৬ বছরেও তদন্ত শেষ হয়নি সাগর-রুনি হত্যা মামলার
Published : Sunday, 11 February, 2018 at 12:00 AM
পাবনা প্রতিনিধি, দিনকাল : আজ ১১ ফেব্রুয়ারি সাংবাদিক দম্পতি সাগর সারোয়ার ও মেহেরুন রুনির মৃত্যুর ছয় বছর। ছয় বছরেও শেষ হয়নি সাংবাদিক দম্পতি সাগর সারোয়ার ও মেহেরুন রুনি হত্যা মামলার তদন্ত। গ্রেফতার হয়নি পরিকল্পনাকারীসহ মূল হোতারা। কয়েকবার তদন্ত সংস্থা পরিবর্তন এবং বার বার সময় পিছিয়েও দাখিল করা যায়নি চাঞ্চল্যকর এই মামলার চার্জশিট। মামলায় কয়েকজন গ্রেফতার হলেও মূল হোতারা রয়েছে ধরা ছোঁয়ার বাইরে। মামলার ভবিষ্যৎ ও বিচার নিয়ে সাগরের জন্মস্থান পাবনার বেড়া উপজেলার ছোট নওগাঁ গ্রামে তার স্বজন, এলাকাবাসী ও গণমাধ্যম কর্মীদের মধ্যে বিরাজ করছে ক্ষোভ ও হতাশা। কারা, কি উদ্দেশ্যে তাদের হত্যা করেছে তা আজও অজানা তাদের। জেলার সুশীল সমাজের প্রতিনিধি ও গণমাধ্যমকর্মীরা মনে করেন, সাহসী এই সাংবাদিক দম্পতি হত্যার বিচার না হলে আগামীতে সাংবাদিকদের নিরাপত্তা ঝুঁকি আরও বাড়বে। : সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ২০১২ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি দিবাগত রাতে ঢাকার পশ্চিম রাজাবাজারে নিজ বাসায় দুর্বৃত্তদের হাতে নির্মমভাবে খুন হয় সাংবাদিক দম্পতি মাছরাঙা টেলিভিশনের বার্তা সম্পাদক সাগর সারোয়ার ও এটিএন বাংলার সিনিয়র রিপোর্টার মেহেরুন রুনি। এরপর কেটে গেছে ছয়টি বছর। তারপরও শেষ হয়নি হত্যা মামলার তদন্ত। শনাক্ত করা যায়নি হত্যাকারীদের। বারবার সময় দিয়েও মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করতে পারেনি তদন্ত সংস্থা। দীর্ঘ ছয় বছরে মামলার অগ্রগতি নিয়ে হতাশ ও ক্ষুব্ধ সাগরের জন্মস্থান পাবনার বেড়া উপজেলার মাসুমদিয়া ইউনিয়নের ছোট নওগাঁ গ্রামবাসী ও তার স্বজনরা। সবার প্রিয় সাগর ও তার স্ত্রী হত্যায় যে শূন্যতা তৈরি হয়েছে সবার মাঝে তা এখনও কাটিয়ে উঠতে পারছেন না স্বজনেরা। কথা হয় সাগরের স্বজন ও গ্রামবাসীর সাথে। মামাতো ভাই আতাউর রহমান বলেন, এখনও মনে পড়ে ভাইকে। তাকে হারানোর কষ্ট ভুলতে পারছি না আমরা। তাকে এখন দেখতে না পেয়ে সবসময়ের জন্য মনটা আমার খারাপ থাকে। এত বিচার হয়, আমার ভাই ও তার স্ত্রী হত্যার বিচার হচ্ছে না কেন জানতে চাই। সাগরের ফুফু সুফিয়া বেগম বলেন, বেঁচে থাকতে সাগর যখন বাড়িতে এসে আমাদের সামনে দাঁড়িয়েছে তখন খুশিতে বুকটা ভরে যেত। কিন্তু গত ছয় বছর ধরে তার কোনো দেখা পাই না। তাকে হারিয়ে যে কি কষ্টে আমরা আছি তা বলে বোঝাতে পারবো না। বেঁচে থাকতে এই হত্যার বিচার দেখে যেতে চাই। সাগরের চাচাতো ভাই আব্দুল বাতেন বলেন, সাগর-রুনিকে হারিয়ে ছয় বছর হলো যে শূন্যতা আমাদের মাঝে তৈরি হয়েছে তা পূরণ কিভাবে করবো আমরা। এটাতো পূরণ হবার নয়। আর এই ছয় বছরে দুইজন সাংবাদিক হত্যা মামলার তদন্তই এখন পর্যন্ত শেষ হলো না। তাহলে বিচার কাজ শুরু হবে কবে- এ নিয়ে আমরা হতাশ। আমরা দ্রুত তদন্ত শেষ করে মূল পরিকল্পনাকারীসহ হত্যাকারীদের আইনের আওতায় দেখতে চাই। সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি হত্যা মামলার ধীরগতিতে হতাশ জেলার গণমাধ্যমকর্মী ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা। : পাবনা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আঁখিনুর ইসলাম রেমন বলেন, সাগর-রুনি হত্যাকান্ড ও তার বিচার প্রক্রিয়া সারাদেশের সাংবাদিকদের নিরাপত্তার জন্য হুমকি হিসেবে এক জ্বলন্ত উদাহরণ হয়ে থাকবে। আমরা এই মামলাটির দ্রুত তদন্ত শেষ করে প্রকৃত অপরাধীদের আইনের আওতায় আনার দাবি জানাই। টেলিভিশন সাংবাদিক সমিতি পাবনার আহবায়ক রাজিউর রহমান রুমি বলেন, দেশে সাংবাদিক হত্যা অতীতেও হয়েছে, বর্তমানেও হচ্ছে। কিন্তু হচ্ছে না শুধু বিচার। পার পাচ্ছে হত্যাকারীরা। উদ্বেগ আতংক সাংবাদিক পরিবারে বাড়ছে। আমরা শুধু দেখছি। এভাবে কতদিন চলবে তা আমরা জানি না। চাইবো সরকার আন্তরিক হোক। সাগর-রুনি হত্যার বিচারের মধ্য দিয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করুক। : :





প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

ভারতীয় গণমাধ্যম বলেছে, এই মুহূর্তে নির্বাচন হলে আ’লীগ হেরে যাবে। আপনিও কি তাই মনে করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
4928 জন