সৈয়দপুরে সড়কের ওপর শতবর্ষী ঝুঁকিপূর্ণ গাছ
Published : Saturday, 30 December, 2017 at 12:00 AM
মিজানুর রহমান মিলন, সৈয়দপুর থেকে : সৈয়দপুর শহরের কর্মব্যস্ত বিমানবন্দর সড়কের পাশে রেলওয়ে জায়গায় মৃতপ্রায় শতবর্ষী শিরীষ গাছ ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে। যে কোন সময় এর মরাডাল সড়কের ওপর ভেঙে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। ফলে সড়কের দুই পাশে অবস্থিত ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ব্যবসায়ীরা ঝুঁকির মধ্যে ব্যবসা পরিচালনা করছেন। একই সঙ্গে সড়কে যাতায়াতকারী বিমানযাত্রীসহ লোকজনও দুর্ঘটনার ঝুঁকির মধ্যে রয়েছেন। বিশেষ করে গাছটি দিন দিন নির্জীব হয়ে সড়কের ওপর হেলে পড়ায় ঝুঁকিপূর্ণ গাছটি অপসারণ করার দাবি জানিয়েছেন ওই এলাকার বাসিন্দারা। এদিকে গাছটি অধিক ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে ওঠায় সৈয়দপুর পৌরসভার পক্ষ থেকে গাছটি অপসারণের জন্য রেলওয়ে কর্তৃপক্ষকে একাধিকবার চিঠি দেয়া হয়েছে। কিন্তু ঝুঁকিপূর্ণ গাছটি অপসারণে রেল কর্তৃপক্ষের টনক নড়ছে না। তারা নীরব ভূমিকা পালন করছেন বলে অভিযোগ ভুক্তভোগীদের। এ অবস্থায় ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের লোকজন উদ্বেগ-উৎকন্ঠা প্রকাশ করেছেন। সূত্র জানায়, বিমানবন্দর সড়কটি শহরের গুরুত্বপূর্ণ কর্মব্যস্ত একটি সড়ক। এ সড়কের পাশে অবস্থিত রেলওয়ে অফিসার্স কলোনী। এ কলোনীর সীমানা ঘেঁষে বেশকিছু পুরাতন গাছ রয়েছে। এর মধ্যে সড়ক ঘেঁষে থাকা শিরীষ গাছটি নির্জীব হয়ে মরা গাছে পরিণত হয়েছে। ইতোমধ্যে এর অনেক ডালপালাও শুকিয়ে গেছে। বিশেষ করে গাছটি সড়কের ওপর বিপজ্জনকভাবে হেলে পড়ায় দুর্ঘটনার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এই সড়ক দিয়ে বিমানবন্দর, সেনানিবাস, আর্মি প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, রেলওয়ে হিসাব দপ্তর, উপজেলা পরিষদ, ক্যান্ট পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ, সরকারি কারিগরি কলেজ, লায়ন্স স্কুল এন্ড কলেজ, সরকারি বেসরকারি শিশু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন জনপদের মানুষ নিত্যদিন যাতায়াত করেন। একইভাবে চলাচল করে অসংখ্য যান্ত্রিক ও অযান্ত্রিক যানবাহন। এছাড়াও ঝুঁকিপূর্ণ গাছটির সড়কের দু’পাশে রয়েছে প্রায় শতাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। অথচ গাছটির মৃতদশা হওয়ার কারণে সর্বক্ষণ আতঙ্কগ্রস্ত থাকতে হচ্ছে মানুষজনকে। সড়কে অবস্থিত দোকানের একাধিক ব্যবসায়ী জানান, আমরা গাছটির কারণে সব সময় আতঙ্কের মধ্যে আছি। ঝুঁকিপূর্ণ গাছটি যদি অবিলম্বে অপসারণ করা না হয়, তাহলে যেকোন সময় জানমালের ক্ষতির আশঙ্কা রয়েছে। এলাকার একাধিক বাসিন্দা জানান, রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ শহরের অনেক ঝুঁকিপূর্ণ গাছ অপসারণ করলেও ওই সড়কের গাছটি দীর্ঘদিনেও কাটা হচ্ছে না। ফলে ঝুঁকি নিয়ে আমাদের যাতায়াত করতে হচ্ছে। ওই এলাকার একাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা হলে তারা জানায়, প্রতিদিনই আমাদের এ সড়ক দিয়ে স্কুল-কলেজে যেতে হয়। ভয় হয় গাছটির নিচ দিয়ে যেতে। তারা ঝুঁকিপূর্ণ গাছটি কেটে নেয়ার জন্য রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের নিকট দাবি জানায়। : :





দেশের পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, দেশে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড হচ্ছে না। আপনি কি একমত?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
2000 জন