মুক্তি না পাওয়া পর্যন্ত আন্দোলনের কর্মসূচি চলবে
খালেদা জিয়াকে ছাড়া ২০ দল নির্বাচনে যাবে না : ফখরুল
Published : Tuesday, 13 February, 2018 at 12:00 AM
দিনকাল রিপোর্ট : বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি না হওয়া পর্যন্ত ‘শান্তিপূর্ণ’ আন্দোলন চলবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ছাড়া আমরা নির্বাচনে যাব না। গতকাল সোমবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলÑবিএনপির উদ্যোগে এক ঘন্টার মানববন্ধন কর্মসূচির সমাপনী বক্তব্যে তিনি এই ঘোষণা দেন। মিথ্যা, ভুয়া ও জাল নথির মাধ্যমে সাজানো রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মামলায় আদালত কর্তৃক সাজা দিয়ে কারান্তরীণ বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।   : মানববন্ধনে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মির্জা আব্বাস, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীসহ নেতৃবৃন্দ ফুটপাতে উঠে মাইক ছাড়া বক্তব্য রাখেন। জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে সকাল ১১টা থেকে ১২টা পর্যন্ত এই কর্মসূচি হয়। তোপখানার মোড় থেকে হাইকোর্টের কদম ফোয়ারা পর্যন্ত পুরো এলাকায় লাখ লাখ নেতাকর্মী-সমর্থক এই মানববন্ধনে অংশ নেয়। সকাল সাড়ে ১০টা থেকে নেতাকর্মীরা জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সমবেত হয়ে ‘খালেদা জিয়ার মুক্তি চাই, মুক্তি চাই’, ‘খালেদা জিয়ার কিছু হলে জ্বলবে আগুন ঘরে ঘরে’ ইত্যাদি স্লোগান দিতে থাকে। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, চিকিৎসক, প্রকৌশলী, আইনজীবী, কৃষিবিদসহ বিভিন্ন পেশা-শ্রেণির নেতাকর্মীরা এতে সমবেত হয়ে বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করেন। এ মানববন্ধনে ব্যাপক সংখ্যক মহিলা কর্মী-সমর্থক অংশ নেন। : মির্জা ফখরুল বলেন, শত প্রতিকূলতার মধ্যে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার এই কারাবাসের বিরুদ্ধে আপনাদের যে ক্ষোভ, আপনাদের যে হতাশা, আপনাদের বেগম জিয়ার প্রতি যে ভালোবাসা সেটা আপনারা প্রকাশ করেছেন। আজকে এই মানববন্ধনের মধ্য দিয়ে এটা প্রমাণিত হয়েছে যে, বেগম খালেদা জিয়া এদেশে সবচেয়ে জনপ্রিয় নেতা। তাকে অন্যায়ভাবে মিথ্যা মামলা দিয়ে সাজা দিয়েছে। আমরা স্পষ্টভাষায় বলে দিতে চাই, দেশনেত্রীর মুক্তি না হওয়া পর্যন্ত আমাদের শান্তিপূর্ণ আন্দোলন চলবে। : মির্জা ফখরুল নেতাকর্মীদের উদ্দেশে বলেন, দেশনেত্রী কারাগারে যাবার আগে বলে গেছেন আপনাদের ধৈর্য ধরতে, শান্ত হতে এবং শান্তিপূর্ণভাবে কর্মসূচি চালিয়ে যেতে। আমাদের এই কর্মসূচি দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে কারামুক্ত করার জন্য, আমাদের এই কর্মসূচি গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের জন্য। এই মুহূর্তে বেগম খালেদা  জিয়াকে মুক্তি দিতে হবে। তার মুক্তি আমরা চাই। : তিনি বলেন, আমরা পরিষ্কারভাবে বলতে চাই, দেশনেত্রীকে নিয়েই আমরা আগামী নির্বাচনে যাব। দেশনেত্রী ছাড়া এ দেশে কোনো নির্বাচন হবে না। আমরা সহায়ক সরকার চাই, আমরা একটা নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন চাই। শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচন করে দেশের জনগণের আশা-আকাক্সক্ষার বাস্তবায়ন করতে চাই। তাই আসুন শান্তিপূর্ণভাবে আন্দোলন করে দেশনেত্রীকে কারামুক্ত করি। একই সঙ্গে দলের নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করা বন্ধ করতে সরকারের প্রতি আহবানও জানান বিএনপি মহাসচিব। : বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, দেশনেত্রীকে অন্যায়ভাবে সাজা দেয়া হয়েছে। এটা দেশের মানুষ তা গ্রহণ করেনি। অবিলম্বে তাকে মুক্তি দিতে হবে, আমাদের সকল নেতার সব মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করতে হবে। চারদিন ধরে ডিভিশন না দিয়ে সরকার আমাদের নেত্রীকে একজন অডিনারী প্রিজনার হিসেবে তাকে কষ্ট দিয়েছে। সরকার জেল কোড ভঙ্গ করেছে। আমরা সরকারের এহেন কর্মকান্ডের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। : বিএনপির স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য মির্জা আব্বাস বলেন, যত ষড়যন্ত্র হোক, আমরা স্পষ্ট করে বলতে চাই, বাংলাদেশে নির্বাচন হবে এবং সেই নির্বাচন বেগম খালেদা জিয়াকে নিয়েই হবে। তাকে ছাড়া কেউ নির্বাচন চিন্তা করলে সেটা হবে দুঃস্বপ্ন। : :





প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

আসক নেতৃবৃন্দ বলেছেন, রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে দ্রুত বিচার আইনে শাস্তি বাড়ানো হয়েছে। আপনিও কি তাই মনে করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
42177 জন