ডাকসু নির্বাচন না হলে জাতীয় নেতৃত্বে শূন্যতা সৃষ্টি হবে
Published : Tuesday, 5 December, 2017 at 12:00 AM
দিনকাল রিপোর্ট : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজকল্যাণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের সান্ধ্যকালীন স্নাতকোত্তর কোর্সের দশম ব্যাচের ছাত্র ওয়ালিদ আশরাফ টানা আটদিন ধরে ঢাবির কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনের দাবিতে অনশন করছেন। ২৭ বছর ধরে বন্ধ থাকা ডাকসু নির্বাচনের দাবিতে গত ২৬ নভেম্বর বিকাল থেকে একাই অনশন করছেন তিনি। একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে শহীদ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারী ও তাদের পরিবারের স্মরণে ভিসির বাসভবনের ঠিক পাশেই নির্মিত ‘স্মৃতি চিরন্তন’ চত্বরে অনশন করছেন তিনি। টানা অনশনের কারণে দুর্বল হয়ে পড়েছেন ওয়ালিদ। : গত শনিবার রাতে চিকিৎসক তার স্বাস্থ্য পর্যবেক্ষণ করে জানিয়েছেন, তার রক্তে গ্লুকোজের পরিমাণ অনেক কমে গেছে, রক্তচাপও অনেক কম, যেকোনো সময় বড় ধরনের অঘটন ঘটে যেতে পারে। : এদিকে ওয়ালিদের অবস্থা খারাপের দিকে গেলেও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বিষয়টি আমলে নেয়নি এখনও। বিজয় দিবসের আগে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা না করা পর্যন্ত এই অনশন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন তিনি। : ওয়ালিদ আশরাফ বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে এখন অসুস্থ পরিবেশ বিরাজ করছে। শিক্ষার্থীরা প্রতিবাদ করতে ভুলে গেছে। দীর্ঘদিন ধরে ডাকসু নির্বাচন না হওয়ায় এই প্রজন্মের শিক্ষার্থীরা তাদের রাজনৈতিক অধিকার থেকেও বঞ্চিত হচ্ছে। ফলে ব্যাহত হচ্ছে সুষ্ঠু গণতন্ত্র চর্চা। এই অবস্থা থেকে মুক্তি পেতে হলে অবিলম্বে ডাকসু নির্বাচন দরকার। এই তাড়না থেকেই অনশন শুরু করেছি। নির্বাচনের প্রক্রিয়া শুরু না করা পর্যন্ত অনশন চালিয়ে যাবো। গতকাল শনিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে ওয়ালিদের সঙ্গে সংহতি জানাতে আসেন ঢাবি অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক এম এম আকাশের নেতৃত্বে আসন্ন রেজিস্ট্রার গ্রাজুয়েট প্রতিনিধি নির্বাচনে প্রগতি পরিষদের পক্ষে অংশ নেয়া প্রতিনিধিরা। এ সময় তারা ডাকসুর দাবিকে পূর্ণ সমর্থন জানিয়ে প্রশাসনের এ ব্যাপারে পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানান। এর কিছুসময় পরেই সংহতি জানাতে আসেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সাবেক সভাপতি ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি অধ্যাপক আনোয়ার  হোসেন। : তিনি বলেন, ডাকসু না থাকায় বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের অধিকার ক্ষুণœ হচ্ছে। জাতীয় রাজনীতিতে নতুন যোগ্য নেতৃত্বের জন্যও ডাকসু দরকার। তবে এই নির্বাচনের মূল দায়িত্ব নিতে হবে ভিসিকে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ৭৩-এর আদেশ বলে ভিসি যদি উদ্যোগ নেয় তাহলে এখানে কেউ বাধা দিতে পারবে না। : এদিকে দীর্ঘদিন ধরে ডাকসুর দাবিতে আন্দোলন করে আসা বাম সংগঠনগুলোও ওয়ালিদের অনশনে নতুন করে নড়েচড়ে বসেছেন। তার সঙ্গে সংহতি জানিয়ে তারাও প্রগতিশীল ছাত্রজোটের পক্ষ থেকে আন্দোলনের ঘোষণা দিয়েছেন। ইতিমধ্যে তারা মুখে কালো কাপড় বেঁধে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণারও দাবি জানিয়েছেন। সর্বশেষ রবিবার বিকালে এই অনশনে আনুষ্ঠানিকভাবে সংহতি জানিয়েছেন বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের নেতাকর্মীরা। শিক্ষকদের পাশাপাশি ওয়ালিদের এই অনশনের সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা সংহতি জানিয়েছেন প্রথম থেকেই। ওয়ালিদের সঙ্গে স্মৃতি চিরন্তন চত্বরে তারাও অবস্থান করছেন। অনশনের পাশাপাশি সাধারণ শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে স্মৃতি চিরন্তনে মোমবাতি প্রজ্বলন, ডাকসুর দাবিতে মিছিলও করছেন তারা। ডাকসুর দাবিতে দেয়াল লিখন, গ্রাফিতিও করেছেন তারা। : এ বিষয়ে ভিসি অধ্যাপক আখতারুজ্জামান বলেন, ডাকসু নির্বাচন একটা দীর্ঘ মেয়াদী ব্যাপার। আমরা চাইলেও দ্রুত করতে পারব না। আমাদের প্রশাসন তার সাথে কথা বলেছেন। আগে থেকে কোনো কিছু না জানিয়ে হঠাৎ করে তার এভাবে অনশনে বসাটা ঠিক হয়নি। : :





প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, দুঃশাসন টিকিয়ে রাখতে খুনের  নেশায় মেতে উঠেছে আওয়ামী লীগ। আপনি কি তাই মনে করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
35039 জন