চাটমোহরে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে শিক্ষার্থীদের পারাপার
Published : Tuesday, 30 January, 2018 at 12:00 AM
চাটমোহর (পাবনা) প্রতিনিধি : পাবনার চাটমোহর উপজেলার মধ্য দিয়ে প্রবাহিত গুমানী নদীতে মির্জাপুর এলাকায় কোনো ব্রিজ না থাকায় প্রতিদিন স্কুল-মাদ্রাসা-কলেজগামী শ’ শ’ শিক্ষার্থীকে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে খেয়া নৌকায় নদী পারাপার হতে হচ্ছে। বছরের পর বছর এ অবস্থা চলে এলেও নদীটিতে ব্রিজ নির্মাণের কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি। শুধু স্কুল-কলেজগামী ছাত্রছাত্রীই নয়, এলাকার হাজার হাজার মানুষকে বিভিন্ন প্রয়োজনে প্রতিদিন পার হতে হয় এ নদী দিয়ে। নদীর উত্তর পাড়ে মির্জাপুর ডিগ্রি কলেজ, মির্জাপুর দাখিল মাদ্রাসা, উচ্চ বিদ্যালয়, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মির্জাপুর হাট ও নিমাইচড়া ইউনিয়ন পরিষদ অবস্থিত। দক্ষিণ পাড়ে ভাঙ্গুড়া উপজেলার অষ্টমনিষা ইউনিয়ন পরিষদ, অষ্টমনিষা উচ্চ বিদ্যালয়, অষ্টমনিষা হাসিনা মোমিন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, অষ্টমনিষা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, অষ্টমনিষা বাজারসহ আরো কয়েকটি ব্যক্তি উদ্যোগে নির্মিত বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান অবস্থিত। নদীর দুই পাড়ে অন্তত ১৫টি সরকারি-বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ জনহিতকর কার্যালয় রয়েছে। এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ছুটির সময় প্রতি খেয়ায় অন্তত ৬০ থেকে ৬৫ জন শিক্ষার্থী নদী পাড় হতে হুড়োহুড়ি করে নৌকায় ওঠে। এ সময় নৌকা বোঝাই হয়ে যায়। ডুবে যাওয়ার ভয় থাকে। থাকে প্রাণহানির আশঙ্কাও। মির্জাপুর গ্রামের কলেজছাত্র জিল্লুর রহমান জানায়, ছোটবেলা থেকে আমরা মির্জাপুর নৌঘাটের এ অবস্থা দেখে আসছি। এখানে একটি ব্রিজের অভাবে নদীর দুই পাড়ের ১০-১৫টি প্রতিষ্ঠানসহ ২০ থেকে ২৫ গ্রামের হাজার হাজার মানুষকে ভোগান্তি পোহাতে হয়। বর্ষা মৌসুমে যখন নদী পানিতে ভরে যায়, নদীর জলভাগের আয়তন বেড়ে যায় তখন পারাপারের অপেক্ষায় অনেক সময় বসে থাকতে হয়। সন্তান সম্ভাবা মা-বোন অসুস্থ রোগী নিয়ে বিপাকে পড়তে হয় আমাদের। এখানে দ্রুত একটা ব্রিজ নির্মাণ প্রয়োজন। এলাকার ছাত্রছাত্রী, শিক্ষক-শিক্ষিকা, কৃষক, ব্যবসায়ীসহ সর্ব শ্রেণীর মানুষ গুমানী নদীর মির্জাপুর পয়েন্টে ব্রিজ নির্মাণের দাবি জানান। : :





দেশের পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

সুপ্রিম কোর্ট বারের সভাপতি অ্যাডভোকেট জয়নাল আবেদীন বলেছেন, রায় ঘোষণার আগে মন্ত্রীদের বক্তব্য রায়কে প্রভাবিত করবে। আপনিও কি তাই মনে করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
35617 জন