আশ্রয় শিবিরে রোহিঙ্গার ছুরিতে রোহিঙ্গা নিহত
Published : Sunday, 14 January, 2018 at 12:00 AM
দিনকাল রিপোর্ট : কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালং ক্যাম্পে পূর্ব-বিরোধের জেরে এক রোহিঙ্গার ছুরিকাঘাতে আরেক রোহিঙ্গা নিহত হয়েছেন। গতকাল শনিবার বেলা আড়াইটার দিকে কুতুপালংয়ের মধুরছড়ার বিডি-১১ ব্লকে এ ঘটনা ঘটে বলে উখিয়া থানার ওসি মো. আবুল খায়ের জানান। : নিহত মমতাজ উল্লাহ (৪৫) কুতুপালং অনিবন্ধিত রোহিঙ্গা ক্যাম্পের মধুরছড়ার বিডি-১১ ব্লকের বাসিন্দা। তার বাড়ি মিয়ানমারের আকিয়াব জেলার রাচিডং থানার ধোনঞ্চে এলাকায়। এ ঘটনায় আরেক রোহিঙ্গা আরিফ উল্লাহকে আটক করা হয়েছে। ওসি খায়ের বলেন, মিয়ানমারে সংঘটিত পূর্ব-বিরোধের জেরে দুপুরে ক্যাম্পে দুই রোহিঙ্গার মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় প্রতিপক্ষের ছুরিকাঘাতে মমতাজ উল্লাহ আহত হন। তাকে উদ্ধার করে আইওএম হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তার শরীরের কয়েকটি স্থানে ছুরিকাঘাতের চিহ্ন রয়েছে বলে জানান ওসি। তিনি আরও বলেন, নিহতের স্বজনরা জানিয়েছেন যে বিডি-১১ ব্লকের বাসিন্দা আরিফ উল্লাহর ছুরিকাঘাতে মমতাজের মৃত্যু হয়েছে। তারা মিয়ানমারের একই এলাকার বাসিন্দা। মিয়ানমারে অবস্থানকালীন আরিফ উল্লাহর এক ভাইকে হত্যায় মমতাজ উল্লাহ জড়িত ছিলেন। সেখান থেকে পালিয়ে এসে তারা কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আশ্রয় নেন। এই পূর্ব-বিরোধের জেরে তাদের মধ্যে সংঘর্ষের এ ঘটনা ঘটেছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে বলে জানান ওসি। : এদিকে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আগুনে পুড়ে একই পরিবারের চারজনের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরো তিনজন। বৃহস্পতিবার রাতে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুমে রোহিঙ্গা ঝুপড়িতে আগুন লাগলে এ হতাহতের ঘটনা ঘটে। চিকিৎসাধীন অবস্থায় শুক্রবার তাদের মৃত্যু হয়। নিহতরা হলেনÑ আব্দুল রহিমের স্ত্রী নুরহাবা বেগম (২৫), মেয়ে দিলসাদ বিবি (৫), ছেলে আমিন শরীফ (৩) ও দেড় বছর বয়সী আঞ্জুমান। উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নিকারুজ্জামান জানান, বৃহস্পতিবার রাতে উখিয়ার টিভি রিলে কেন্দ্রের পূর্ব পাশে ট্রানজিট ক্যাম্পে অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। মোমবাতি থেকে আগুনের সূত্রপাত ঘটে। এরপর আগুন ক্যাম্পে ছড়িয়ে পড়ে। এতে মা ও সন্তানসহ ৪ জনের মৃত্যু হয়। কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আফরুজুল হক টুটুল জানান, মোমবাতি থেকে আগুন লেগে যায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে। আগুনে পুরো ঝুপড়িটি পুড়ে যায়। এ সময় পরিবারের সদস্যরা অগ্নিদগ্ধ হয়। পাশের রেডক্রিসেন্ট ফিল্ড হাসপাতালে তাদের নিয়ে যাওয়া হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় শুক্রবার বিকালে আব্দুল রহিমের স্ত্রী নুরহাবা বেগম, মেয়ে দিলসাদ বিবি, ছেলে আমিন শরীফ ও দেড় বছর বয়সী আঞ্জুমান মারা যায়। আব্দুল রহিম ও দুই সন্তান চিকিৎসাধীন রয়েছেন। : :





প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

সিপিডির ফেলো ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য বলেছেন, বর্তমানে গরিবরা আরও গরিব হয়েছে। আয় কমেছে ৬০ ভাগ মানুষের। সুশাসনের অভাবে এমন হচ্ছে বলে মনে করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
33865 জন