কামাল ইউসুফের বাড়িতে ছাত্রলীগ-যুবলীগের হামলা
Published : Saturday, 10 February, 2018 at 12:00 AM
ফরিদপুর প্রতিনিধি, দিনকাল : ফরিদপুরে পুলিশের উপস্থিতিতে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক মন্ত্রী চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফের পৈতৃক বাসভবন ময়েজমঞ্জিলে যুবলীগ ও ছাত্রলীগের সশস্ত্র হামলায় তিনজনকে কুপিয়ে জখমের ঘটনা ঘটেছে। এসময় কয়েক রাউন্ড গুলিও বর্ষণ করা হয়েছে। গতকাল শুক্রবার দুপুরে জুমার নামাজের পর এ ঘটনা ঘটে। তবে এসময় ময়েজমঞ্জিল পরিবারের কেউ বাড়িতে ছিলেন না। জুমার নামাজের পর সেখানে জেলা যুবদলের সহ-সভাপতি এবি সিদ্দিকী মিতুল, কোতোয়ালি বিএনপির সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হাসান রঞ্জন, সাংগঠনিক সম্পাদক এমদাদুল হক, জেলা যুবদলের যুগ্ম সম্পাদক আরিফুজ্জামান অপু, ছাত্রদলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ভিপি সেলিমের নেতৃত্বে সেখানে নেতাকর্মীরা সমবেত হচ্ছিল। : প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, কর্মসূচি পালনের লক্ষ্যে ময়েজমঞ্জিলে সমবেত হওয়ার খবর পেয়ে সেখানে টহল পুলিশ ও বিজিবির পাশাপাশি যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা মোটরসাইকেলে চেপে ধারালো ও আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে সেখানে হামলা চালায়। এসময় শহর ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক সনেট, যুবদল নেতা উজ্জল ও হৃদয়কে বেধড়ক পিটিয়ে ও কুপিয়ে জখম করা হয়। ময়েজমঞ্জিলে নিরস্ত্র নেতাকর্মীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে পড়লে তাদের লক্ষ্য করে ৭-৮ রাউন্ড গুলি ছোড়ে তারা। পুলিশের উপস্থিতিতেই এ হামলা চালানো হয় বলে বিএনপির নেতৃবৃন্দ অভিযোগ করেন। আহতদের মধ্যে সনেটের অবস্থা গুরুতর বলে রিপোর্ট লেখার সময় জানা যায়। : আহত ছাত্রনেতা সনেট, উজ্জল ও হৃদয়কে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ এ ঘটনাকে ন্যক্কারজনক উল্লেখ করে বলেন, ময়েজমঞ্জিলের ১০০ বছরেরও বেশি সময়ের ইতিহাসে এমন হামলার ঘটনা ঘটেনি। ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলন থেকে শুরু করে পাকিস্তান আমলে আইয়ুববিরোধী আন্দোলনসহ নানা আন্দোলন-সংগ্রামে ময়েজমঞ্জিল নেতৃত্ব দিলেও এর আগে কোনদিন এমন হামলা হয়নি বলেও তিনি জানান। : এদিকে একই সময় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা জহিরুল হক শাহজাদা মিয়ার নেতৃত্বে শহরের চৌরঙ্গি মোড় হতে জুমা বাদ মিছিলের আগেই সেখানে প্রায় ৩০টি মোটরসাইকেলে চেপে যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা মহড়া দিতে থাকলে নেতাকর্মীরা ঝিলটুলীস্থ শাহ ফরিদ সড়কে গিয়ে বিক্ষোভ করে। এসময় শাহজাদা মিয়া ও সাবেক সংসদ সদস্য ইয়াসমিন আরা হক বক্তব্য রাখেন। অন্যান্যের মধ্যে জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক রশিদুল ইসলাম লিটন, সহ-সভাপতি মাজেদ মিয়া, জেলা মহিলা দলের বিলকিস ইসলাম, বিএনপি নেতা বিএম রায়হান, মাসুম দেওয়ান, শাহিন হক, জেলা ছাত্রদলের তানজিমুল হাসান কায়েস, ভিপি রেজা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। এসময় শাহজাদা মিয়া বলেন, জেলের তালা ভেঙে প্রয়োজনে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে আনবো। এদিকে শহরের বিভিন্ন মোড়ে সরকার দলীয় নেতাকর্মীদের অবস্থান ও মোটরসাইকেলে মহড়া দিতে দেখা গেছে। : :





প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, মন্ত্রীদের বক্তব্যের সঙ্গে রায়ের হুবহু মিল রয়েছে। আপনিও কি তাই মনে করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
7013 জন