সংস্কারের অভাবে বেহাল জলঢাকার স্টেডিয়াম মাঠ!
Published : Thursday, 1 February, 2018 at 12:00 AM
জলঢাকা (নীলফামারী) প্রতিনিধি : প্রাচীর ব্যবস্থা ও মাঠ সংস্কারের অভাবে অযতœ আর অবহেলায় নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলার ঐতিহ্যবাহী স্টেডিয়াম মাঠটি বর্তমানে খেলাধুলার অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। প্রাচীরবিহীন এ মাঠটি গরু-ছাগলের আবাসভূমিতে পরিণত হয়েছে। বিগত দিনে উত্তরাঞ্চলের রংপুর, বগুড়া, ঠাকুরগাঁও ও লালমনিরহাটসহ বিভিন্ন জেলা থেকে ফুটবল ও ক্রিকেট দল এখানে আসত খেলার জন্য। কানায় কানায় পূর্ণ হতো দর্শকে, যা সুখ স্মৃতিতে মলিনের পথে আয়োজন আর পরিচর্যার অভাবে। শুধুমাত্র জাতীয় কর্মসূচি পালনের দিনে স্টেডিয়াম মাঠটি সাজগোজের শোভা পেলেও বাকি দিনগুলোতে কেউ থাকে না দেখভাল করার। আর এ কারণে খেলাধুলার অনুপযোগী হয়ে পড়েছে স্টেডিয়ামটি। পাশাপাশি প্রত্যন্ত এলাকায় লুকিয়ে থাকা মেধাবীরা সুযোগ পেয়ে দেশের ক্রীড়াঙ্গনকে সমৃদ্ধ করে সুনাম বয়ে আনত বলে ধারণা করছেন, স্থানীয় ক্রীড়াবিদরা। ৩ একর ৬৬ শতাংশ জমিতে প্রাচীর দিয়ে ঘিরে এ উপজেলাবাসীর খেলাধুলার জন্য স্টেডিয়ামটি নির্মাণ করে তৎকালীন সরকার। দেখার কেউ না থাকায়  দিন দিন দখল করে নিচ্ছেন স্টেডিয়ামের পার্শ্ববর্তী বসবাসকারীরা এমনকি প্রাচীরের ইটগুলো রেহাই পায়নি তাদের হাত থেকে। দীর্ঘদিন ধরে মাঠটি পরিচর্যা না করায় ভেঙে যাচ্ছে প্রাচীরগুলো। ফলে এখন কোনো ক্লাবই অনুশীলন করতে আসে না। এভাবে এ জনপদের ফুটবল ক্রিকেট খেলা ও খেলোয়াড় প্রায়ই হারিয়ে যেতে বসেছে। স্টেডিয়ামটিতে সন্ধ্যার পর পরেই চলে তরুণদের নেশার আড্ডা বলে জানা গেছে একাধিক সচেতন মানুষের কাছে। ইতিপূর্বে বেশ কয়েকটি পত্রিকায় প্রকাশ হলেও কোনো পদক্ষেপ নেয়নি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। জলঢাকা ক্রীড়া সংস্থার সম্পাদক শহীদ হোসেন রুবেল জানান, স্টেডিয়াম মাঠটির বেহাল দশা থাকায় আমরা ভালো পরিবেশের খেলাধুলার আয়োজন করতে পারছি না। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহ. রাশেদুল হক প্রধান বলেন, সরকারের পক্ষ থেকে এখানে একটি মিনি স্টেডিয়াম হচ্ছে, ভবিষ্যতে প্রাচীর নির্মাণের জন্য আমরা চেষ্টা করছি। : :





দেশের পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডারস বলেছে, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন স্বাধীন মত ও তথ্যপ্রকাশের ক্ষেত্রে বড় হুমকি। আপনিও কি তাই মনে করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
37401 জন