ফুলবাড়ী সরকারি কলেজের অধ্যক্ষের অপসারণের দাবিতে মানববন্ধন
Published : Friday, 5 January, 2018 at 12:00 AM
স্টাফ রিপোর্টার, দিনাজপুর : দিনাজপুরের ফুলবাড়ী সরকারি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগে শিক্ষক পরিষদ ও সকল বিভাগের ছাত্র-ছাত্রীরা ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের অপসারণের দাবিতে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করেন। গত বুধবার সকাল ১১টায় কলেজ ক্যাম্পাসে বিক্ষুব্ধ ছাত্র-ছাত্রীরা ব্যানার, ফেস্টুন নিয়ে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ রফিকুল ইসলামের অনিয়ম-দুর্নীতির প্রতিবাদে তার অপসারণের দাবিতে ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধন করেন। এতে শিক্ষক পরিষদের প্রতিনিধিরা শিক্ষার্থীদের সাথে একাত্মতা প্রকাশ করে বিক্ষোভ মিছিলে অংশগ্রহণ করেন। মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন ছাত্রলীগের কলেজ শাখার সভাতি তৌহিদুজ্জামান রাসেল, সাধরাণ সম্পাদক রাজিউল ইসলাম রাজু, সহ-সভাপতি এএসএম নাসিম মাহমুদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কোরবান আলী, হল শাখার সভাপতি আব্দুল মতিন, পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি মুশফিকুর রহমান রিয়াদ প্রমুখ।মানববন্ধনে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা বলেন,ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ রফিকুল ইসলাম দায়িত্ব নেয়ার পর থেকে বিভিন্ন অজুহাতে শিক্ষার্থীদের সাথে দূরব্যবহার,ভর্তির সময় অতিরিক্ত ফি আদায়, পরিচয়পত্র প্রদানে গড়িমশি, বার বার তাগিদ দিয়েও মহিলা হোস্টেল ব্যবস্থা না রাখা, ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ কর্তৃক কলেজের শিক্ষার্থীদের জন্য বরাদ্দকৃত হলরুম নিজেই ৬টি রুম দখল করে বসবাস করছে, সে কারণে দূর থেকে আসা শিক্ষার্থীদের থাকার জায়গা সংকট হয়ে পড়েছে। শিক্ষার্থীদের সুবিধার বিষয়ে তার কোন প্রকার তদারকি নেই, কলেজে ক্লাস নিয়মিত হয় না। সে কারণে আমরা কলেজের সকল ছাত্র-ছাত্রীরা এই অযোগ্য অধ্যক্ষের অপসারণ চাই। মানববন্ধন শেষে  কলেজ শিক্ষক পরিষদের শিক্ষকসহ এক বিক্ষোভ বের করা হয়। বিক্ষোভ মিছিল শেষে শিক্ষক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক আহসান হাবিব ও সহ-সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান বলেন, এই ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ দায়িত্ব নেয়ার পর থেকে কলেজের তৃতীয় শ্রেণীর কর্মচারীদের পাশাপাশি শিক্ষকদের সাথে অশালীন আচরণ ও কথায় কথায় শিক্ষকদের শোকজ এবং বেতন কর্তনের হুমকি দিয়ে আসছে। এ পর্যন্ত অন্যায়ভাবে ৪ জন শিক্ষককে শোকজ করা হয়েছে। শিক্ষকের সাথে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের মনোমালিন্যের কারণে শিক্ষার্থীদের পাঠদান ব্যাহত হওয়ায় এবার এইচএসসি পরীক্ষায় ফুলবাড়ী সরকারি কলেজ থেকে একজনও জিপিএ-৫ পায়নি। কলেজের জায়গা বেদখল, বিভিন্ন প্রশাসনিক কার্যক্রম সঠিকভাবে পরিচালনার অভাবে এই ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আজ হুমকির মুখে। অনতিবিলম্বে এই অযোগ্য ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষকে অপসারণ করে যোগ্য অধ্যক্ষ দিয়ে প্রতিষ্ঠানের পূর্বের অবস্থান ফিরিয়ে আনার জন্য স্থানীয় এমপি, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রীর হস্থক্ষেপ কামনা করেছেন। এ ব্যাপারে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ রফিকুল ইসলাম-এর সাথে কথা বলতে গেলে তিনি, ‘নো কমেন্টস’ বলে চুপ থাকেন। : :





দেশের পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, সভা-সমাবেশের অনুমতি নিয়ে সরকার দ্বৈত নীতি গ্রহণ করেছে। আপনিও কি তাই মনে করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
257 জন