তীব্র শৈত্যপ্রবাহে জনজীবন স্থবির
Published : Saturday, 6 January, 2018 at 12:00 AM
দিনকাল রিপোর্ট : সারাদেশে বিশেষ করে উত্তরাঞ্চলে গত কয়েকদিনের শৈত্যপ্রবাহে নওগাঁ জেলা সদরসহ অন্য উপজেলাগুলোতে জনজীবন একেবারে স্থবির হয়ে পড়েছে। সারাদিন ঘন কুয়াশার সাথে তীব্র শৈত্যপ্রবাহের কারণে সূর্যের মুখ যেমন দেখা পাওয়া ভার তেমনি বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে শিশু বৃদ্ধসহ হতদরিদ্র মানুষ। বৃহস্পতিবার জেলার পতœীতলা উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম ঘুরে দেখা গেছে, রিকশা-ভ্যানচালকসহ দিনমজুর, হতদরিদ্র ও ছিন্নমূল মানুষ তীব্র শীত ও শৈত্যপ্রবাহ থেকে একটু পরিত্রাণ পাওয়ার জন্য সকাল-সন্ধ্যায় বাড়িসহ বিভিন্ন রাস্তার মোড়ে খরকুটা দিয়ে আগুন জ্বালিয়ে একটু উত্তাপ পাওয়ার চেষ্টা করছেন। এদিকে হাট-বাজারসহ উপজেলার বিভিন্ন মোড়ে তীব্র শৈত্যপ্রবাহের কারণে সন্ধ্যার পর মানুষের উপস্থিতি একেবারেই কমে গেছে। এলাকার কয়েকজনের সাথে কথা বলে জানা যায়, বছরের অন্যান্য সময়ের তুলনায় শীতের এই সময়টায় তাদের খুব কষ্ট হয়। তীব্র শীতের কারণে অনেকে সকালে কাজে যেতে পারে না। এবারে হঠাৎ করেই শৈত্যপ্রবাহের কারণে দিনমজুরসহ হতদরিদ্র ও প্রান্তিক মানুষ বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে। আকস্মিক এই শৈত্যপ্রবাহে একটু উষ্ণতার খোঁজে উপজেলাবাসী তাই ছুটছে গরম কাপড়গুলোর দোকানে। অভিজাত বিপণিবিতানগুলোতে বিত্তবানরা ও মধ্যবিত্তরা ভিড় করলেও দিনমজুরসহ হতদরিদ্র ও প্রান্তিক মানুষ ভিড় জমিয়েছেন ফুটপাতের দোকানগুলোতে। এদিকে হঠাৎ করে তীব্র শীত ও শৈত্যপ্রবাহ জেঁকে বসায় এলাকায় ডায়রিয়া, নিউমোনিয়াসহ অন্যান্য রোগের প্রাদুর্ভাব বেড়েছে। তীব্র এই শীতের হাত থেকে রক্ষা পাবার জন্য উপজেলার দিনমজুরসহ হতদরিদ্র ও প্রান্তিক মানুষা প্রশাসনসহ সমাজের বিত্তবান মানুষের কাছে সাহায্যের আবেদন জানিয়েছেন। : এ ব্যাপারে পতœীতলা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃপঃ কর্মকর্তা ডা. রঞ্জন চৌধুরী জানান, হঠাৎ শীতের প্রকোপ বাড়লেও ডায়রিয়া, নিউমোনিয়াসহ অন্যান্য রোগে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা এখনো হাসপাতালে তেমন বাড়েনি। মহাদেবপুর উপজেলায় হঠাৎই গত মঙ্গলবার রাত থেকে উত্তরের হীমেল হাওয়ার গতি বাড়তে থাকে সেই সঙ্গে বাড়তে থাকে শীতের তীব্রতা। চলতি মৌসুমে উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে বুধবার সকাল থেকে হঠাৎই শীতের তীব্রতা বৃদ্ধি পাওয়ায় দরিদ্র প্রবীণ নারী-পুরুষ ও শিশুরা বেকায়দায়। আর হঠাৎ শীতের তীব্রতার কারণে অধিক ভোগান্তির শিকার হয়েছে অতি দরিদ্র ও প্রান্তিক পরিবারের মানুষ বিশেষ করে প্রবীণ নারী-পুরুষ ও শিশুরা। : সরেজমিনে বুধবার মহাদেবপুর উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, রাস্তাঘাটে মানুষের উপস্থিতি স্বাভাবিকের চেয়ে অনেক কম। হঠাৎ শীতের তীব্রতার কারণে বাজারের অর্ধেক দোকানপাট বন্ধ। নিতান্তই প্রয়োজনে যারা বের হয়েছেন তাদের শীতে জড়োসড়ো হয়ে থাকতে দেখা গেছে। মহাদেবপুর সদরের চায়ের দোকানদার ফারুক হোসেন ও মাসুদ রানা জানান, নিতান্তই পেটের দায়ে তীব্র এই শীতের মধ্যে চায়ের দোকান খোলা। চায়ের দোকানে কথা হয় ষাটোর্ধ্ব গোলাম রসুল বাবু ও আবদুুল জব্বারের সঙ্গে। তারা জানান, শীত যত বেশিই হোক না কেন আমাদের মতো দরিদ্র পরিবারের প্রবীণদের ভাগ্যে জোটে পরিবারের অন্য সদস্যদের বাতিল করে দেয়া পুরনো শীতবস্ত্র। সরকারিভাবে বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করা হলেও প্রবীণদের জন্য শীতবস্ত্র বরাদ্দের বিষয়টি কেউ ভেবে দেখে না। : জানা গেছে, ২০১১ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী নওগাঁ জেলায় ২৬ লাখ মানুষের বাস। সে হিসাবে জেলায় ২ লাখেরও বেশি প্রবীণ মানুষের বাস। এসকল প্রবীণ পরিবার ও সমাজে নানা বঞ্চনার শিকার। প্রতি বছর শীত মৌসুমে সরকারি ও বেসরকারিভাবে কিছু শীতবস্ত্র বিতরণ করা হলেও প্রবীণদের ভাগ্যে তা কমই জোটে। এ বিষয়েও হেল্পএইজ ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের প্রজেক্ট অফিসার আউটরীচ এভ্যাম্পেইন বেলায়েত হোসেন জানান, বাংলাদেশে প্রায় ১ কোটি ৩০ লাখ মানুষকে প্রবীণ হিসেবে সরকার ঘোষণা করেছেন। এদের মধ্যে বেশিরভাগ মানুষই দারিদ্র্যসীমার নিচে বসবাস করছে। :





প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতিতে অনশন স্থগিত করলেন নন-এমপিওভুক্ত শিক্ষকরা। শিক্ষকদের দাবি পূরণ হবে বলে মনে করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
2109 জন