নাচোলে বোরো ধান চাষে ব্যস্ত কৃষক রবিশস্যের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা
Published : Friday, 9 February, 2018 at 12:00 AM
নাচোল (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধি : চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোলে এ বছর রবিশস্যের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে। মাঘ মাসের শেষে কৃষকরা ব্যস্ত সময় পার করছেন বোরো আবাদে। অনুকূল আবহাওয়ার কারণে সরিষা, মটর, মসুর, খেসারি, গম ও ছোলা ফুলে ফলে পরিপূর্ণ হয়ে মাঠে দোল খাচ্ছে। দেশি জাতের সরিষায় এখনো হলুদ ফুলের চাদরে ছেয়ে আছে। এদিকে উচ্চ ফলনশীল হাইব্রিড জাতের সরিষা প্রায় পাকার উপক্রম হয়েছে। মটর, মসুর, খেসারি ও ছোলার ক্ষেতে বাহারি ফুলের মৌ মৌ গন্ধে মৌমাছির আনাগোনা। কৃষকরা আশা করছেন, এগুলোতেও ভালো ফলন হবে। উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা সাইদুর রহমান জানান, এ বছর নাচোল উপজেলায় রবিসশ্য আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে সরিষা ৪,৪৯০ হেক্টর ও উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৫,৮৩৭ টন, মটর ৩৫ হেক্টর, উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ৪৩ টন, মসুর ৯১৫ হেক্টর, উৎপাদন ধরা হয়েছে ১,১৮৫ টন ও ছোলা আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৫৯৬ হেক্টর, উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৬৯৭ টন। কিন্তু বাস্তবে মাঠ পর্যায়ে ধার্য লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে কিছু বেশি আবাদ হয়েছে। অপরদিকে উদ্বৃত্ত খাদ্য ভান্ডার বলে খ্যাত বরেন্দ্র অঞ্চল নাচোলে এ বছর বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৬ হাজার ৭৬০ হেক্টর এবং উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ২৬ হাজার ৬২৯ টন। গত পৌষ মাসের শেষের দিকে যেসব কৃষক জমিতে ধানের চারা রোপণ করেছিলেন তা শীতের তীব্রতায় পচে গিয়েছিল। কৃষকরা বাধ্য হয়ে ওই জমিতে প্রায় দু-তিন গুণ দামে ধানের চারা কিনে পুনরায় চারা রোপণ করছেন। এ সুযোগে নারী শ্রমিকদের কদর বেড়েছে দ্বিগুণ। সাধারণত আবাদ মৌসুমে নারী শ্রমিকদের পারিশ্রমিক দেড় থেকে ২০০ টাকা হয়ে থাকে। কিন্তু কোল্ড ইনজুরিতে রোপিত চারা পচে ও মরে যাওয়ায় কৃষকরা পড়েন বেকায়দায়। এ সময় শ্রমিক সংকট দেখা দেয়। তাই এ সময় পুরুষদের পাশাপাশি নারী শ্রমিকদের পারিশ্রমিক বর্তমানে ২০০ থেকে ২৫০ টাকায় দাঁড়িয়েছে। একদিকে শ্রমিকের পারিশ্রমিক বেশি, তার উপর ধানের চারার মূল্য বেশি। তাই এ বছর বোরো আবাদে কৃষকের উৎপাদন ব্যয় অনেক বেশি হবে। কিন্তু গত আমন মৌসুমের উৎপাদিত ধানের বাজারমূল্য ভালো পাওয়ায় বোরো আবাদে বেশি খরচ হলেও কৃষকদের গায়ে লাগছে না। : :





দেশের পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

ভারতীয় মিডিয়া বলেছে, বাংলাদেশে অস্থিরতা ছড়িয়ে পড়তে পারে। আপনিও কি তেমন আশঙ্কা করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
4640 জন