কাপ্তাইয়ে ধরা পড়ছে বড় মাছ
বিএডিসির অভাবনীয় সাফল্য
Published : Sunday, 11 February, 2018 at 12:00 AM, Update: 10.02.2018 9:52:51 PM
কাপ্তাইয়ে ধরা পড়ছে বড় মাছআলমগীর মানিক, রাঙামাটি থেকে : দীর্ঘ বিরতির পর কাপ্তাই হ্রদে এ বছর আবারো বৃহৎ আকারের ও বেশি ওজনের মাছ ধরা পড়ছে জেলেদের জালে। বড় মাছের মধ্যে ২০ থেকে ২৭ কেজি ওজনের কাতল মাছ, ৮ থেকে ১০ কেজি ওজনের রুই মাছ, ৬ থেকে ১২ কেজি ওজনের মৃগেল ও কালিবাউস, ৪ থেকে ১৫/২০ কেজি ওজনের বোয়াল মাছ, ৩ থেকে ৫ কেজি ওজনের তেলাপিয়া মাছ পাওয়া যাচ্ছে। এ ছাড়া সেই তিন দশক আগে কাপ্তাই হ্রদে যেভাবে ২০ থেকে ৩০ কেজি ওজনের চিতল মাছ পাওয়া যেত এ বছরও তেমনি বড় ধরনের মাছ জেলেরা শিকার করছেন বলে বিভিন্ন সূত্র নিশ্চিত করেছে। স্থানীয় জেলেরা জানিয়েছেন, কাপ্তাই হ্রদে বর্তমানে নির্দিষ্ট প্রজাতির দেশীয় মাছ ছাড়াও পাঙ্গাস, বিদেশি জাতের মাগুর মাছসহ বিভিন্ন প্রজাতির মাছ ধরা পড়ছে জেলেদের জালে। গত বুধবার কাপ্তাই হ্রদে একটি ১০ কেজি ওজনের পাঙ্গাস মাছ ধরা পড়ে স্থানীয় এক জেলের জালে। শহরের রিজার্ভ বাজারের মৎস্য বিক্রেতা রাসেল এটি পাইকারি দরে কেনেন ২ হাজার ১০০ টাকায় মাছটি বিক্রি করেছেন বলে জানিয়েছেন। স্থানীয় মৎস্য ব্যবসায়ীরা জানান, অন্যান্য বছরের ন্যায় কাপ্তাই হ্রদে এ বছর দেশীয় প্রজাতির মাছের উৎপাদন বৃদ্ধি হয়েছে প্রত্যাশার চেয়েও বেশি। স্থানীয় জেলেদের মাধ্যমে এ বছর ১০ থেকে ১৪ কেজি ওজনের বাঘাআইর, ৮ থেকে ১০ কেজি ওজনের আইর মাছ ধরা পড়ছে জালে। বিগত অন্তত দুই দশক এই ধরনের মাছ হ্রদে তেমন একটা পাওয়া যায়নি উল্লেখ করে ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, বিএফডিসির সুচারু ব্যবস্থাপনা ও আর স্থানীয় জেলেসহ হ্রদ সংশ্লিষ্টদের মাঝে সচেতনতা সৃষ্টি হওয়ার ফলেই কাপ্তাই হ্রদে এবার মাছের উৎপাদন আগের বছরগুলোর চেয়ে দ্বিগুণ বেড়েছে। জেলেরা জানান, কাপ্তাই হ্রদে এ বছর দেশীয় প্রজাতির শিং, শোল, ফলি মাছসহ টেংরা মাছের মতো দেশীয় প্রজাতির মাছের উৎপাদন হয়েছে আগের বছরগুলোর তুলনায় বেশি পরিমাণে। এবার হ্রদে জেলেদের জালে ধরা পড়া বাছা মাছ ও পাবদা মাছের সাইজও অনেক বড় বড়। এসব মাছ বিগত বছরগুলোর চেয়ে এ বছর অনেকটা সুলভমূল্যে কিনছেন স্থানীয় ক্রেতারা। : সংশ্লিষ্ট স্থানীয় সূত্রগুলোর সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে, গত কয়েক বছর কাপ্তাই হ্রদে মৎস্য শিকার