এমপিদের সম্পদের হিসাব জনগণ জানতে চায় : দুদক চেয়ারম্যান
Published : Tuesday, 9 January, 2018 at 12:00 AM
দিনকাল রিপোর্ট : দেশের বড় বড় প্রজেক্টে ভয়াবহ দুর্নীতি বন্ধে সরকারের সহযোগিতা চেয়েও পাওয়া যায়নি বলে অভিযোগ করেছেন দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ। বড় প্রজেক্টগুলোর দুর্নীতি বন্ধে বারবার সরকারের সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে কিন্তু সরকার কোনো ধরনের সহযোগিতা করছে না। বড় বড় প্রজেক্টের দুর্নীতি ও লুটপাটের বিষয় নিয়ে কেবিনেটেও (মন্ত্রিসভা) আলোচনা হয়েছিল। কিন্তু দুদককে সহযোগিতা দেয়া হচ্ছে না। তবে দুদক চেয়ারম্যান হিসেবে তিনি আশাহত নন বলে মন্তব্য করেন। যে কোনোভাবেই হোক সরকারের সহযোগিতা আদায় করা হবে। গতকাল সোমবার দুপুরে দুদক কার্যালয়ের সামনে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘দুদকের গৃহিত ৫ বছরের পরিকল্পনার দ্বিতীয় বছর চলছে। ওই পরিকল্পনা অনুযায়ী দুদক কাজ করছে। ২০৩০ সালের মধ্যে জাপান, চীনসহ বিভিন্ন দেশে প্রায় ২৭ কোটি মানুষের জন্য শ্রমবাজার সৃষ্টি হবে। যার ১৮ শতাংশ শ্রমিক থাকবে বাংলাদেশে। সেই শ্রমিক দক্ষ হবে না, শিক্ষিত হবে তা বিবেচনা করে আমরা শিক্ষা খাতের অনিয়ম দুর্নীতি বন্ধে কাজ করব। এছাড়া  দেশের ২৫টি সরকারি প্রতিষ্ঠানের দুর্নীতি বন্ধে দৃশ্যমান কিছু কাজ করব।’ : দুদক চেয়ারম্যান বলেন, ‘বাংলাদেশের সিংহভাগ অর্থ ব্যয় হয় প্রকৌশল খাত হয়ে। এই খাতের টেন্ডার, ক্রয়-বিক্রি যাতে না হয়, সরকারি অর্থের অপচয় যেন না হয় সে বিষয় নিয়ে আমরা তাদের সঙ্গে সভা করব।’ : বেসিক ব্যাংকের মামলা তদন্তের অগ্রগতির বিষয়ে দুদক চেয়ারম্যান বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংক ও অর্থ মন্ত্রণালয়ের রিপোর্টের ওপর ভিত্তি করেই বেসিক ব্যাংকের বিষয়ে মামলা হয়েছে। তবে চার্জশিট দেয়ার ক্ষেত্রে এই রিপোর্টটি যথেষ্ট নয়। তবে এই রিপোর্টটি দুদকের বর্তমান টিম আমলে নিয়েছে। চার্জশিট কবে, কখন হবে তা তদন্ত কর্মকর্তারা বলতে পারবেন। : সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ বলেন, শুধু বিরোধী দল নয়, সরকারি দলের সংসদ সদস্যদের সম্পত্তির হিসাব নিয়েও কাজ করছে। যারা সরকারি দলের সংসদ সদস্য, তাদের সম্পত্তির হিসাব নিয়েও দুদক কাজ করছে। : তিনি বলেন, ‘দুদকের ভূমিকা একটাই, স্পষ্ট করে বলতে চাই। যারা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে চায়, তাদের সম্পত্তির সঠিক হিসাব দিতে হবে। অনেক সংসদ সদস্যের সম্পত্তির সঠিক হিসাব পাইনি। যারা জনগণের প্রতিনিধি হবেন, তারা সঠিকভাবে নির্বাচন কমিশনে সম্পত্তির হিসাব দেবেন।’ : স্বপ্রণোদিত হয়ে দুদক কোনো ব্যবস্থা নেবে কি না জানতে চাইলে দুদক চেয়ারম্যান বলেন, এমন কোনো ব্যবস্থা নেয়া হবে না। চোখের সামনে কোনো অনিয়ম ধরা পড়লে তখন তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। : তিনি বলেন, দুদক থেকে নির্বাচন কমিশনে কয়েকজন সংসদ সদস্যের বিষয়ে চিঠি দেয়া হয়েছে। কিন্তু নির্বাচন কমিশন দৃশ্যমান কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। ওই বিষয়টি নিয়ে দুদকের কিছু করার নেই। : অবৈধ সম্পদ অর্জনের মামলায় দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের স্ত্রীরাও আসামি হয়ে যাচ্ছে উল্লেখ করে ইকবাল মাহমুদ বলেন, এমন প্রায় ১০টি মামলা আছে। যেখানে দুর্নীতিবাজদের পাশাপাশি তাদের স্ত্রীরাও আসামি। তবে স্ত্রীদের জিজ্ঞাসাবাদের সময় তারা দাবি করেন, তারা কিছুই জানেন না। এটি আসলে একটি সামাজিক ব্যাধি। এর প্রতিরোধে ক্যাম্পেইন করা হবে, যেন স্ত্রীদের নামে কোনো অবৈধ সম্পত্তি রাখা না যায়। : :





প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

সাবেক আইজিপি নূরুল হুদা বলেছেন, রাজনৈতিক ব্যবহারের কারণে পুলিশের প্রতি জনগণের আস্থা কমছে। আপনি কি একমত?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
14355 জন