আগামী ৮ ফেব্রুয়ারির জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করুন : আলাল
Published : Saturday, 3 February, 2018 at 12:00 AM
আগামী ৮ ফেব্রুয়ারির জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করুন : আলালদিনকাল রিপোর্ট: : অসৎ উদ্দেশ্যে দায়ের করা জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় বিএনপির চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে রায়ের ধার্যকৃত দিন সকল প্রস্তুতি গ্রহণ করার জন্য নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল। তিনি বলেন, মানুষের অন্তরকে, বিবেককে, অনুভূতিকে কারাগারে পাঠানো যায় না। হাত পা চললে, মুখ চললে, সংকল্প চললে, সব কিছুর পিছনে থাকে অনুভূতি। এটাকে শৃঙ্খলিত করা যায় না। ৮ ফেব্রুয়ারিতে কোনো ধরনের রায় দিয়ে একতরফা নির্বাচনের পথকে প্রশস্ত এবং সুন্দর করার কোনো অপরিকল্পনা করা হয়,তাহলে সেটি মোকাবিলা করার জন্য ৮ ফেব্রুয়ারির সকল প্রস্তুতি আমাদের গ্রহণ করে রাখতে হবে, যদি রায়ের তারিখ পরিবর্তিত হয়, তাহলে পরের তারিখেও একই কর্মসূচি ঘোষণা করতে হবে এবং এর পর থেকে রাজপথে আমাদেরকে থাকতেই হবে। যতই গ্রেফতার করা হোক। : গতকাল শুক্রবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে স্বাধীনতা ফোরাম আয়োজিত বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে রাজনৈতিক প্রতিহিংসা এবং গণ-গ্রেফতার বন্ধের দাবিতে এক প্রতিবাদী যুব সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। : মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেন, ৮,৯, ১০ কিংবা ২৫, ২৬ তারিখ ব্যাপার না, ব্যাপারটা হচ্ছে কবে অসৎ উদ্দেশ্যে রায় ঘোষণা করে বেগম খালেদা জিয়াকে এই বড় কারাগার থেকে ছোট কারাগারে নেয়ার ব্যবস্থা করতে যে দিন করতে যাবে সেই দিনই যার যেখানে দায়িত্ব,  কেউ থাকুক বা না থাকুক তাকে সেই দায়িত্ব পালন করতে হবে। তিনি আরও বলেন, হিসেবটা অত্যন্ত স্পষ্ট, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির মত আরেকটি নির্বাচন করা, এই সরকারের পক্ষে সম্ভব নয়, এটা প্রমাণিত। দেশের মধ্যে বিক্ষুব্ধতা, দেশের বাইরে থেকেও অন্তর্জাতিক চাপ রয়েছে। তাই এই নির্বাচনটি করতে হলে, ১৪ সালের ৫ জানুয়ারির মতো ভোটারবিহীন নির্বাচন করা সম্ভব না, ক্ষমতায় আসাও সম্ভব নয়। এতো ভালো ভালো কাজ-কর্ম তারা (বর্তমান সরকার) করেছেন। আর এর পথে বাধা হচ্ছে বিএনপি, বেগম খালেদা জিয়া এবং আমাদের সাহসী নেতা-কর্মীরা। এদেরকে বড় কারাগার থেকে ছোট কারাগারে নিতে হবে। এটাই হচ্ছে মূল উদ্দেশ্য। : সব টাকা থাকার পরও বেগম জিয়ার বিরুদ্ধে মামলা দেয়া উদ্দেশ্যপ্রনোদিত মন্তব্য করে বিএনপির এই নেতা বলেন, 'সম্পূর্ণ অসত্য ও সাজানো, উদ্দেশ্যপ্রণেদিত দুটি মামলা জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট এবং জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের জমি রয়েছে এর নামে সেখানে সাইনবোর্ড রয়েছে, বগুড়ায় এর কার্যক্রম চলছে, যে জমি ক্রয় করা হয়েছে তার পাশে মসজিদ এবং মাদ্রাসাভিত্তিক এতিমদের কাজ চলছে। ব্যাংকের টাকা বৃদ্ধি পেয়ে ৩ গুণের বেশি হয়েছে, তারপরও আত্মসাৎ-এর মামলা।' : দুদকের আইনজীবী রাজনৈতিক বক্তব্য দেন দাবি করে আলাল বলেন, মোশাররফ হোসেন কাজল দুদুকে আইনজীবী, তিনি দাঁড়িয়ে সবসময় রাজনৈতিক বক্তব্য দিয়ে বলেন, এতিমের টাকা আত্মসাৎ-এর মামলা! অথচ তার বিরুদ্ধে আমরা কোনো ব্যবস্থা নিতে গেলে আদালত গ্রহণ করেন না। মহিউদ্দিন খান আলমগীর ও আবদুল হাই বাচ্চুর নামে মামলা নেই কেনো প্রশ্ন করে তিনি বলেন, 'জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্টের একই ঘটনা। টাকা রয়েছে, ঢাকা শহরের কাকরাইলে জমি কেনা রয়েছে, সেখানে স্থাপনা নির্মাণ করা হয়েছে, সেখানে আর্কিটেক্টারাল ডিজাইনের জন্য কন্সাল্ট্যান্টকে টাকা দেয়া হয়েছে, সমস্ত খরচের পড়েও মূল অর্থ সেখানে ঠিক মতই রয়েছে। তারপরেও মামলা! এটাই যদি হয়, ফার্মার্স ব্যাংকের এমডি মহিউদ্দিন খান আলমগীর, বাংলাদেশের জনগণের জন্য আন্তর্জাতিকভাবে বরাদ্দ জলবায়ু তহবিলের ৫০০ কোটি টাকা, হজম করে ফেললো, সেটা নিয়ে মামলা নেই কেনো? বেসিক ব্যাংকের আবদুল হাই বাচ্চু, যার নামে এতোগুলো মামলা, কোটি কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ, তার বিরুদ্ধে মামলা  নেই কেনো? সোনালী ব্যাংকের টাকা, বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভের টাকা সেগুলো নিয়ে মামলা নেই কেনো? কারণ তারা কেউই  শেখ হাসিনার রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বী না। এই কারণে তাদের বিরুদ্ধে মামলা নাই। একারণের তার আশেপাশের লোকদের গ্রেফতার করা হয় না। আজকে সর্বত্র যে অবস্থা তৈরি করেছে তারা, এর মধ্যে দিয়ে একদিন তারাই এই ফাঁদের মধ্য পরবে। লক্ষণতো ইতিমধ্যে শুরু হয়ে গেছে। : আয়োজক সংগঠনের সভাপতি আবু নাসের মুহাম্মাদ রহমাতুল্লাহর সভাপতিত্বে  প্রতিবাদ সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন, বিএনপির স্বনির্ভর বিষয়ক সম্পাদক শিরিন সুলতানা, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ, নির্বাহী কমিটির সদস্য নিপুণ রায় চৌধুরী প্রমুখ। : :





প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন,  সরকার মিডিয়ার স্বাধীনতায় বিশ্বাসী। আপনি তা বিশ্বাস করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
8305 জন