চলনবিলের মাঠে মাঠে হলুদ ফুলের সমারোহ
চাটমোহরে চলতি বছরে বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা
Published : Saturday, 30 December, 2017 at 12:00 AM, Update: 29.12.2017 9:57:08 PM
চলনবিলের মাঠে মাঠে হলুদ ফুলের সমারোহচাটমোহর (পাবনা) প্রতিনিধি : শীতের আগমনী বার্তায় বিস্তীর্ণ মাঠজুড়ে শোভা পাচ্ছে সরিষা ফুল। গ্রামের দিগন্ত মাঠ সেজেছে হলুদ সরিষা ফুলের সমারোহে। সরিষা ফুলের মৌ-মৌ গন্ধ চারিদিকে। মৌমাছির গুনগুন শব্দ চারিদিকে। চলনবিলাঞ্চলের বিভিন্ন মাঠে সরিষার ফুলে ছেয়ে গেছে। প্রতিটি মাঠে সরিষার আবাদ হয়েছে চোখে পড়ার মতো। এ বছরে বিরূপ আবহাওয়া উপেক্ষা করেও কৃষকরা সরিষা আবাদ করেছেন। বর্তমানে আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এবার সরিষার বাম্পার ফলন হবে আশা করছেন কৃষক ও উপজেলা কৃষি বিভাগ। এ বছর চলনবিলাঞ্চলের চাটমোহর, ভাঙ্গুড়া, নাটোরের গুরুদাসপুর, বড়াইগ্রাম, সিংড়া, সিরাজগঞ্জের তাড়াশ ও  উল্লাপাড়া উপজেলায় বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে সরিষার। : সরেজমিনে চলনবিল এলাকার বিভিন্ন মাঠ ঘুরে দেখা গেছে, হলুদ ফুলে ফুলে ছেয়ে গেছে সরিষা গাছগুলো। মাঠজুড়ে সরিষা ফুল। আর অল্প কয়েকদিনের মধ্যেই কৃষকের ঘরে উঠবে সরিষা। একসময় চলনবিলের কৃষকরা শুধু ইরি-বোরো এক ফসলি আবাদ করে হাজার হাজার হেক্টর জমি পতিত রাখত। কালের বিবর্তনের সাথে সাথে এ অঞ্চলের কৃষকদেরও বুদ্ধির বিকাশ ঘটেছে এবং সরকারিভাবে সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি, কম খরচ ও পরিশ্রমে বেশি মুনাফা আসায় সরিষা চাষে ঝুঁকছেন কৃষকরা। তাই ইরি-বোরো, আমন, ভুট্টা, বিনাহালে রসুন চাষ ও তরমুজের পাশাপাশি সরিষা আবাদ বাড়ছে বলে জানালেন কৃষকরা। এ বছর চাটমোহর উপজেলায় ৫ হাজার ৬১০ হেক্টর জমিতে সরিষা আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে। তবে লক্ষ্য মাত্রার চেয়ে উপজেলায় ১১০ হেক্টর জমিতে সরিষা আবাদ কম হয়েছে। অতিবৃষ্টি ও বন্যার পানি দেরিতে নামার কারণে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে আবাদ কিছুটা কম হয়েছে এমনটাই দাবি উপজেলা কৃষি বিভাগের। এছাড়া চলনবিল অঞ্চলের বিভিন্ন উপজেলা মিলে প্রায় ৩০ থেকে ৩৫ হাজার হেক্টর জমিতে সরিষার আবাদ হয়েছে বলে জানা গেছে। উপজেলার নিমাইচড়া ইউনিয়নের চিনাভাতকুর গ্রামের মনিরুজ্জামান, ছাইকোলা ইউনিয়নের আক্কাস সরদার, ময়লাল মন্ডলসহ বেশ কয়েকজন কৃষক জানান, গত বছরের চেয়ে এ বছর সরিষা ক্ষেতের চেহারা ভাল। রঙিন প্রজাপতি আর মৌমাছির মধু আহরণে সরিষা ফুলের পরাগায়ন ঘটছে। কোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হলে এবার সরিষার বাম্পার ফলন হবে।  চাটমোহর উপজেলা কৃষি অফিসার হাসান রশিদ হোসাইনী জানান, এ বছর কৃষককে সরিষা চাষে ব্যাপক সচেতন করা হয়েছে। : সরিষা চাষের পদ্ধতি ও পোকার আক্রমণ হলে কি করণীয় সে বিষয়ে সচেতন করা হয়েছিল। অতিবর্ষণ ও বিল থেকে বন্যার পানি নামতে দেরি হওয়ায় সরিষার ফলন কম হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিলেও পরবর্তীতে আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় সরিষার বাম্পার ফলন হতে পারে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। : :





দেশের পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, দেশে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড হচ্ছে না। আপনি কি একমত?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
2015 জন