কালীগঞ্জে মহিলা শ্রমিকরা ন্যায্য মজুরি থেকে বঞ্চিত
Published : Friday, 26 January, 2018 at 12:00 AM
কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি : কালীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন পেশায় নিয়োজিত মহিলা শ্রমিকরা ন্যায্য মজুরি পাচ্ছেন না। হতদরিদ্র মহিলারা বেঁচে থাকার তাগিদে শ্রম বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করছেন। কর্মক্ষেত্রে তারা সমান ক্ষমতা দেখালেও পুরুষ শ্রমিকের চেয়ে অর্ধেকের কম মজুরিও পাচ্ছেন না। সংসারের অভাব-অনটন দূর করতে গ্রামের শ্রমজীবী মহিলারা ক্ষেত-খামার, রাস্তায় মাটি কাটা, ইট ভাঙা, পুকুর খনন, ধানের চাতাল, রাইস মিল, ধান রোপণ, হোটেল-রেস্তোরাঁ, রাজমিস্ত্রির জোগালসহ বিভিন্ন ধরনের শ্রম বিক্রি করে থাকেন।  এসব মহিলার অধিকাংশই স্বামী পরিত্যক্তা, বিধবা, নির্যাতিতা অসহায় ও ভূমিহীন। এসব ভাগ্য বিড়ম্বিত মহিলা শ্রমিকের মধ্যে কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, শুধুমাত্র পরিবারের সুখ-স্বাচ্ছন্দ্যের জন্য শ্রমিকের খাতায় নাম লিখিয়েছেন। একজন মহিলা পুরুষের অর্ধেক মজুরিও পান না। কর্মক্ষেত্রে মহিলারা সমান দক্ষতা দেখালেও এবং কাজকর্মে ফাঁকি না দিলেও সঠিকভাবে তারা মজুরি পাচ্ছেন না। এক পরিসংখানে দেখা গেছে, কালীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় প্রায় ২ হাজার  মহিলা শ্রমিক বিভিন্ন কাজে নিয়োজিত রয়েছেন। তাদের মধ্যে কেউ কেউ ধনাঢ্য পরিবারের আসবাবপত্র গোছানো, ঘরবাড়ি ঝাড়– দেয়া, থালা-বাসন পরিষ্কার করা, বিভিন্ন বাসাবাড়িতে ঝিয়ের কাজসহ বিভিন্ন কাজ করছেন। কাজের বিনিময়ে অনেকে দুই বেলা ভাত পেট ভরে খেতে দিচ্ছেন। অথবা পুরুষ শ্রমিকের যে মজুরি দেয়া হয় তার অর্ধেকেরও কম মজুরি দেয়া হচ্ছে মহিলা শ্রমিকদের। অসহায় মহিলারা তাদের ভাগ্য ফেরানোর লক্ষ্যে দিনভর অক্লান্ত পরিশ্রম করেও তাদের ন্যায্য মজুরি পাচ্ছেন না। ফলে তাদের অপ্রাপ্ত বয়সের  সন্তানদের পাঠাতে হয় কর্মস্থলে। অভাবের কারণে তাদের হাতে বই-খাতা তুলে দেয়ার পরিবর্তে তুলে দিচ্ছে কাস্তে, নিড়ানি অথবা গার্মেন্টস্ ফ্যাক্টরিতে। এসব মহিলা শ্রম বিক্রি করে ন্যায্য মজুরি পেলে স্বাচ্ছন্দ্যে জীবনযাপন করতে পারতেন তাদের পরিবার-পরিজনদের নিয়ে। শ্রমজীবী মহিলারা তাদের কাজের ন্যায্য মজুরি পাওয়ার দাবি জানিয়েছেন।   : :





দেশের পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, শাসকগোষ্ঠী একদলীয় শাসন প্রতিষ্ঠা করতে বেপরোয়া হিংস্র আচরণ করছে। আপনিও কি তাই মনে করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
34344 জন