মহিলা দলের আলোচনা সভায় বক্তারা
জাতীয়তাবাদী শক্তিকে ধ্বংস করতেই তারেক রহমানের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র
Published : Wednesday, 29 November, 2017 at 12:00 AM, Update: 28.11.2017 10:43:30 PM
জাতীয়তাবাদী শক্তিকে ধ্বংস করতেই তারেক রহমানের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রদিনকাল রিপোর্ট : বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র মানে জিয়াউর  রহমানের বিরুদ্ধে, সার্বভৌমত্ব ও জাতীয়তাবাদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র বলে মন্তব্য করেছেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। তিনি বলেন, যারা এ দেশের ভালো চায় না, সার্বভৌমত্বে বিশ্বাস করে না, গণতন্ত্রকে গলা টিপে হত্যা করতে চায়; তারা জিয়াউর রহমানকে সহ্য করতে পারেনি, তারেক রহমানকেও সহ্য করতে পারছে না; এ কারণে তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র। গতকাল সোমবার সকালে জাতীয় প্রেসকাবে বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ৫৩তম জন্মদিন উপলে জাতীয়তাবাদী মহিলা দল আয়োজিত এক আলোচনা সভায় একথা বলেন তিনি। খন্দকার মোশাররফ বলেন, বর্তমান সরকার অনেকবার বিএনপিকে ভাঙার চেষ্টা করেছে।  ১/১১-এ একবার তারেক রহমানকে জেলে ঢুকিয়ে রিমান্ডে তার মেরুদন্ড ভেঙে ও বেগম খালেদা জিয়াকে জেলে দিয়ে বিএনপিকে দুর্বল করার চেষ্টা করা হয়েছিলো। এরেই ধারাবাহিকতায় সরকার ও তার মন্ত্রীরা বেগম খালেদা জিয়াকে রাজনীতি থেকে সরিয়ে দেবেন, তারেক রহমানকে আসতে দেবেন না, বিএনপিকে রাজনীতি শূন্য করার চেষ্টা করে যাচ্ছেন। : তিনি বলেন, নিরপে সরকারের অধীনে নির্বাচন না দিলে জনগণ রাস্তায় নেমে আসবে।  বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে ছাড়া দেশে ২০১৪ সালের মত কোনো নির্বাচন হবে না, হতে দেয়া হবে না। : বিএনপিকে বর্তমানে বাংলাদেশের সবচেয়ে ‘জনপ্রিয়’ দল দাবি করে মোশাররফ হোসেন বলেন, বিএনপির জনপ্রিয়তা দেখে সরকার বেসামাল হয়ে পড়েছে। রোহিঙ্গাদের দেখতে কক্সবাজারের উদ্দেশে যাত্রাপথে এবং ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে দলের পে জনস্রোত হয়েছে দাবি করে খন্দকার মোশাররফ বলেন, বিএনপির পে যে জোয়ার সৃষ্টি হয়েছে, এই জোয়ার কেউ বন্ধ করতে পারবে না। এই গণজোয়ারে আওয়ামী লীগ দিশেহারা, তারা নানা রকমের কথাবার্তা বলছে, তারা বেসামাল। আজকে তারা বেগম খালেদা জিয়াকে নির্বাচন থেকে দূরে রাখতে চায়। : ২০১৪ সালের দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মতাসীনরা কৌশল করে বেগম খালেদা জিয়াকে নির্বাচনের বাইরে রেখেছিল অভিযোগ করে বিএনপির এই নেতা বলেন, আমরা স্পষ্টভাষায় বলতে চাই, ২০১৪ সাল এবং আগামী একাদশ নির্বাচন এক নয়। পানি বাংলাদেশের নদীতে অনেক গড়িয়েছে। বেগম খালেদা জিয়াকে ছাড়া আগামী নির্বাচন হবে না, হতে দেয়া হবে না। একাদশ নির্বাচন অবশ্যই ‘নিরপে নির্দলীয়’ সরকারের অধীনে হতে হবে বলে দাবি জানিয়ে বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ‘যথাসময়ে’ নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকারের রূপরেখা দেবেন। : তিনি বলেন, যত ষড়যন্ত্র করুক না কেন, আগামী দিনে সহায়ক নিরপে সরকারের অধীনেই নির্বাচন হবে। সেই নির্বাচনে বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে এদেশের জাতীয়তাবাদী শক্তি নির্বাচনে যাবে এবং জনগণ জাতীয়তাবাদী শক্তিকে বিজয়ী করে দেখিয়ে দেবে। একইসঙ্গে ২০১৪ সালের মতো আগামী নির্বাচন ‘একতরফা’ করলে জনগণ ‘রাস্তায়’ নেমে প্রতিরোধ গড়ে তুলবে বলেও হুঁশিয়ারি দেন খন্দকার মোশাররফ। : মহিলা দলের সভানেত্রী আফরোজা আব্বাসের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদিকা সুলতানা আহমেদের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন বিএনপির মহিলা বিষয়ক সম্পাদক নুরী আরা সাফা, সহ-স্থানীয় সরকার বিষয়ক সম্পাদক শাম্মী আখতার, মহিলা দলের সিনিয়র সহ-সভাপতি জেবা খান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হেলেন জেরিন খান, ঢাকা মহানগর দণি মহিলা দলের সভাপতি রাজিয়া আলিম, ঢাকা মহানগর উত্তর মহিলা দলের সভাপতি পেয়ারা মোস্তফা প্রমুখ।     : :





প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

মির্জা ফখরুল ইসলাম পিলখানা হত্যার তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশের দাবি জানিয়েছেন। আপনিও কি তাই চান?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
33770 জন