মান্দায় প্রধান শিক্ষিকার বিরুদ্ধে সরকারি অর্থ আত্মসাতে তদন্ত!
Published : Friday, 26 January, 2018 at 12:00 AM
মান্দা (নওগাঁ) সংবাদদাতা : নওগাঁ মান্দার ৫৬ নম্বর চককার্তিক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা ফরিদা ইয়াসমিনের বিরুদ্ধে দুর্নীতি ও সরকারি অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে। এ ব্যাপারে আদালত এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব বরাবর এবং সদয় অবগতি ও কার্যার্থের জন্য চেয়ারম্যান, দুর্নীতি দমন কমিশন, সেগুনবাগিচা, মহাপরিচালক, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর মিরপুর-২, জেলা প্রশাসক নওগাঁ, বিভাগীয় উপ-পরিচালক, প্রাথমিক শিক্ষা রাজশাহী বিভাগ রাজশাহী, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মান্দা, জেলা ও উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাসহ  বেশ কিছু দফতরে অভিযোগ করা হয়েছে। আদালত ও কর্তৃপক্ষের নির্দেশে এ অভিযোগের ভিত্তিতে গত ২৩ জানুয়ারি একটি তদন্ত করেছেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ও তার সঙ্গীরা। সরেজমিনে ওই প্রতিষ্ঠানে গিয়ে দেখা গেছে, স্কুল টাইম থেকেই ৩য়, ৪র্থ ও ৫ম শ্রেণীর কিছু কোমলমতি শিক্ষার্থী হাতে ছোট ছোট গাছের ডাল ও লাঠি নিয়ে মিছিল করেছে। তারা ওই বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক নাসরিন, হুমায়ন ও সুরভীর বিরুদ্ধে লাঠি মিছিল ও বিক্ষোভ করেছে। মাঠের বিভিন্ন অংশে কিছু অভিভাবককেও দেখা গেছে। তারা তাদের সন্তানদের বাধা-নিষেধ না করে উল্টো তারাও প্রতিবাদ করেছেন। আবার দফায় দফায় মাঠে বিভিন্ন সময় উপজেলার বিভিন্ন প্রান্তের ক্যাডাররাও এসে ভিড় জমিয়েছে। কোমলমতি শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকদের কাছ থেকে জানা গেছে, প্রধান শিক্ষিকার পক্ষ নিয়ে তারা বারংবার অভিযোগের আঙ্গুল তুলছেন ওই তিন শিক্ষকের বিরুদ্ধে। অন্য দুজন সহকারী শিক্ষকের একজন নাজমা খতুনও প্রধান শিক্ষকের আত্মার একজন। নাজমা খাতুনও প্রধান শিক্ষকের সাফাই গেয়ে তাকে বাঁচানোর জন্য অভিভাবক ও ছাত্রছাত্রীদের নানা কৌশলে কথাবার্তা বলার চেষ্টা করছেন। প্রতিবেশী শান্তি প্রিয় কিছু লোকজন প্রধান শিক্ষকের নানা অনিয়ম ও একগুঁয়েমির বিষয়ে অভিযোগের আঙ্গুল তুলে সাংবাদিকদের বলেন, প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের মাঝে দ্বন্দ্ব রয়েছে। প্রধান শিক্ষকের একগুঁয়েমির কারণে এ দ্বন্দ্ব চরম আকারে প্রকাশ পেয়েছে। তা ছাড়া প্রধান শিক্ষকের নিয়মবহির্ভূতভাবে প্রতিষ্ঠানের গাছ কর্তন ও নানা অনিয়মের লম্বা লাইনও রয়েছে বলে তারা সাংবাদিকদের জানান। প্রধান শিক্ষকের লেলিয়ে দেয়া ওই কোমলমতি শিক্ষীর্থীরা-অভিভাবকরা তদন্ত কাজে ব্যাঘাত ঘটানোর জন্য দফায় দফায় অফিস রুমের বাইরে হইহুল্লোড় ও বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পড়ে। মাঝেমধ্যেই উপজেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা রেজাউল করিম তাদের শান্ত করার চেষ্টা করেন। প্রতিষ্ঠানে দিনভর চরম উত্তেজনা বিরাজ করছিল। : :





দেশের পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, শাসকগোষ্ঠী একদলীয় শাসন প্রতিষ্ঠা করতে বেপরোয়া হিংস্র আচরণ করছে। আপনিও কি তাই মনে করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
34355 জন