জন্মদিন উপলক্ষে আলোচনা সভায় বক্তারা
তারেক রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ সরকার প্রমাণ করতে পারেনি
Published : Monday, 27 November, 2017 at 12:00 AM, Update: 26.11.2017 10:39:06 PM
তারেক রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ সরকার প্রমাণ করতে পারেনিদিনকাল রিপোর্ট : দেশের মানুষের প্রয়োজনই বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে আনবে বলে জানিয়েছেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস। তিনি বলেন, তারেক রহমান বাংলাদেশে ফিরে আসবেন। দেশের মানুষের প্রয়োজনেই তিনি দেশে ফিরবেন। কেউ তাকে ঠেকাতে পারবে না। তার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ এই সরকার প্রমাণিত করতে পারেনি। আজকে তার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে। : গতকাল রবিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ৫৩তম জন্মদিন উপলক্ষে গণতন্ত্র ও উন্নয়নে তারেক রহমান শীর্ষক এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। এ আলোচনা সভার আয়োজন করে জিয়া পরিষদ। ২০ নভেম্বর তারেক রহমানের ৫৩তম জন্মদিন ছিল। আলোচনা সভা শেষে কেক কেটে তারেক রহমানের ৫৩তম জন্মদিন পালন করা হয়। মির্জা আব্বাস বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও বিএনপিকে ছাড়া দেশে কোনো নির্বাচন হবে না। আজকে আওয়ামী লীগ জিয়া পরিবার ও জনগণকে সবচেয়ে বেশি ভয় পায়। এ জন্যই তারা আগামী নির্বাচন এবং বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানকে নিয়ে ষড়যন্ত্র করছে। কিন্তু এ কথা স্পষ্টভাবে বলছি, এই সরকারের অধীনে এবং  বেগম খালেদা জিয়াকে বাদ দিয়ে কোনো নির্বাচন হবে না। : তিনি বলেন, ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগই দুর্নীতি করে। এজন্যই তাদের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, রাজনীতিবিদরা দুর্নীতি করে। আমিও বলছি আওয়ামী লীগই দুর্নীতি করে বলেই ওবায়দুল কাদের সে কথা বলেছেন। মনে রাখতে হবে বিএনপি দুর্নীতি করে না। : বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েলকে নিউরোলজি ডাক্তার দেখানো উচিত বলে পরামর্শ দিয়ে মির্জা আব্বাস বলেন, তোফায়েল আহমেদকে আমি ভালোভাবে চিনি। সেই যে ’৬৬-র পর থেকে ৬ দফা আন্দোলন, ১১ দফা আন্দোলন থেকেই চিনি। ভদ্রলোককে আমি ভালোই জানতাম, কিন্তু সেদিন হঠাৎ করে বললেন তিনি নাকি জিয়াউর রহমানকে চেনেন না। তখন মনে হলো এই তোফায়েল সাহেবকে তো আমি চিনি না। তোফায়েল সাহেব কি হলফ করে বলতে পারবেন না যে, জিয়াউর রহমানকে তিনি চেনেন না? পারবেন না। কাউকে খুশি করার জন্য এ কথাটা বলেছেন। তিনি ইতিহাসকে বিকৃত করলেন। ওনার মতো একজন দায়িত্বশীল লোকের কাছ থেকে এটা আশা করা যায় না। ওনাকে নিউরোলজি ডাক্তার দীন মোহাম্মদ সাহেবকে দেখানো উচিত। : এ প্রসঙ্গে বিএনপির এই শীর্ষ নেতা আরও বলেন, তার (তোফায়েল) এমন হতে পারে বার্ধক্যজনিত কারণে তার সামান্য স্মৃতিভম হয়েছে। জিয়াউর রহমানকে আওয়ামী লীগের চেনার দরকার নেই। কারণ তাকে চিনলে অনেক কিছু মেনে নিতে হবে। আওয়ামী লীগ সবসময় মিথ্যা কথা বলে। আমাদের দেশে এত ভালো ভালো দল আছে তার মধ্যে একটা মিথ্যাবাদী দল থাকাও দরকার। : মির্জা আব্বাস বলেন, জিয়াউর রহমান সাহেব তো আজকের আওয়ামী লীগের জন্মদাতা। কারণ তিনি বাকশালের গর্ভ থেকেই এই আওয়ামী লীগকে বের করেছিলেন। বাকশাল, একদলীয় শাসন ছিল তখন আওয়ামী লীগ ছিল না। উনি বাকশাল উঠিয়ে দিলেন এবং এই আওয়ামী লীগের লাইসেন্সও তিনিই দিলেন। তো সেই তোফায়েল সাহেব জিয়াউর রহমানকে চেনেন না! ভুল বলে ফেলছেন ভাই, ওনার পক্ষ থেকে আমি ক্ষমা চাচ্ছি। : দেশে যে দুর্নীতি হচ্ছে তার অর্ধেকই করছে রাজনীতিবিদরা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের এমন বক্তব্যের প্রেক্ষিতে বিএনপির সাবেক এই মন্ত্রী বলেন, এটাই যদি হয় দয়া করে আপনারা দুর্নীতি বন্ধ করে দেন, তাহলে দেশে দুর্নীতি পুরোটাই বন্ধ হয়ে যাবে। আজকে আওয়ামী লীগের দুর্নীতির কারণে দেশ ডুবতে চলেছে। : বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও আয়োজক সংগঠনের চেয়ারম্যান কবীর মুরাদের সভাপতিত্বে এবং জিয়া পরিষদের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব আবদুল্লাহিল মাসুদের সঞ্চালনায় আরো বক্তব্য রাখেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা প্রফেসর ডা. আবদুল কুদ্দুস, বিএনপির সহসাংগঠনিক সম্পাদক আবদুস সালাম আজাদ, জিয়া পরিষদের মহাসচিব প্রফেসর ড. মো. এমতাজ হোসেন, ভাইস চেয়ারম্যান  প্রফেসর ড. মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম, প্রফেসর ড. জে. কিউ মোস্তাফিজুর রহমান, দেওয়ান মাহফুজুর রহমান ফরহাদ প্রমুখ। : :





প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেছেন, রংপুর সিটি নির্বাচন স্বচ্ছ ও নিরপেক্ষ হবে। আপনিও কি তেমন আশা করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
14965 জন