গুরুতর আহত কেন্দ্রীয় নেতাকে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে ঢাকায় আনা হয়েছে
পাবনায় ছাত্রদলের র‌্যালিতে পুলিশের হামলা : গুলিবিদ্ধসহ আহত ২০
Published : Tuesday, 2 January, 2018 at 12:00 AM, Update: 01.01.2018 11:05:45 PM
পাবনায় ছাত্রদলের র‌্যালিতে পুলিশের হামলা : গুলিবিদ্ধসহ আহত ২০পাবনা প্রতিনিধি, দিনকাল : ছাত্রদলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর র‌্যালি করতে বাধা দেয়ার জেরে পাবনায় পুলিশের সাথে বিএনপি-ছাত্রদলের পাল্টাপাল্টি ধাওয়া ও সংঘর্ষ হয়েছে। এ সময় পুলিশ নেতাকর্মীদের ওপর লাঠিচার্জ ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। এতে বিএনপি ও ছাত্রদলের ২০ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় ৪২ নেতাকর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। : আহত নেতাকর্মীরা জানান, ছাত্রদলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে গতকাল সোমবার দুপুর ১টায় জেলা বিএনপি কার্যালয় থেকে একটি র‌্যালি বের করে বিএনপি ও ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা। এ সময় দলীয় কার্যালয়ের সামনেই পুলিশ তাদের র‌্যালি করতে বাধা দেয়। পরে ক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা পুলিশের বাধা উপেক্ষা করে র‌্যালি করতে গেলে পাল্টাপাল্টি ধাওয়া ও পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়। : এক পর্যায়ে পুলিশ তাদের ওপর লাঠিচার্জ, শর্টগানের গুলি, টিয়ারশেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে। আধাঘন্টা ধরে চলা সংঘর্ষে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান তোতা, কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য কৃষিবিদ হাসান জাফির তুহিন, বিএনপি নেতা ও পাবনা পৌরসভার সাবেক কমিশনার আবুল কাশেম, জেলা ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও জেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক ছিদ্দিকুর রহমান ছিদ্দিক, টেক্সটাইল কলেজের ছাত্রদল নেতা মাসুম, বেড়া পৌর ছাত্রদলের নেতা মামুনসহ অন্তত ১৫ নেতাকর্মী গুরুতর আহত হন। আহতদের মধ্যে পায়ে গুলিবিদ্ধ ও মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত বিএনপি নেতা কৃষিবিদ হাসান জাফির তুহিনকে বিকেলের দিকে হেলিকপ্টারে করে ঢাকার স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে, জেলা বিএনপি নেতা ও পৌরসভার সাবেক কমিশনার আবুল কাশেমকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক খন্দকার হাবিবুর রহমান তোতাকে ভর্তি করা হয়েছে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ও বিএনপি নেতা ছিদ্দিক স্থানীয় একটি ক্লিনিকে চিকিৎসা নেন। জেলা বিএনপি কার্যালয় থেকে ছাত্রদলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ঘিরে মূল র‌্যালি বের হওয়ার আগে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সংসদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও জেলা ছাত্রদলের সভাপতি ইলিয়াছ আহমেদ হিমেল রানার নেতৃত্বে শহরে বের হওয়া র‌্যালিটি ছিল স্মরণাতীতকালের বৃহত্তম র‌্যালি। সদর থানার ওসি আব্দুর রাজ্জাক জানান, পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল ও ককটেল নিক্ষেপ করলে পুলিশ তাদের ওপর লাঠিচার্জ ও বুলেট নিক্ষেপ করে। তিনি জানান, ৪১ রাউন্ড শর্টগানের গুলি ও ৭ রাউন্ড টিয়ারশেল নিক্ষেপ করা হয়েছে। এ সময় পুলিশ অভিযান চালিয়ে এডওয়ার্ড কলেজ শাখা ছাত্রদলের সভাপতি আমিনুল ইসলাম, জেলা ছাত্রদলের সহ-দফতর সম্পাদক সংগ্রাম তালুকদারসহ ছাত্রদলের ৪২ নেতাকর্মীকে আটক করে। ওসি দাবি করেন, সংঘর্ষের ঘটনায় নেতাকর্মীদের ছোঁড়া ইট-পাটকেলে ৯ পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। : জেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক ও এডওয়ার্ড কলেজের সাবেক ভিপি নূর মোহাম্মদ মাসুম বগা বলেন, ছাত্রদলের শান্তিপূর্ণ র‌্যালি বের করতে বাধা দেয় পুলিশ। কোনো কারণ ছাড়াই জেলা বিএনপি বা অঙ্গসংগঠন মিছিল-র‌্যালি বের করতে চাইলে পুলিশ বারবার বাধা দেয়। নেতাকর্মীরা র‌্যালি করার চেষ্টা করলে পুলিশের আমাদের ওপর হামলা চালানো ন্যক্কারজনক ঘটনা। অনেক নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। আমরা এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। সেই সাথে আটক নেতাকর্মীদের মুক্তির দাবি জানান তিনি। : সংঘর্ষের পর থেকে পাবনা শহরে উত্তেজনা বিরাজ করছে। বিভিন্নস্থানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন ও টহল জোরদার করা হয়েছে। : এদিকে গুরুতর আহত বিএনপি নির্বাহী কমিটির সদস্য হাসান জাফির তুহিনকে হাসপাতালে দেখতে যান বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এ সময় দলের ভাইস চেয়ারম্যান ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন ও বিএনপির প্রেস উইং সদস্য শায়রুল কবির খান উপস্থিত ছিলেন। : :





প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

বিশিষ্টজনেরা বলেছেন, ৫ জানুয়ারির মতো বিতর্কিত নির্বাচন হলে দেশে বিপর্যয় নেমে আসবে। আপনিও কি একমত?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
34683 জন