ফুটপাতে শীতের কাপড় বিক্রি
Published : Thursday, 4 January, 2018 at 12:00 AM
সেলিম চৌধুরী, পটিয়া (চট্টগ্রাম) থেকে : শীতের আগমনে বদলে যাচ্ছে প্রকৃতির রূপ বৈচিত্র্য। পটিয়া পৌর সদরে পৌষ মাসে প্রচণ্ড শীতে কাঁপছে গ্রামাঞ্চলের মানুষ। তবে সন্ধ্যা ও রাতে পটিয়ার জনজীবনেও শীতানুভূতির আনছে। আর এ কারণেই পটিয়ায় পৌর সদরে ফুটপাত ও দোকানে শীতের কাপড় কিনতে ভিড় করছেন ক্রেতারা। গ্রামাঞ্চলের তুলনায় চট্টগ্রাম শহরে শীতের প্রকোপ কম হলেও শীতের পোশাক কেনায় পটিয়ার লোকেরাই বেশি আগ্রহী। তাই পটিয়াবাসীর শীতের পোশাকের যোগান দিতে নানারকম গরম কাপড়ের পসরা সাজিয়েছে পটিয়া পৌর সদরের মার্কেটগুলো ও বিভিন্ন পয়েটে এবং ফুটপাতে। এতে মিলছে জ্যাকেট, সোয়েটার, হুডি, শাল, ব্লেজার, চাদর, কাশ্মীরী শাল, হরেকরকম গেঞ্জিসহ বাহারি ডিজাইনের শীতের কাপড় পাওয়া যাচ্ছে বলে ক্রেতা তরুণী ফাতেমা বেগম জানান। মার্কেট ও ফুটপাতে ঘুরে দেখা যায়, শীতের তীব্রতা বাড়ায়, ক্রেতারা কেনাকাটা সেরে নিচ্ছেন। ক্রেতারা মনে করছেন শীত আরো বেশি পড়লে কাপড়ের দাম বেড়ে যাবে। বিভিন্ন বয়সী ক্রেতারা ফুল হাতা গেঞ্জি, টুপি, পাতলা সোয়েটার, ট্রাউজারসহ হালকা শীতের কাপড় কিনতে পটিয়ার শপিং মলগুলো ফুটপাতের দোকানে ভিড় করছেন। পটিয়া পৌর সদরের ছবুর রোড, স্টেশন রোড, আদালত রোড, ডাকবাংলো রোড, বাস স্টেশন শপিং মলগুলোতে বৈচিত্র্যময় শীতের পোশাক পাওয়া যাচ্ছে। এখানে ৫০ টাকা থেকে শুরু করে ১০০/২০০ এমনকি ২০০০ টাকা পর্যন্ত দামে সোয়াটার বিক্রি হচ্ছে। দেশি ব্লেজার ৬০০ থেকে ১৪০০ টাকা, চাইনিজ ব্লেজার ১৬০০ টাকা থেকে ৫০০০ টাকা পর্যন্ত। লেদারের জ্যাকেট ১৫০০ থেকে ৪ হাজার টাকা। শাল ২০০ টাকা থেকে ২ হাজার টাকা পর্যন্ত দরে পাওয়া যাচ্ছে। কাশ্মীরী শাল ১২০০ থেকে ৫০০০ টাকা ফুলহাতা গেঞ্জি ২০০ টাকা থেকে ৫শ’ টাকার ভিতরে। রূপা-নিপা ফ্যাশনের মালিক মো: দিদারুল আলম ও পলাশ গার্মেন্ট এর মালিক এবং মো: জাফরুল আলম জানান, মার্কেট ও ফুটপাতে বাচ্চাদের জন্যও রয়েছে বাহারি রং ও ডিজাউনের শীতের কাপড় এবং টুপি। : :





দেশের পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

আইনজীবী এ কে মোহাম্মদ আলী বলেছেন, খালেদা জিয়াকে সাজা দিতে জাল ডকুমেন্ট তৈরি করেছেন তদন্ত কর্মকর্তা। আপনিও কি তাই মনে করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
5895 জন