমাত্র দুর্নীতিবাজদেরকে তাদের চিহ্নিত কিছু লোক যারা এই পাওয়ার বিজনেসের সাথে জড়িত তাদেরকে লুটপাট-দুর্নীতিÑ এটাতে সাবসিডি দেয়ার জন্য জনগণের পকেট কেটে নিজেদের পকেট ভর্তি করা হচ্ছে। কয়েকজন চিহ্নিত ব্যবসায়ী যারা এই ব্যবসা করছেন। দ্য আর রেসপনসেবল ইন কলাবেরেশন অব দ্য গভর্নমেন্ট। : তিনি বলেন, বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধিতে সাধারণ মানুষের জীবনকে দুঃসহ করবে। এই মূল্য বাড়ানোর মধ্যে সব কিছুর দাম বাড়বে, আলুর দাম, চালের দাম, দ্রব্যাদির দাম বৃদ্ধি পাবে, বস্ত্রের দাম বাড়বে, পরিবহন ব্যয় বাড়বে- এটার একটা ভয়াবহ প্রভাব অর্থনীতিতে পড়বে। মিয়ানমার-বাংলাদেশের মধ্যকার সম্পাদিত সমঝোতা চুক্তির বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল বলেন,  আমরা খুব হতাশ হয়েছি। ওই চুক্তির মূল বিষয়গুলো আমরা জানি না, জনসমক্ষে আনা হয়নি। এই চুক্তির ফলে তারা (রোহিঙ্গা) কতটুকু আস্থা ফিরে পাবেন যে, তারা সেই জায়গায় আবার ফিরে যাবেন, যে জায়গায় তাদের নিরাপত্তা থাকবে কি না, আবার তারা সেই গণহত্যার শিকার হবে কি না- এ বিষয়গুলো এখন পর্যন্ত আমরা কিছুই জানি না। এখনো মিয়ানমার সেনাবাহিনী নির্যাতন করছে, অত্যাচার করছে। প্রতিদিনই মিয়ানমার থেকে বহু লোক এখানে (বাংলাদেশ) আসছে। এই অত্যাচার-নির্যাতন-গণহত্যা বন্ধ না করে আবার সেখানে তাদেরকে ফিরিয়ে নেয়ার চেষ্টা করা- এটা আমরা মনে করি আরেকটি নরকের মধ্যে ঠেলে দেয়ার সমস্যা হবে। : রোহিঙ্গা ইস্যুতে সম্পাদিত সমঝোতা চুক্তি জনসমক্ষে প্রকাশ চান কি না প্রশ্ন করা হলে মির্জা ফখরুল বলেন, অবশ্যই অবশ্যই জনসমক্ষে চাই। সমঝোতা চুক্তির বিষয়ে আশাবাদ ব্যক্ত করে তিনি বলেন, আশা করবো যে, মিয়ানমারের সঙ্গে বাংলাদেশ সরকারের চুক্তিটি সত্যিকার অর্থে সেখানে তাদেরকে নাগরিকত্বের মর্যাদা দিয়ে ফিরিয়ে নেয়ার জন্য ব্যবস্থা করবে। অন্যথায় এটা একেবারেই একটা ব্যর্থ চুক্তি হবে বলে আমরা বিশ্বাস করি। : বিএনপি মহাসচিব অভিযোগ করে বলেন, এখন পর্যন্ত তারা (মিয়ানমার) যে গণহত্যা করেছে সেটা কিšু— বাংলাদেশ সরকার সেভাবে তুলেও ধরেনি এবং একই সঙ্গে সেই যে স্বীকৃতি সেটাও কিন্তু আন্তর্জাতিক সেটাও সেভাবে পাওয়া যায়নি। যদিও জাতিসংঘ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সেই কথাগুলো বলেছেন। কিন্তু আনুষ্ঠানিকভাবে সে কথাটা এখন পর্যন্ত— পাওয়া যায়নি। :





প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে প্রমাণ হয় গুমের সঙ্গে সরকারই জড়িত। আপনি কি একমত?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
24309 জন