কপোতাক্ষের বাঁধের মাটি ইটভাটায়
বিস্তীর্ণ জমি জবরদখল
Published : Thursday, 1 February, 2018 at 12:00 AM
তালা (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি : সাতক্ষীরার তালায় কপোতাক্ষ নদের বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের পাশে থেকে অবাধে মাটি কেটে ইটভাটায় নেয়া হচ্ছে। এ জন্য বাঁধের পাশেই পুকুর কাটছেন ভাটা মালিকরা। ফলে বর্ষা মৌসুমে বেড়িবাঁধ ধসে বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কা করছেন এলাকাবাসী। অথচও ওই বাঁধের ওপর কোনো ধরনের কার্যক্রম করা যাবে না মর্মে হাইকোর্টের আদেশ থাকলেও বেড়িবাঁধের পাশে থেকে মাটি কাটা অব্যাহত রেখেছেন আরবিএস ইটভাটা মালিক। তালা উপজেলা সদর থেকে তিন কিলোমিটার পূর্ব দিকে গোনালী আরবিএস ইটভাটা। ভাটার সীমানা গোনালী খেয়াঘাট-সংলগ্ন কপোতাক্ষ নদের বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের পাশে থেকে এ মাটি কাটা হচ্ছে। মঙ্গলবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কপোতাক্ষ নদের সীমানা মধ্যে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের পাশে থেকে মাটি কাটা হচ্ছে। নদ ভরাট হয়ে জেগে ওঠা চরের জমি ভাটার লোকজন দখল করে রেখেছেন। বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের পাশে পুকুর খনন করে ভাটার জন্য মাটি তোলা হয়েছে। গোনালী গ্রামের কয়েকজন বাসিন্দা জানান, ২০১১ সালে এলাকায় বন্যা দেখা দেয়। প্রায় ছয়-সাত মাস কয়েক হাজার মানুষ গৃহহীন হয়ে বিভিন্ন এলাকায় মানবেতর জীবনযাপন করেন। চলতি বছর ওই এলাকার আরবিএস ইটভাটার জন্য বেড়িবাঁধের পাশে থেকে মাটি কাটছে। এ জন্য বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ হুমকির মুখে রয়েছে। মাটি কাটার কাজে নিয়োজিত শ্রমিকরা জানান, আরবিএস ইটভাটার ম্যানেজার সুদেল ইকবালের নেতৃত্বে শ্রমিক হিসেবে তারা মাটি কাটছেন। গত পাঁচ দিন ধরে তাদের এ মাটি কাটা চলছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন শ্রমিক জানান, যেভাবে মাটি কাটা হচ্ছে তা সামান্য বৃষ্টি হলেই বন্যা নিয়ন্ত্রণ বেড়িবাঁধ ধসে পড়বে। এতে কয়েকটি গ্রাম প্লাবিত হবে। দক্ষিণ নলতা  গ্রামের ময়েজ উদ্দীন ও তফেল উদ্দিন জানান, গোনালী এলাকায় কপোতাক্ষ নদের তীরের উত্তর পাশে সাতক্ষীরা শহরের চালতেতলা এলাকার আতিয়ার রহমান কয়েক বছর আগে ২৫ বিঘা জমি ইজারা নিয়ে আরবিএস ইটের ভাটা প্রতিষ্ঠা করেন। পরে কপোতাক্ষ নদের ভরাট হওয়া প্রায় ১০-১৫ বিঘা জমি দখল করে চালাচ্ছেন ভাটার কার্যক্রম। আরবিএস ভাটার ম্যানেজার সুদেল ইকবাল হোসেন জানান, মাটি কাটার কোনো অনুমোদন নেই। প্রতি বছর কাটি তাই এ বছরও কাটছি। কোনো অনুমোদন নেয়া নেই। তবে লিখে লাভ হবে না। সবার সঙ্গে কথা বলা আছে। তালা থানার অফিসার ইনচার্জ মো. হাসান হাফিজুর রহমান জানান, বিষয়টি আমার জানা নেই । তবে কেউ বাঁধের থেকে মাটি কাটলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। তালা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ফরিদ হোসেন বলেন, কপোতাক্ষ নদের বাঁধ থেকে মাটি কাটা অন্যায়। : :





দেশের পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডারস বলেছে, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন স্বাধীন মত ও তথ্যপ্রকাশের ক্ষেত্রে বড় হুমকি। আপনিও কি তাই মনে করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
37405 জন