ব্যর্থ প্রধানমন্ত্রীর ভাষণে হতাশার আর্তনাদ : দুদু
Published : Sunday, 14 January, 2018 at 12:00 AM
দিনকাল রিপোর্ট : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভাষণকে ব্যর্থ, হতাশ ও প্রধানমন্ত্রীর ব্যর্থতার আর্তনাদ বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের মধ্য দিয়ে আমরা বুঝতে পেরেছি তিনি আর বেশিদিন ক্ষমতায় নেই। তার বক্তব্য স্পষ্ট করেছে তার অধীনে দেশে কোনো ভাল নির্বাচন হওয়ার সম্ভাবনা নেই। এই বক্তব্যের মধ্য দিয়ে আমরা জানতে পেরেছি বর্তমান প্রধানমন্ত্রীকে পদত্যাগ করানো ছাড়া বাংলাদেশে সুষ্ঠু, স্বাভাবিক গ্রহণযোগ্য নির্বাচন হওয়ার পথ নেই। : গতকাল শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ‘দেশ বাঁচাও মানুষ বাঁচাও আন্দোলন’ আয়োজিত বিএনপির ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সহ-সভাপতি ইউনুস মৃধাসহ সকল রাজবন্দির নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে এক মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেন। এতে সভাপতিত্ব করেন আয়োজক সংগঠনের সভাপতি কে এম রকিবুল ইসলাম রিপন। : শামসুজ্জামান দুদু বলেন, গত শুক্রবার প্রধানমন্ত্রী বক্তব্য দিয়েছেন, আমার কাছে মনে হয়েছে ব্যর্থ, হতাশ প্রধানমন্ত্রীর ব্যর্থতার আর্তনাদ। কি সাফল্য? অসংখ্য মানুষকে গুম করছেন, অপহরণ করছেন, যাদের আমরা খুঁজে পাচ্ছি না। প্রায় আটশত জনকে আমরা খুঁজে পাচ্ছি না। আপনি বলছেন সরকারকে ফ্যাসাদে ফেলার জন্য নাকি তারা নিজেরাই নিখোঁজ হয়েছেন। বিশ্বের অন্য কোনো দেশে নয় একমাত্র এই দেশে আমরা দেখতে পেলাম সরকার দায়িত্ব নিতে চাচ্ছে না। : বিএনপির এই নেতা বলেন, হাজার হাজার কোটি না, চার লাখ হাজার কোটি টাকার উপরে শেয়ার মার্কেট, ব্যাংকসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে লুট করা হলো সেই টাকার কোনো খোঁজ নেই। সেগুলো কি দেশে আছে নাকি বিদেশে আছে আমরা জানি না। এগুলোর ব্যাপারে তিনি (প্রধানমন্ত্রী) কোনো কথা বলেননি। প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে সাবেক এই সংসদ সদস্য বলেন, আপনি বাদে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি নির্বাচন দেশ-বিদেশের কেউ সমর্থন করেনি। সেই নির্বাচন থেকে আপনি বেরিয়ে আসবেন কি না, ভাল কোনো নির্বাচন দেবেন কি না, বিরোধী দলের সাথে আলোচনা করবেন কি না সে ব্যাপারে আপনি কিছু বললেন না। আপনি অহংকার করেছেন, জেদ দেখিয়েছেন, আপনি আপনার একেবারে ভুয়া সাফল্যের কথা গত শুক্রবার ব্যক্ত করেছেন। : এ সময় প্রধানমন্ত্রীকে হুঁশিয়ারি দিয়ে বিএনপির এই শীর্ষ নেতা বলেন, রাস্তার আন্দোলন না আপনি ধারণাও করতে পারবেন না। সামনের দিনগুলোতে আপনাকে অপসারণ করার জন্য, পদত্যাগে বাধ্য করার জন্য কি আন্দোলন সামনে আসছে। এটা আপনি ধারণাও করতে পারছেন না। কারণ এটা বাংলাদেশ, শেখ মুজিবকে আটকিয়ে রেখে পাকিস্তানিরা গণতন্ত্রকে আটকিয়ে রাখতে পারেনি। বেগম খালেদা জিয়াকে জেলখানায় ভরে রেখে যদি মনে করেন বাংলাদেশের গণতন্ত্রকে আটকিয়ে রাখবেন এটা অসম্ভব ব্যাপার। : শামসুজ্জামান দুদু অভিযোগ করে বলেন, বেগম খালেদা জিয়া তিনবারের প্রধানমন্ত্রী। তাঁর বিরুদ্ধে অসংখ্য মামলা দেয়া হয়েছে, সপ্তাহে তিন-চারদিন তাকে আদালতে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। এবং এই আদালতের কারণে বাংলাদেশ মনে হচ্ছে একটা আদালত হয়ে গেছে। বিরোধী দলের রাজনীতি আদালতের রাজনীতিতে সীমাবদ্ধ করা হয়েছে। বাংলাদেশের সব থেকে সম্ভাবনাময় রাজনীতিবিদ তারেক রহমানকে দেশে আসতে দেয়া হচ্ছে না। : ইউনুস মৃধাসহ সকল গ্রেফতারকৃত নেতার মুক্তির দাবি জানিয়ে তিনি আরও বলেন, আমরা পরিষ্কার করে বলছি যাদের গ্রেফতার করা হয়েছে তাদের মুক্তি দিন, আমরা জেল ভেঙে মুক্তি করে আনার কথা বলি না, কিন্তু এমন পরিস্থিতি সৃষ্টি করবেন না, যাতে জেল ভেঙে আনার প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়। : বক্তব্যের শেষে ছাত্রদলের সাবেক এই সভাপতি নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়ে আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, আগামীর দিন বিএনপির দিন, গণতন্ত্রকামীদের দিন, ফ্যাসিবাদীদের পতনের দিন। :





প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

সিপিডির ফেলো ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য বলেছেন, বর্তমানে গরিবরা আরও গরিব হয়েছে। আয় কমেছে ৬০ ভাগ মানুষের। সুশাসনের অভাবে এমন হচ্ছে বলে মনে করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
33867 জন