দেশে এখন চলছে বন্য আইন : মান্না
Published : Saturday, 10 February, 2018 at 12:00 AM
দিনকাল রিপোর্ট : আড়াই কোটি টাকার দুর্নীতি কি হুলস্থূল ঘটিয়ে দিল। অথচ লাখো কোটি টাকা বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে চলে গেল। কি হয়েছে? দেশে এখন বন্য আইন চলছে। একটা মামলা নিয়ে এমন ঘটনা আমার জীবনেও দেখিনি। আমার জীবন একেবারে ছোট নয়। গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় সবার অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন প্রয়োজন। সরকার বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে কারাগারে পাঠিয়ে সেই পথে না হাঁটারই ইঙ্গিত দিয়েছে। প্রশ্নপত্র ফাঁসের মতো সরকার আগে থেকেই খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে আনা মামলার রায় কী হবে, তা জানত। যারা দেশ থেকে হাজার কোটি টাকা পাচার করছে, তাদের পরিচয় প্রধানমন্ত্রী জানেন। অথচ তাদের শাস্তি আগে নিশ্চিত না করে তড়িঘড়ি করে সাবেক প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে এই রায়ের উদ্দেশ্য সবারই জানা। : গতকাল শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে প্রশ্নপত্র ফাঁস, শিক্ষা এবং শিক্ষাঙ্গন বিষয়ে আলোচিত এক গোলটেবিল আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। : নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে শান্তির পথে সবকিছু বিকশিত হোক, এটা আমরা সবাই চাই। কিন্তু সেই পরিবেশ সবাই মিলে তৈরি করতে হবে। গায়ের জোরে হবে না। : পাকিস্তান আমলে ঢাকা যেমন ছিল ৮ ফেব্রুয়ারি ঢাকা ঠিক তেমন ছিল। অনেকে আমাকে বলেছে ৮ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ পাকিস্তান আমলের মতো হয়েছিল। এর কারণ হলো ৮ ফেব্রুয়ারি নিয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, সরকারি মন্ত্রী, এমপি ও নেতাকর্মীদের কথাবার্তায় জনগণ ভয়ের মধ্যে ছিল। সারাদেশব্যাপী যেভাবে গণগ্রেফতার শুরু হয়েছে তা থেকে সাধারণ মানুষও রক্ষা পায়নি। যার কারণে বেশিরভাগ মানুষ বাইরে বের হয়নি। এটা একটি অঘোষিত ঘটনা ঘটে গেছে। : মাহমুদুর রহমান মান্না প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ করে বলেন, বেগম খালেদা জিয়ার মামলার রায় দিয়ে আপনি দেশটাকে সংকটময় অবস্থার দিকে ঠেলে দিয়েছেন। ব্যাংকের রিজার্ভ চুরি, শত শত কোটি টাকা বিদেশে পাচার হয়ে গেছে তার বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ নেই। তার কোনো মামলা নেই। কিন্তু বেগম জিয়ার নামে মিথ্যা মামলার নাটক সাজিয়ে তাকে কারাগারে প্রেরণ করলেন, এর কারণে যদি দেশে কোনো বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হয় তার দায়ভার আপনাকে নিতে হবে। : বেগম জিয়ার মামলায় নিম্ন আদালত সাজা দিয়েছে এই রায় কি অবনত মস্তকে মেনে নিতে হবে? তাহলে তো আপিল করা যাবে না। এই রায় ঠিক মনে করছি না বলেই তো আপিলে যাচ্ছি। এই নিম্ন আদালতের রায়ের প্রতি আস্থা রাখতে পারি না। : বতর্মান দেশের শিক্ষাব্যবস্থা চরমভাবে ধ্বংসের মুখে, শিক্ষামন্ত্রী শিক্ষাব্যবস্থাকে ধ্বংসের দিকে ঠেলে দিয়েছেন। শিক্ষামন্ত্রী উচ্চশিক্ষা থেকে শুরু করে নিম্নশিক্ষা পর্যন্ত প্রশ্নপত্র ফাঁস করে দেশের শিক্ষাব্যবস্থাকে অবনতির দিকে ঠেলে দিয়েছে। কাজেই শিক্ষামন্ত্রীর পদত্যাগ করা উচিত। : আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন নাগরিক ছাত্র ঐক্যের আহ্বায়ক নাজমুল হাসান, ছাত্রনেতা মোস্তাফা কামাল, জেএসডির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মালেক রতন, ছাত্রনেতা রফিকুল ইসলাম প্রমুখ। : :





প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, মন্ত্রীদের বক্তব্যের সঙ্গে রায়ের হুবহু মিল রয়েছে। আপনিও কি তাই মনে করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
7050 জন