বদরগঞ্জে সাব-রেজিস্ট্রারের পদশূন্য এক বছর ধরে
Published : Friday, 2 February, 2018 at 12:00 AM
বদরগঞ্জ (রংপুর) থেকে : রংপুরের বদরগঞ্জে এক বছর ধরে সাব-রেজিস্ট্রারের পদ শূন্য রয়েছে। খন্ডকালীন সাব-রেজিস্ট্রার দিয়ে চলছে অফিসের কার্যক্রম। একারণে জমি ক্রয়-বিক্রয়ে সাধারণ মানুষ চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। অন্যদিকে প্রতিদিন দলিল সম্পাদন না হওয়ায় অলস সময় পার করছেন দলিল লেখকরা। জানা গেছে, গত বছরের ৮ জানুয়ারি বদরগঞ্জ সাব-রেজিস্ট্রার মিজানুর রহমান বদলি সূত্রে রংপুর সদরের সাব-রেজিস্ট্রার কার্যালয়ে যোগদান করেন। তখন থেকে বদরগঞ্জে খন্ডকালীন সাব-রেজিস্ট্রারের দায়িত্ব পালন করেছেন মিঠাপুকুরের সাব-রেজিস্ট্রার বদিয়ার রহমান মন্ডল। কিন্তু তিনি ২৭ জুলাই রংপুরের মিঠাপুকুর থেকে পীরগাছা উপজেলায় বদলি হয়েছেন। এরপর ১ আগস্ট থেকে খন্ডকালীন সাব-রেজিস্ট্রারের দায়িত্ব পালন করেন দিনাজপুরের ফুলবাড়ীর সাব-রেজিস্ট্রার আব্দুর রশিদ মন্ডল। তিনি মাত্র ১৫ দিন দায়িত্ব পালন করার পর ১৬ আগস্ট আবারো খন্ডকালীন সাব-রেজিস্ট্রারের দায়িত্ব নেন পীরগাছার সাব-রেজিস্ট্রার বদিয়ার রহমান মন্ডল। তখন থেকে তিনি সপ্তাহে দুইদিন বুধ ও বৃহস্পতিবার বদরগঞ্জ সাব-রেজিস্ট্রার কার্যালয়ে বসছেন। সাব-রেজিস্ট্রার কার্যালয়ের মোহরার আব্দুর রহমান বলেন, ‘বদরগঞ্জে সপ্তাহে গড়ে দলিল সম্পাদন হত দুই শতাধিক। কিন্তু স্থায়ী সাব-রেজিস্ট্রার না থাকায় দুইদিনে মাত্র ৭০ থেকে ৮০টি দলিল সম্পাদন হচ্ছে।’ উপজেলার দামোদরপুর ইউনিয়নের আমরুলবাড়ী গ্রামের আব্দুল মালেক বলেন, ‘প্রয়োজনের তাগিদে নিজের জমি বিক্রি করব, কিন্তু সাব-রেজিস্ট্রার না থাকায় তা বিক্রি করতে পারছি না। একারণে জমির ক্রেতাও টাকা দিচ্ছে না।’ লোহানীপাড়া ইউনিয়নের লোহানীপাড়ার কৃষক ইদ্রিস আলী বলেন, ‘জমি হামার, বেচামো হামরায়। : :





দেশের পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

বাম মোর্চার নেতৃবৃন্দ বলেছেন, দমনমূলক শাসনের জন্যই ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন। আপনিও কি তাই মনে করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
12 জন