নিষিদ্ধকালীন রাঙামাটি বিএফডিসি কর্তৃপক্ষের নিবিড় তত্ত্বাবধানের কারণে এবার মাছের উৎপাদন বেড়েছে। কাপ্তাই হ্রদ বৃহত্তর মৎস্য ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি মো. শুক্কুর জানিয়েছেন, বিএফডিসি কর্তৃপক্ষ বিগত এক বছর আগে যে হারে অভিযান চালিয়ে অবৈধ জাল ধ্বংস করার পাশাপাশি কারেন্ট জালসহ ক্ষতিকর জাল জব্দ ও কাপ্তাই হ্রদের মাছ উৎপাদনের অভয়াশ্রমগুলো রক্ষা করায় এ বছর মাছের উৎপাদন বেড়েছে। তিনি জানান, স্থানীয় বিএফডিসির কর্মকান্ডে জেলেসহ ব্যবসায়ীদের মাঝে সচেতনতা সৃষ্টি হওয়ায় এটি সম্ভব হয়েছে। ব্যবসায়ী নেতারাসহ স্থানীয় বাজারগুলোর মৎস্য ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, বিগত বছরে রাঙামাটি বিএফডিসির সময়োপযোগী সিদ্ধান্তের কারণে হ্রদের আনাচে-কানাচে অনেক বেশি পরিমাণ আবদ্ধ জায়গা উন্মুক্তকরণ করা হয়েছে। অবৈধ মৎস্য শিকারিদের বিরুদ্ধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করাসহ হ্রদে মাছের উৎপাদন বৃদ্ধিতে পোনা অবমুক্ত করার সময়ে প্রত্যেকটা অভয়াশ্রমে সঠিক পরিমাণে পোনা অবমুক্ত করাসহ এসব স্থান সঠিকভাবে তদারকিতে থাকায় এবার মাছের উৎপাদন গতানুগতিক প্রত্যাশার চেয়ে ভালো হয়েছে। রাঙামাটি মৎস্য উন্নয়ন করপোরেশন বিএফডিসির ব্যবস্থাপক নৌবাহিনীর কমান্ডার মো. আসাদুজ্জামান বলেন, কাপ্তাই হ্রদ রাঙামাটি জেলা তথা পুরো দেশের অর্থনীতিতে অবদান রাখতে পারা অপার সম্ভাবনাময় একটি খাত। এখানে যোগদানের পর থেকেই বিষয়টি অনুধাবন করে সংশ্লিষ্ট সবার সার্বিক সহযোগিতায় আমি হ্রদের মৎস্য সম্পদ রক্ষায় এবং এর সঠিক উন্নয়নে নানামুখী পদক্ষেপ নিয়েছি। অবৈধ জাঁক অপসারণ, হ্রদের সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা নিশ্চিতকরণে বিভিন্ন সময়ে অভিযান পরিচালনাসহ মাছের উৎপাদন বৃদ্ধিতে বাধা সৃষ্টির খাতগুলোকে ধ্বংস করায় রাঙামাটিবাসী বর্তমান সময়ে এর সুফলভোগ করেছেন। তিনি বলেন, কাপ্তাই হ্রদের এর সম্পদের যুগোপযোগী ব্যবহার পদ্ধতিতে আধুনিকতার ছোঁয়া আনতে পারলে এই হ্রদের মাছ দিয়ে আমাদের দেশের চাহিদা পূরণের পাশাপাশি আমরা অদূর ভবিষ্যতে বিদেশেও রফতানি করতে পারব। : :  





দেশের পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

ভারতীয় গণমাধ্যম বলেছে, এই মুহূর্তে নির্বাচন হলে আ’লীগ হেরে যাবে। আপনিও কি তাই মনে করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
4997 জন