ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে বাংলাদেশের শোচনীয় পরাজয়
Published : Sunday, 28 January, 2018 at 12:00 AM, Update: 27.01.2018 11:30:42 PM
ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে বাংলাদেশের শোচনীয় পরাজয়স্পোর্টস ডেস্ক, দিনকাল : আরও একবার স্বপ্নভঙ্গ হলো বাংলাদেশের। ফাইনাল জিততে না পারার আক্ষেপটা দূর হলো না টাইগারদের। মিরপুরে ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে চন্ডিকা হাথুরুসিংহের শ্রীলঙ্কার কাছে ৭৯ রানের শোচনীয় পরাজয় বরণ করেছে মাশরাফি বিন মর্তুজার দল। : লক্ষ্যটা ছিল ২২২ রানের। কিন্তু ধারেকাছেও যেতে পারল না বাংলাদেশ। গতকাল শনিবার মিরপুরের উইকেট অনুযায়ী কিছুটা কঠিন লক্ষ্য হলেও অসম্ভব নয় মোটেই। ৪১ ওভার ১ বলে ১৪২ রানে থেমেছে বাংলাদেশের ইনিংস। ফিল্ডিংয়ে চোট পাওয়ায় ব্যাটিংয়ে নামতে পারেননি সাকিব আল হাসান। শিরোপা জয়ের লক্ষ্য নিয়ে ব্যাটিংয়ে নেমে ইনিংসের পঞ্চম ওভারে দলীয় ১১ রানে দুশমান্থ চামিরার বলে আকিলা ধনঞ্জয়ার হাতে ক্যাচ হন তামিম ইকবাল। এরপর নবম ওভারে রান আউটের শিকার হন মোহাম্মদ মিঠুন। ২৭ বল খেলে ১০ রান করেছেন তিনি। এরপর দ্রুতই ইনিংসের দশম ওভারে দুশমান্থ চামারার বলে গুনারতেœর হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন সাব্বির রহমান। এটা ছিল চামারার দ্বিতীয় শিকার। দলীয় ২২ রানে তিন উইকেট হারানোর পর মুশফিকুর রহিম ও মাহমুদুল্লাহর ব্যাটে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছিল বাংলাদেশ। এই জুটিতে স্বপ্ন দেখছিল টাইগাররা। কিন্তু সেটি বেশিক্ষণ স্থায়ী হয়নি। দলীয় ৮০ রানে আকিলা ধনঞ্জয়ার বলে উপুল থারাঙ্গার হাতে ক্যাচ হয়েছেন মুশফিকুর রহিম। ৪০ বল খেলে তিনি করেছেন ২২ রান। এরপর দলীয় ৯০ রানে বোলার আকিলা ধনঞ্জয়ার হাতে ধরা পড়েন মেহেদী হাসান মিরাজ। এরপর দলীয় ১২৭ রানের মাথায় ষষ্ঠ উইকেট হিসেবে সাইফুদ্দিন রান আউটের শিকার হন। এবার মাশরাফির ঝড়ো ম্যাচ দেখার অপেক্ষায় ছিল বাংলাদেশ। কিন্তু কিছুদুর গিয়েই মাদুসাংকার বলে আউট হয়ে প্যাভেলিয়নে ফিরে যান ক্যাপ্টেন বাংলাদেশ। মাশরাফি বিন মর্তুজা এবং রুবেল ফেরেন ১৪১ রানে। এখান থেকে আর ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি বাংলাদেশ। শেষ পর্যন্ত ১৪২ রানে রান আউট হয়ে সাজ ঘরে ফেরেন আশার আলো জাগানো খেলোয়াড় মাহমুদুল্লা রিয়াদ। এখানেই থেমে যায় খেলা। বাংলাদেশ হেরে যায় ৭৯ রানে। এর আগে টসে হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে ইনিংসের তৃতীয় ওভারেই প্রথম উইকেট হারায় শ্রীলঙ্কা। মেহেদী হাসান মিরাজের বলে তামিম ইকবালের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন লঙ্কান ওপেনার দানুশকা গুনাথিলাকা। তিনি করেন ৬ রান। গুনাথিলাকা সাজঘরে ফেরার পর বিপজ্জনক হয়ে উঠছিলেন কুশল মেন্ডিস। কিন্তু তাকে বেশি দূর যেতে দেননি মাশরাফি বিন মুর্তজা। ইনিংসের ষষ্ঠ ওভারে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের হাতে ধরা পড়েন মেন্ডিস। ৯ বল খেলে দুই চার ও তিন ছক্কায় মেন্ডিস করেন ২৮ রান। দানুশকা গুনাথিলাকা ও কুশল মেন্ডিস আউট হওয়ার পর উপুল থারাঙ্গা ও নিরোশান ডিকওয়েলার ব্যাটে ঘুরে দাঁড়ায় শ্রীলঙ্কা। দুইজনে মিলে ৭১ রানের পার্টনারশিপ গড়েন। এই জুটি ভাঙেন মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। দলীয় ১১৩ রানে নিরোশান ডিকওয়েলাকে সাব্বির রহমানের হাতে ক্যাচ বানিয়ে ফিরিয়ে দেন তিনি। ডিকওয়েলা করেন ৪২ রান। ইনিংসের ৩৬তম ওভারে হাফ সেঞ্চুরি করা ব্যাটসম্যান উপুল থারাঙ্গাকে বোল্ড করে সাজঘরে ফেরান মোস্তাফিজুর রহমান। ৫৬ রান করে ফিরে যান থারাঙ্গা। ওয়ানডেতে থারাঙ্গার এটি ৩৭তম হাফ সেঞ্চুরি। ইনিংসের ৩৯তম ওভারে রুবেল হোসেনের বলে উইকেটরক্ষকের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন থিসারা পেরেরা। তিনি করেন ২ রান। ৪৫তম ওভারে আসেলা গুনারতেœকে এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে ফেলেন রুবেল হোসেন। ৪৮তম ওভারে দিনেশ চান্দিমালকে বোল্ড করেন রুবেল। শ্রীলঙ্কার পক্ষে সর্বোচ্চ ৫৬ রান করেন উপুল থারাঙ্গা। এছাড়া দিনেশ চান্দিমাল করেন ৪৫ রান। নিরোশান ডিকওয়েলা করেন ৪২ রান। বাংলাদেশের পক্ষে রুবেল হোসেন ১০ ওভার বল করে ৪৬ রান দিয়ে চারটি উইকেট নেন। ১০ ওভার বল করে ২৯ রান দিয়ে দুইটি উইকেট নেন মোস্তাফিজুর রহমান। এছাড়া মাশরাফি বিন মুর্তজা, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন ও মেহেদী হাসান মিরাজ ১টি করে উইকেট নেন। গতকাল শনিবারের একাদশে তিন পরিবর্তন নিয়ে মাঠে নামে বাংলাদেশ। ওপেনিংয়ে এনামুল হক বিজয়ের পরিবর্তে মোহাম্মদ মিঠুনকে রাখা হয়। আবুল হাসান রাজুর পরিবর্তে রাখা হয় পেস অলরাউন্ডার মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনকে। নাসির হোসেনের পরিবর্তে একাদশে রাখা হয় মেহেদী হাসান মিরাজকে। অন্যদিকে, শ্রীলঙ্কা একাদশে একটি পরিবর্তন আনা হয়। লক্ষণ সান্দাকানের জায়গায় একাদশে রাখা হয় শিহান মাদুশানকাকে। একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে গতকাল অভিষেক ম্যাচ খেলতে নামেন মাদুশানকা। ৪৯তম ওভারে মোহাম্মদ মিঠুনের হাতে ক্যাচ বানিয়ে আকিলা ধনঞ্জয়াকে ফেরান মোস্তাফিজুর রহমান। শেষ ওভারে শিহান মাদুশানকাকে বোল্ড করেন রুবেল হোসেন। ইনিংসের শেষ বলে রান আউট হন সুরঙ্গা লাকমল। : :





প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপি আদালতে হুমকি দিচ্ছে। আপনি কি একথা বিশ্বাস করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
36028 জন