জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের নামে টাকা পাঠিয়েছিলেন কুয়েতের আমির
Published : Friday, 5 January, 2018 at 12:00 AM, Update: 04.01.2018 10:47:57 PM
জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের নামে টাকা পাঠিয়েছিলেন কুয়েতের আমিরদিনকাল রিপোর্ট : কুয়েতের আমির জানিয়েছেন, এই অর্থ জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টে পাঠানো হয়েছে। এটি একটি প্রাইভেট ট্রাস্ট। তবে এটা পাবলিক ট্রাস্ট না। শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের স্মৃতি রার্থে এ টাকা পাঠানো হয়েছে। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় অর্থ পাঠানোর ব্যাপারে কুয়েতের আমিরের বক্তব্য আদালতকে অবহিত করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার আইনজীবী। একই সঙ্গে বিচারিক আদালতে কুয়েতের আমিরের পাঠানো বক্তব্যের ডকুমেন্ট হিসেবে অ্যাম্বেসি থেকে পাঠানো চিঠির কপি উপস্থাপন করেন বেগম খালেদা জিয়ার আইনজীবী । : গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর বকশীবাজারে ঢাকা আলীয়া মাদরাসা মাঠে স্থাপিত ঢাকার বিশেষ জজ ড. আখতারুজ্জামান খানের আদালতে গতকাল বেলা ১১টা ৩৫ মিনিটে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া পৌঁছেন। এরপরই আদালতের বিচারিক কার্যক্রম শুরু হয়ে বিকেল সাড়ে তিনটা পর্যন্তচলে। এরপর আদালতের কার্যক্রম মূলতবি ঘোষণা করা হয়। : গতকাল এ জে  মোহাম্মদ আলী আদালতকে বলেন, এই তহবিল পাবলিক তহবিল কি না, সেটা আগে নির্ণয় করতে হবে। এই টাকার উৎস নির্ণয় করা জরুরি। এর আগে তিনি সাবেক রাষ্ট্রদূত আবদুস সাত্তারের জবানবন্দি ও জেরার অংশ পড়ে শোনান। : তিনি আদালতকে আরো বলেন, বাংলাদেশে কুয়েত দূতাবাস থেকে যে পত্র  দেয়া হয়েছিল,  সেখানে বলা আছে, কুয়েতের আমির জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টকেই টাকা দেন। এরপরই আদালত তার কাছে কত টাকা জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টে দেয়া হয়েছিল তা জানতে চান। জবাবে এ জে মোহাম্মদ আলী বলেন, এই পত্রে টাকার পরিমাণ উল্লেখ করা হয়নি। তখন আদালত তা কাছে আবার প্রশ্ন করেন, টাকার অঙ্ক যেহেতু উল্লেখ নেই, তাহলে আপনারা কী জানতে চেয়েছিলেন। ওই পত্র কার স্বারিত, এটাও আদালত তার কাছে জানতে চান। তবে এই বিষয়ে আগামী ১০ ও ১১ জানুয়ারি পর্যন্ত শুনানি মুলতবি রেখেছেন আদালত। : গতকাল সপ্তম দিনের মতো খালেদা জিয়ার পে সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল এ জে মোহাম্মদ আলী যুক্তিতর্ক প্রদর্শনকালে এই তথ্য উপস্থাপন করেন। এ জে মোহাম্মদ আলী আদালতকে বলেন, এর আগে এই আদালত (বিচারক) ঢাকায় অবস্থিত কুয়েত অ্যাম্বেসির মাধ্যমে এ ট্রাস্টে পাঠানো টাকার ব্যাপারে কুয়েতের আমিরের বক্তব্য জানতে চেয়েছিলেন। ফলে আদালতের ওই প্রশ্নের জবাব দিয়েচ্ছেন আজ (গতকাল) বৃহস্পতিবার। কুয়েতের আমির পরিষ্কারভাবে জানিয়েছেন, এই অর্থ জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টে পাঠানো হয়েছে শহীদ প্রেডেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের ষ্কৃতি রার্থে। : বেগম খালেদা জিয়ার আইনজীবী এ জে মোহাম্মদ আলী আদালতকে বলেন, ৭ জন সাী ও তদন্ত কর্মকর্তা মিলে পরিকল্পিতভাবে জাল নথি তৈরি করে বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে এ মিথ্যা মামলা করেছেন। এসব ভুয়া কাগজপত্র ও জাল নথিতে কারো সই-স্বার নেই। এসব নথিতে ওভাররাইটিং ও ঘষামাজা করা আছে। এ ছাড়া ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খোলার সময় করা ডকুমেন্টে বেগম খালেদা জিয়ার কোনো স্বার বা অনুমোদন নেই। এর আগে বেগম খালেদা জিয়ার পে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেছেন সিনিয়র আইনজীবী  রেজাক খান ও খন্দকার মাহবুব হোসেন। : :





প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, সভা-সমাবেশের অনুমতি নিয়ে সরকার দ্বৈত নীতি গ্রহণ করেছে। আপনিও কি তাই মনে করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
293 জন