মাছ শিকারের অনুমতি অথবা রেশন দাবি টেকনাফে নাফনির্ভর জেলেদের বিক্ষোভ
Published : Saturday, 2 December, 2017 at 12:00 AM
টেকনাফ (কক্সবাজার) প্রতিনিধি : নাফ নদীনির্ভর কয়েক শ’ জেলে ও জেলেনি টেকনাফের নাফ নদীতে মাছ শিকার বন্ধ রাখার প্রতিবাদে বিক্ষোভ করেছেন। গত বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টায় টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ের সামনে টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা এলাকার নাফ নদীনির্ভর জেলেরা সমবেত হয়ে নাফ নদীতে মাছ শিকারের অনুমতি দাবিতে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন। এ সময় তারা একাধারে ৩ মাস নাফ নদীতে মাছ শিকার বন্ধ থাকায় উপকূলীয় জেলে পরিবারে দুর্দিন, অর্ধাহারে-অনাহারে দিন যাপন করার কথা তুলে ধরে রেশন চালু করার দাবি জানান। তা ছাড়া তাদের সমস্যার কথা তুলে ধরে টেকনাফস্থ বিজিবির অধিনায়ক, টেকনাফ উপজেলা চেয়ারম্যান, টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, টেকনাফ সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করেন। হ্নীলা জলদাসপাড়ার ২ শতাধিক জেলে পরিবারের পক্ষে দেয়া স্মারকলিপিতে দুঃখ-দুর্দশার কথা বিস্তারিতভাবে তুলে ধরে নাফ নদীতে মাছ শিকার করার অনুমতি অথবা জীবন রক্ষার্থে রোহিঙ্গাদের ন্যায় জলদাসপাড়ার সব জেলেকে রেশন দেয়ার আবেদন জানানো হয়। টেকনাফ সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. দেলোয়ার হোসেন স্মারকলিপি গ্রহণ করেন। এ সময় হতাশাগ্রস্ত অনেক জেলে ও জেলেনি কান্নায় ভেঙে পড়েন। টেকনাফ সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. দেলোয়ার হোসেন, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার দায়িত্বে থাকা একাডেমিক সুপারভাইজার মো. নুরুল আবসার, মৎস্য কার্যালয়ের শহিদুল আলম অফিস থেকে বের হয়ে উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গণে বিক্ষোভরত জেলেদের মাঝে গিয়ে সান্ত্বনা দিয়ে সরকারি সিদ্ধান্তের বিষয়টি অবহিত করে স্মারকলিপি গ্রহণ করেন।    : জেলে ও জেলেনিরা আরো বলেন, আদিকাল থেকে আমরা নাফ নদীতে মাছ ও কাঁকড়া শিকার করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছি। টাকার অভাবে কর্জ করে জাল ও নৌকা করতে হয়েছে। ৩ মাস ধরে নাফ নদীতে মাছ শিকার বন্ধ থাকায় একদিকে সংসারের প্রয়োজনীয় চাহিদা মেটানো সম্ভব হচ্ছে না, অন্যদিকে কর্জ পরিশোধ করা যাচ্ছে না। এভাবে নাফ নদীর উপর নির্ভর টেকনাফ উপজেলার প্রায় ৮ হাজার জেলে ও তাদের পরিবার ৩ মাস ধরে অর্ধাহারে-অনাহারে মানবেতর জীবনযাপন করছেন। টেকনাফ উপজেলা প্রশানের পক্ষ থেকে জেলেদের পুনর্বাসনের কথা বলা হলেও এ পর্যন্ত কোনো সাহায্য পাওয়া যায়নি। এ ব্যাপারে টেকনাফ সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. দেলোয়ার হোসেন বলেন, মিয়ানমারের সহিংসতা, ইয়াবা পাচার ও রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ ঠেকাতে সরকারি নির্দেশে নাফ নদীতে মাছ শিকার বন্ধ রাখা হয়েছে। ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত ওই নির্দেশ নির্ধারিত ছিল। এরপর নতুন নির্দেশনা আসায় ওই নিষেধাজ্ঞা বলবৎ রয়েছে। : :





দেশের পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, ক্ষমতাসীনরা ব্যাংকিং খাতে হরিলুট চালাচ্ছে। আপনিও কি তাই মনে করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
11244 জন