সোহরাওয়ার্দীতে ৫ জানুয়ারি বিএনপির সমাবেশের ঘোষণা
Published : Sunday, 31 December, 2017 at 12:00 AM
দিনকাল রিপোর্ট : ২০১৪ সালের ‘একদলীয়’ নির্বাচনের বর্ষপূর্তির দিবসে পালনে আগামী ৫ জানুয়ারি গণতন্ত্র হত্যা দিবসে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ করার অনুমতি চেয়ে পুলিশের কাছে চিঠি দিয়েছে বিএনপি। গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় এক আলোচনা সভা থেকে দলের এই সিদ্ধান্তের কথা জানান বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। বেইলি রোডে রোভার গালর্স গাইড হাউজ মিলনায়তনে বিএনপির অঙ্গসংগঠন জাতীয়তাবাদী সাংস্কৃতিক সংস্থা-জাসাসের ৩৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে এই আলোচনা সভা হয়। আলোচনা সভার পর মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশনা করে জাসাস শিল্পীরা। রিজভী বলেন, আগামী ৫ জানুয়ারি আমরা সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ করার কর্মসূচি নিয়েছি। : আমরা পুলিশ ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে চিঠিও দিয়েছি। ওইদিনে গণতন্ত্রকে হরণ করা হয়েছিলো। সেই দিবসটিতে সমাবেশ করে আমরা এর প্রতিবাদ জানাব। এই সমাবেশ সফল করার জন্য দলের নেতা-কর্মীসহ সকলকে উদ্যোগী হওয়ার আহবানও জানান রিজভী। : রুহুল কবির রিজভী ‘বিজয়ের চেতনায়’ উদ্বুুদ্ধ হয়ে স্বদেশী সংস্কৃতিকে এগিয়ে নেয়ার আন্দোলনে সকলকে কাজ করার আহবানও জানান। : জাসাসের ৩৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে জাসাসকে একটি সমৃদ্ধ ও ঐতিহ্যবাহী সংগঠন উল্লেখ করে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সফলতা কামনা করেন। তিনি বলেন, দুঃশাসন, নৈরাজ্যময় সাগরের মধ্যে আজ দেশের জনগণ পড়ে আছে। এর ফলে সমাজে অপসংস্কৃতি ঢুকছে। দেশে আজ সংঘাতের রাজত্ব চলছে। গণতন্ত্রের মূর্ত প্রতীক সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে দুর্নীতির কালিমা দেয়া হচ্ছে। সরকার পক্ষ থেকে দিনের পর দিন তার নামে মিথ্যাচার করা হচ্ছে। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি ভোটারবিহীন, প্রার্থীবিহীন নির্বাচনের পর মানুষের বাক স্বাধীনতা, নিরাপত্তা, মানবাধিকার হরণ করা হয়েছে। নদীর স্রোত না থাকলে যেমন বদ্ধ থাকে, তেমনি এ সরকার ভোটারবিহীন নির্বাচন করতে করতে গণতন্ত্রকে বদ্ধ করেছে। নদীর বদ্ধ অবস্থা কাটলে যেমন প্রবল স্রোত আসে, ঠিক তেমনি গণত›েত্রর এ বদ্ধ অবস্থা কেটে মানুষের ভোটাধিকার, মানবাধিকার, নিরাপত্তা, দেশের টেকশই উন্নয়নের স্রোত আনতে হবে- আর এ কাজ করবে জাতীয়তাবাদী শক্তি। : তিনি বলেন, শহীদ জিয়াউর রহমান ১৯৭১ সালে মহান স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়ে নিজে যুদ্ধ করে আমাদের যেমন বিজয় এনে দিয়েছেন-তা অমøান রাখতে হবে এবং বর্তমান নৈরাজ্যময়, দুঃশাসন, গণতন্ত্রহীন পরিবেশ থেকে দেশের জনগণকে মুক্ত করতে আর একটি বিজয় অনতে হবে জাতীয়তাবাদী শক্তিকে। তিনি গতকাল বিকালে বেইলী রোডস্থ গাইড হাউস মিলনায়তনে জাতীয়তাবাদী সামাজিক সাংস্কৃতিক সংস্থা-জাসাসের ৩৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে প্রধান অতিথি হিসেবে উপরোক্ত বক্তব্য রাখেন। উক্ত আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জাসাসের সভাপতি ড. মামুন আহমেদ এবং সঞ্চালনা করেন জাসাসের সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন রোকন। : জাসাসের সভাপতি অধ্যাপক মামুন আহমেদের সভাপতিত্বে আরো বক্তব্য রাখেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ও বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব গাজী মাজহারুল আনোয়ার, কবি আব্দুল হাই শিকদার, বিএনপির সাবেক তথ্য ও গবেষণা বিষযক সম্পাদক এবং জাসাসের সাবেক সভাপতি রেজাবুদৌল্লা চৌধুরী, জাসাসের সাধারণ সম্পাদক চিত্রনায়ক হেলাল খান, সিনিয়র সহ-সভাপতি অভিনেতা বাবুল আহমেদ, সহ-সভাপতি গীতিকার-সুরকার ইথুন বাবু, সালাউদ্দিন মোল্লা, জাহাঙ্গীর আলম রিপন, ওবায়দুর রহমান চন্দন, রফিকুল ইসলাম, আহসান উল্লাহ চৌধুরী, সহ-সভাপতি ও জাসাস-ঢাকা মহানগরের আহবায়ক মীর সানাউল হক, সহ-সভাপতি চিত্রনায়িকা শাহরিয়া ইসলাম শায়লা, কণ্ঠশিল্পী হাসান চৌধুরী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হান্নান মাসুম, মাকসুদুর রহমান টিপু, রফিকুল ইসলাম স্বপন, দ্বীন মোঃ মন্টু, সাংগঠনিক সম্পাদক অভিনেতা চৌধুরী মাজহার আলী শিবা শানু, জাসাস-ঢাকা জেলার সভাপতি ওলিউর রহমান মোল্লা, গাজীপুর জেলা জাসাসের সভাপতি সৈয়দ হাসান সোহেল, হবিগঞ্জ জেলা জাসাসের সভাপতি মিজানুর রহমান, জাসাস ঢাকা মহানগরের  যুগ্ম আহবায়ক নাহিদ উল্লাহ চৌধুরী, আব্দুল মালেক মুন্সী, মশিউর রহমান, আব্দুল আলীম খোকন, আশরাফুল ইসলাম দিপু, শফিকুল হাসান রতন, আহসান হাবীবসহ জাসাস-ঢাকা মহানগরের সকল থানা ও ওয়ার্ডের নেতৃবৃন্দ। আলোচনা সভা শেষে এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়। : :





প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

সুজন সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার বলেছেন, আবারও বিতর্কিত নির্বাচন হলে দেশ বিপর্যয়ে পড়বে। আপনিও কি তাই মনে করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
7254 জন