মহাস্থানগড় শাখায় গ্রাহকদের আমানত গায়েব : তদন্ত কমিটি
Published : Thursday, 8 February, 2018 at 12:00 AM
বগুড়া অফিস : বগুড়ায় রূপালী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড মহাস্থানগড় শাখায় কয়েক কোটি টাকা গরমিলের অভিযোগ উঠেছে। সূত্র বলছে গ্রাহকদের আমানত গায়েব করে দেয়া হয়েছে। ওই শাখায় ৪ ফেব্রুয়ারি সকাল ১১টায় ব্যাংক শাখার ম্যানেজার জোবায়েনুর রহমান চা খাওয়ার কথা বলে ব্যাংক থেকে বের হয়ে যাওয়ার পর থেকে রয়েছেন নিখোঁজ। নিখোঁজ থাকার ঘটনায় ওই দিন রাত ১টায় ব্যাংকের প্রিন্সিপাল অফিসার আব্দুল মজিদ মন্ডল বাদী হয়ে বগুড়া সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। ডায়েরিতে ব্যাংক ম্যানেজার নিখোঁজ রয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে। ব্যাংক কর্তৃপক্ষ বলছে, এ ঘটনায় একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে এবং ওই শাখা ম্যানেজারকে বরখাস্ত করার পর নতুন ম্যানেজার নিয়োগ দেয়া হয়েছে। তদন্ত কমিটির কাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত কোন কিছু বলা যাচ্ছে না। ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ থেকে চার সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটিতে রয়েছেন ব্যাংক কর্মকর্তা এম এম জি তোফায়েল, সুলতান মাহমুদ, শাহীন মাহমুদ ও চিরঞ্জিত চক্রবর্তী।  রূপালী ব্যাংক মহাস্থানগড় শাখার অন্যান্য কর্মকর্তা জানান, রূপালী ব্যাংক মহাস্থানগড় শাখার ম্যানেজার বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার আগুনিয়াতাইর গ্রামের মনতেজার রহমানের পুত্র জোবায়েনুর রহমান। তিনি রবিবার ব্যাংকে আসেন এবং সকাল সাড়ে ১১টার সময় ব্যাংকের পার্শ্বে চা পান করার কথা বলে বের হওয়ার পর থেকে আর অফিসে ফিরেননি। তাকে অনেক খোঁজাখুঁজির পরও পাওয়া যায়নি। একাধিকবার তার ব্যবহৃত ফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলেও ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়। তার পরিবারে খোঁজ করা হলেও পাওয়া যায়নি। এ ঘটনার পর রাত ১টায় বগুড়া সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। ব্যাংক ম্যানেজার নিখোঁজ হওয়ার সংবাদ চারদিকে ছড়িয়ে পড়লে ব্যাংকে আমানত জমাকারী গ্রাহকরা তাদের হিসাব দেখার চেষ্টা করে এবং অনেকেই অভিযোগ করেন তাদের হিসাবের গরমিল পাওয়া গেছে। অভিযোগ উঠছে ব্যাংকের আমানতকারীদের কয়েক কোটি টাকা গরমিল হয়ে থাকতে পারে। রূপালী ব্যাংকের প্রিন্সিপাল অফিসার আব্দুল মজিদ মন্ডল জানান, বিভিন্ন হিসাবে গরমিল আছে কি না সে টি দেখা হচ্ছে। গ্রাহকরা অভিযোগ করেছে তারা যে পরিমাণ আমানত রেখেছিল তা নেই। এটি কতটুকু সত্য সেটি তদন্ত করে দেখার পর বলা যাবে। রাজশাহী ডিভিশনাল অফিস থেকে তদন্ত চলছে। তদন্ত শেষে প্রকৃত তথ্য জানা যাবে। তিনি আরো বলেন, প্রতিটি হিসাব যাচাই করা হচ্ছে। : :





দেশের পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

সুজন নেতৃবৃন্দ বলেছেন, সড়কে ভিআইপি লেনের প্রস্তাব বৈষম্যমূলক। আপনিও কি তাই মনে করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
22405 জন