মন্ত্রিসভায় রদবদলের চমক
Published : Thursday, 4 January, 2018 at 12:00 AM, Update: 03.01.2018 10:51:02 PM
মন্ত্রিসভায় রদবদলের চমকদিনকাল রিপোর্ট : মন্ত্রিসভায় ব্যাপক রদবদল করা হয়েছে। নতুন শপথ নেয়াদের দায়িত্ব দেয়ার পাশাপাশি বেশ কয়েকটি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে রদবদল করা হয়েছে। মন্ত্রিসভার বৈঠকের পর গতকাল বুধবার দুপুরে এক ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি জানান, আট মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রীর দফতর পুনর্বণ্টন করা হয়েছে। পুনর্বণ্টনকৃত এই রদবলে রাশেদ খান মেননকে বেসামরিক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রী থেকে সমাজকল্যাণ মন্ত্রী, এ কে এম শাহজাহান কামালকে বেসামরিক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রী, আনোয়ার হোসেন মঞ্জুকে পানিসম্পদ মন্ত্রী, আনিসুল ইসলাম মাহমুদকে বন ও পরিবেশ মন্ত্রী, নারায়ণ চন্দ্র চন্দকে মৎস্য ও প্রাণীসম্পদ মন্ত্রী, মন্ত্রী মোস্তফা জব্বারকে ডাক টেলি যোগাযোগ ও আইসিটি মন্ত্রী, নুরুজ্জামান আহমদকে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত মন্ত্রী থেকে প্রতিমন্ত্রী, তারানা হালিমকে তথ্য প্রতিমন্ত্রী এবং কাজী কেরামত আলীকে কারিগরি ও মাদ্রাসা শিা বিভাগের প্রতিমন্ত্রী করা হয়েছে। বছরের শুরুতেই আরো চার জন মন্ত্রিসভায় জায়গা পান, তারমধ্যে মৎস্য ও প্রাণি সম্পদমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ গতকাল বুধবার মন্ত্রিসভায় যোগ দেন। মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ছায়েদুল হকের মৃত্যুতে পদটি শূন্য হয়, সেই পদেই বহাল হন তিনি। তবে এর আগেও প্রতিমন্ত্রী হিসেবেও নারায়ণ চন্দ্র বিভিন্ন সময়ে মন্ত্রিসভার বৈঠকে অংশ নেন। : এদিকে দফতর পরিবর্তন করায় অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন ও জাতীয় পার্টির (জেপি) চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মঞ্জু । গতাকল বুধবার মন্ত্রিপরিষদে রদবদলের পর এই দুই রাজনীতিক গণমাধ্যমে দেয়া প্রতিক্রিয়ায় এ অসন্তোষ প্রকাশ পায়। : বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয়ে মন্ত্রীর দায়িত্বে ছিলেন আনোয়ার হোসেন মঞ্জু। মন্ত্রণালয় পরিবর্তন করে তাকে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী করা হয়েছে। দফতর পরিবর্তনের পর গণমাধ্যমে দেয়া এক প্রতিক্রিয়ায় আনোয়ার হোসেন মঞ্জু বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলতে পারবেন কেন, কিসের জন্য তিনি পরিবর্তন করেছেন। এ বিষয়ে আমার কোনও ক্রিয়া বা প্রতিক্রিয়া নেই। আমি কুম্ভ রাশির জাতক, কাজের লোক। বদলের কারণ আমি বলতে পারব না। উনি (প্রধানমন্ত্রী) হর্তা কর্তা বিধাতা, উনি সব নির্ধারণ করেন।’ : এদিকে বেসরকারি বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় থেকে রাশেদ খান মেননকে দেয়া হয়েছে সমাজকল্যাণমন্ত্রীর দায়িত্ব। দফতর পরিবর্তনের পর মেননও প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন। : তিনি বলেন, ‘আকাশ থেকে তিনি মাটিতে নামলেন।’ গতকাল বুধবার দুপুরে রদবদলের ঘোষণা আসার পর বিকালে সচিবালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এই প্রতিক্রিয়া জানান। : মেনন একটু হেসে বলেন, “আমার জন্য সুখকর এই কারণে বলতে পারেন- আমি আকাশ থেকে একটু মাটিতে নামলাম। সামাজিক নিরাপত্তার প্রশ্নে বলেন, সামাজিক কল্যাণের প্রশ্নে বলেন একেবারে সাধারণ মানুষের কাছে।” : দফতর পরিবর্তন হওয়ার পর প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন তারানা হালিম। ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব থেকে সরিয়ে গতকাল তারানা হালিমকে তথ্য প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। তথ্য প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব দেয়ার পর তারানা হালিম বলেন “বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের কাজ শেষ করে এনেছি। স্যাটেলাইট বিষয়ে মানুষের কোনও ধারণা ছিল না, ‘আমাকে সরিয়ে দেয়াটা মানুষ হিসেবে একটু লাগে। আমি তো ফেরেশতা নই, অন্য কিছুও নই; মানুষ। রক্তে-মাংসে গড়া।” : তিনি আরো বলেন ‘বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটসহ আমার হাতে সম্পন্ন করা জিনিসগুলো যখন প্রধানমন্ত্রী ব্যতীত অন্য কেউ উদ্বোধন করবেন, সেটি যখন আমি দেখব, আমার লাগাটা কি স্বাভাবিক নয়?’ : মঙ্গলবার যারা শপথ নিয়েছেন : মৎস্য ও প্রাণি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ পদন্নোতি পেয়ে মন্ত্রী হন, রাজবাড়ীর সংসদ সদস্য  কাজী কেরামত আলী প্রতিমন্ত্রী হিসেবে, লক্ষ্মীপুরের সংসদ সদস্য একেএম শাহজাহান কামাল এবং তথ্য প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ মোস্তফা জব্বার। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় এ চার জনকে শপথবাক্য পাঠ করান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। শপথগ্রহণ অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম। এর আগে সোমবার দুপুরে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম তাদের ফোন করে শপথ নিতে বঙ্গভবনে যাওয়ার আহ্বান জানান। মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী মো. ছায়েদুল হকের মৃত্যুতে এ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীর পদটি শূন্য রয়েছে। আগামী ১২ জানুয়ারি সরকারের চলতি মেয়াদের চার বছর পূর্ণ হবে। ২০১৪ সালে শপথ নেয়া সরকারের বর্তমান মন্ত্রিসভায় মোট ৪৯ জন সদস্য রয়েছে। ৫ম বছরে পা দেয়ার আগেই নির্বাচনি বছরে বাড়ানো হলো মন্ত্রিসভার আয়তন। বর্তমানে মৎস্য ও প্রাণি সম্পদ প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করা নারায়ণ চন্দ্র চন্দ পূর্ণ মন্ত্রী হন। এর আগে সবশেষ ২০১৫ সালের ১৫ জুলাই একদফা মন্ত্রিসভায় রদবদল করা হয়। এরপর দুই-একজন মন্ত্রীর দফতর পরিবর্তন করা হয়। : : : :





প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

আইনজীবী এ কে মোহাম্মদ আলী বলেছেন, খালেদা জিয়াকে সাজা দিতে জাল ডকুমেন্ট তৈরি করেছেন তদন্ত কর্মকর্তা। আপনিও কি তাই মনে করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
5896 জন