সকল পরীক্ষায়ই ফাঁস হচ্ছে প্রশ্নপত্র : ব্যবস্থা নেই
Published : Sunday, 26 November, 2017 at 12:00 AM
দিনকাল রিপোর্ট : পরীক্ষায় প্রশ্নফাঁসের  হিড়িক চলছে। পঞ্চম  শ্রেণির প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী (পিইসি) ও ইবতেদায়ী পরীক্ষার  থেকে শুরু করে এসএসসি, এইচএসসি,  স্নাতক (ডিগ্রি) পরীক্ষা, মেডিকেল ও বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষার পাশাপাশি ব্যাংক বীমাসহ সরকারি চাকরির নিয়োগ পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগ উঠেছে। প্রশ্ন ফাঁসের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে বিভিন্ন কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগ নেতাদের বিরুদ্ধে। আর চাকরির নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের সাথে জড়িত রয়েছে সরকার সমর্থিত প্রভাবশালী কর্মকর্তারা। প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনায় রাজধানীসহ সারাদেশেই প্রচন্ড ক্ষোভ ও অসন্তোষ বিরাজ করছে। ডিজিটাল এবং এনালগ দুই পদ্ধতিইে এই প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনা ক্রমেই বাড়ছে। আর এই বিষয়টি নিয়ে অভিভাবকসহ সর্বমহলেই  কোমলমতি শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যৎ নিয়ে হতাশা ও ক্ষোভ বাড়ছে। কারণ উচ্চ আদালত পর্যন্ত গড়িয়েছে প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগ নিষ্পত্তির জন্য। সরেজমিন খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রশ্নপত্র ফাঁসের সাথে জড়িত ছাত্রলীগের বেশ কয়েকজন নেতা ইতিমধ্যে গ্রেফতার হয়েছেন। প্রতিটি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের পাশাপাশি নানা ধরনের ভুল-ভ্রান্তির অভিযোগও উঠেছে। পঞ্চম শ্রেণির সমাপনী পরীক্ষার  প্রশ্ন ফাঁসকারীদের কঠোর হাতে দমন করা হবে বলে সংশ্লিষ্টরা প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন। কয়েকটি কেন্দ্রে প্রশ্ন ফাঁসের কারণে একাধিক ব্যক্তিকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। গত ১৯ নভেম্বর ইংরেজি পরীক্ষার মধ্য দিয়ে সারাদেশে একযোগে শুরু হয়েছে পঞ্চম শ্রেণির পিইসি-সমাপনী পরীক্ষা। বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত হয়েছে ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা। পরীক্ষার আগের রাতেই পরীক্ষার প্রশ্ন  ফেসবুক, টুইটার, ভাইবারসহ  যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ার অভিযোগ উঠেছে। পরীক্ষা শুরুর প্রথম দিন থেকেই  দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে প্রশ্নফাঁসের অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত ২৪ নভেম্বর চাঁদপুরের হাইমচর উপজেলার ৭ নম্বর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নৈশপ্রহরী মো. জুয়েল ও ফটোকপি দোকানদারকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে।  তাদের কাছ থেকে পাওয়া প্রশ্নপত্রের সঙ্গে ৫০ নম্বরের মিল রয়েছে। পরে এ বিষয়ে স্থানীয় থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। : নীলক্ষেত সরকারি প্রাথমিক স্কুলের সামনে কয়েকজন অভিভাবক বলেন, পঞ্চম  শ্রেণির এ পরীক্ষার ফল ছাত্রছাত্রীর জীবনে কোথাও কাজে আসে না। শুধুমাত্র অভিভাবক ও ছোট ছেলেমেয়েদের বাড়তি টেনশন তৈরি হয়। সূত্র মতে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক  সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, ফাঁস হওয়া প্রশ্ন দিয়ে পাস করলে তাদের দ্বারা কিছুই আশা করা যায় না। সরকার ঘন ঘন পরীক্ষা আয়োজন করায় মানুষের মধ্যে প্রশ্ন ফাঁসের চিন্তা ঢুকে  গেছে। ফাঁস হওয়া প্রশ্ন দিয়ে পাস করার পর তারা দেশের বোঝা ছাড়া আর কিছু হয় না। : বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁসের চেষ্টার অভিযোগে ৬ জনকে আটক করেছে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। এদের মধ্যে তিনজন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ও একজন বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র। গতকাল শনিবার সকাল ৭টায় নগরীর বাংলাবাজার আরশেদ আলী কন্ট্রাক্টর গলির নাহার ম্যানশনের নিচতলার ভাড়াটিয়া বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র মুয়ীদুর রহমান বাকীর বাসায় অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। এ সময় পাঁচটি ইলেক্ট্রনিক্স ডিভাইস, পাঁচটি বিশেষ ইয়ারফোন, প্রশ্ন ফাঁসের কাজে ব্যবহৃত ১১টি মোবাইল সেট (সিমসহ) এবং তিনটি পেনড্রাইভ উদ্ধার করা হয়েছে। : আটককৃতরা  ছাত্রলীগের নেতা। তারা হলেন যশোরের বাঘারপাড়া থানার বলরামপুর গ্রামের মো. মুরাদ মোল্লার ছেলে ও  ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূতত্ত্ব বিভাগের ছাত্র মারুফ হোসাইন মারুফ (২২), পটুয়াখালীর দুমকী উপজেলার কার্তিকপাশা গ্রামের মৃত আব্দুল কাদের হাওলাদারের ছেলে ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মৃত্তিকা পানি ও পরিবেশ বিভাগের ছাত্র আলমগীর হোসেন শাহিন (২৪), পটুয়াখালীর গলাচিপা পৌরসভার কলেজপাড়া এলাকার মো. জাহিদুল ইসলামের ছেলে ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের ছাত্র মাহমুদুল হাসান আবিদ (২৩), পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালীর চালিতাবুনিয়া গ্রামের গাজী হাফিজুর রহমানের ছেলে ও বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র মুয়ীদুর রহমান বাকী (২২), পটুয়াখালীর দুমকী উপজেলার লেবুখালী গ্রামের আবুয়াল  হোসেনের ছেলে ও ঢাকার মোহাম্মদপুর ডিগ্রি কলেজের ছাত্র রাকিব আকন (২১) এবং পটুয়াখালীর গলাচিপা উপজেলার পানপট্টির জাফর আহম্মেদের ছেলে ও গলাচিপা ডিগ্রি কলেজের মানবিক বিভাগের ছাত্র সাব্বির আহম্মেদ প্রিতম (২৩)। : এছাড়াও উত্তরা ব্যাংকের অফিসার পদে নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নফাঁস হয়েছে। গত শুক্রবার বিকেল ৩টায় নির্ধারিত পরীক্ষা শুরুর অনেক আগেই প্রশ্নফাঁস হয়ে যায় বলে অভিযোগ পরীক্ষার্থীদের। ফাঁস হওয়া কপিগুলো সাদা কাগজে হাতে লেখা। প্রশ্নের নম্বরের পাশাপাশি উত্তরও লেখা আছে বলে জানান পরীক্ষার্থীরা। এর আগে গত ২২ আগস্ট প্রবেশনারি অফিসার ও সহকারী অফিসার পদে নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে উত্তরা ব্যাংক। এতে আবেদন করেন প্রায় ৫২ হাজার পরীক্ষার্থী। : :





প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্যে কোনো আশার আলো দেখতে পান?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
24843 জন