চরম বিপর্যয়ের দিকে দেশ
Published : Sunday, 14 January, 2018 at 12:00 AM, Update: 13.01.2018 11:49:18 PM
চরম বিপর্যয়ের দিকে দেশআলী মামুদ, দিনকাল : বর্তমানে প্রচলিত ও সংশোধিত সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচনকালীন সরকার গঠন এবং একটি সংসদ বহাল রেখে আরেকটি সংসদ নির্বাচন করা হলে চরম বিপর্যয় ঘটতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন দেশের বিশিষ্ট নাগরিকরা। মহাজোট সরকারের চার বছর পূর্তি উপলক্ষে গত শুক্রবার রাতে জাতির উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া ভাষণের প্রতিক্রিয়ায় তারা এই অভিমত ব্যক্ত করেছেন। দেশের বিশিষ্টজনরা বলেছেন, বর্তমান সংবিধান অনুসারে নির্বাচন হলে তা বিতর্কিত হতে পারে। সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে সংলাপের মাধ্যমে সমঝোতা হওয়া জরুরি। কারণ একাদশ সংসদ নির্বাচন নিয়ে সমস্যা ঘনীভূত হচ্ছে। : প্রধানমন্ত্রীর ভাষণের প্রতিক্রিয়ায় সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র আইনজীবী ড. শাহদীন মালিক মিডিয়ায় বলেন, আমাদের মতো উন্নয়নশীল দেশে ক্ষমতাসীন সরকার সবসময় বলে নির্বাচন সংবিধান অনুযায়ী হবে। সংবিধান ভঙ্গ করে নির্বাচনের কথা কেউ বলে না। কিন্তু ভিন্ন রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে সংলাপ, আলাপ-আলোচনা ও সমঝোতা ছাড়া সুষ্ঠু নির্বাচন কোথাও সম্ভব হয়নি। শুধু জাতীয় নির্বাচন নয় যেকোনো সংকটকালে সরকারের পক্ষ থেকেই সকল রাজনৈতিক দলের সঙ্গে আলোচনা এবং পরামর্শ করা যেতে পারে। তবে বাংলাদেশের চলমান রাজনৈতিক সংকট নিরসনের জন্য রাজনৈতিক সংলাপের কোনো বিকল্প নেই। আর এই সংলাপের উদ্যোগ সরকারের পক্ষ থেকেই নেয়া প্রয়োজন। : সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার মিডিয়ায় বলেন, সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন হবে এবং সেই নির্বাচনের ফলাফল কী রকম হবে সেটা সবাই জানে। আবারও যদি ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির মতো সেই বিতর্কিত নির্বাচন হয়। সেই নির্বাচনে জনগণের সম্মতির শাসন প্রতিষ্ঠিত হবে না। আমরা চরম বিপর্যয়ের দিকে বলে আশঙ্কা করছি। তিনি বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে যেসব জঙ্গিবাদের : উত্থান এটার বড় কারণ হলো অনেক শিক্ষিত, মধ্যবিত্ত ও : উচ্চবিত্ত পরিবারের সন্তানরা বর্তমান সুশাসনের অভাব, : দুর্নীতি, দুর্বৃত্তায়ন, লুটপাট, সাধারণ মানুষের বঞ্চনা, অধিকারহীনতা- এগুলোর ব্যাপারে হাল ছেড়ে দিয়ে তারা : এখন বিকল্পের দিকে যাচ্ছে। : ড. বদিউল আলম মজুমদার বলেন,  প্রধানমন্ত্রী গত শুক্রবার দিবাগত রাতে সরকারের চার বছর উপলক্ষে জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিয়েছেন। তার এই ভাষণে রাজনৈতিক সংকট নিরসন এবং আগামী জাতীয় নির্বাচন প্রসঙ্গে উসকানিমূলক কথা প্রকাশ পেয়েছে। তার ভাষণে সব রাজনৈতিকদলের মধ্যে সমঝোতা, রাজনৈতিক সংকট নিরসনের জন্য সংলাপের আহবান নেই। এটা জাতির প্রত্যাশা ছিল না। : ড. বদিউল আলম মজুমদার বলেন, বর্তমান দেশের রাজনৈতিক সংকট ক্রমেই আরো ঘনীভূত হচ্ছে। দেশের এই পরিস্থিতির ভয়াবহতায় আমরা অনেক শঙ্কিত। আমরা আশা করি আমাদের রাজনীতিবিদরা আমাদের ষোল-সতের কোটি জনগণের এবং তাদের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করবেন। তারা আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে একটা রাজনৈতিক সমঝোতায় পৌঁছবেন যাতে আমরা সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে আমাদের গণতান্ত্রিক ব্যবস্থাটাকে সঠিক পথে পরিচালিত করতে পারি। তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রীর কথামতো সংবিধান অনুযায়ী আগামী নির্বাচন হলে, দেশের পরিস্থিতি আরো ভয়াবহ অবনতির দিকে যাবে। : জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সরকার ও রাজনীতি বিষয়ক বিভাগের প্রফেসর ড. আবদুল লতিফ মাসুম গতকাল শনিবার দৈনিক দিনকালকে বলেন, বর্তমান সরকার তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা সংবিধান থেকে বাদ দিয়ে সংকটের সৃষ্টি করেছে। এছাড়া একটি সংসদ বহাল রেখে আরেকটি সংসদ নির্বাচনের ব্যবস্থা রেখেছে এতেও সংকট বেড়েছে। এসব বিষয়ে সংশোধনী আনা এখন জরুরি। : নির্বাচন কমিশনের সাবেক নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার (অব.) সাখাওয়াত হোসেন গতকাল বলে, একটি সংসদ বহাল রেখে আরেকটি সংসদ নির্বাচন সুষ্ঠু-নিরপেক্ষ হবে বলে আশা করা যায় না। মিডিয়ায় তিনি বলেন, যারা নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন তাদের সঙ্গে আলোচনা করা দরকার। নির্বাচন কমিশন তো ইতিমধ্যেই এ প্রক্রিয়া শুরু করেছেন। এই ধারা বজায় রাখা দরকার। : :





প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

সিপিডির ফেলো ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য বলেছেন, বর্তমানে গরিবরা আরও গরিব হয়েছে। আয় কমেছে ৬০ ভাগ মানুষের। সুশাসনের অভাবে এমন হচ্ছে বলে মনে করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
33798 জন