আইন সবার জন্য সমান হলে জামিন পাবেন খালেদা জিয়া
Published : Wednesday, 14 February, 2018 at 12:00 AM, Update: 13.02.2018 10:29:01 PM
আলী মামুদ : ৫ জানুয়ারির মতো আরেকটি বিনা ভোটের নির্বাচন করার লক্ষ্যেই একটি বিতর্কিত মামলায় কারাবন্দী দেশের প্রথম নারী প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে জামিনবিহীন রাখতে নতুন নতুন কৌশল নেয়া হচ্ছে। শুধু তাই নয় কারাবন্দী রাখার সময় তাকে প্রাপ্য সুযোগ-সুবিধা না দেয়ার ঘটনাও ঘটেছে। আধুনিক কারাগারের প্রকল্প চলমান থাকাবস্থায় একজন সাবেক প্রধানমন্ত্রীর বেলায় ব্যত্যয় ঘটলো। : এ সম্পর্কে দেশের প্রথম (৭২) জাতীয় সংসদের সংসদ সদস্য ও একদলীয় শাসন বিলের প্রতিবাদ জানিয়ে পদত্যাগকারী ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন বলেন, আইন সবার জন্য এক রকম হওয়াই উচিত। জামিন প্রাপ্য হলে তা থেকে বঞ্চিত করা উচিত নয়। সাবেক প্রতিমন্ত্রী এ্যাডভোকেট মীর নাছির বলেন, বিএনপিকে ভাঙ্গার ষড়যন্ত্র সফল হবে না। সাবেক ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বর্তমানে সুপ্রীম কোর্টের আপীল বিভাগের সিনিয়র আইনজীবী এ্যাডভোটেক তৈমূর আলম খন্দকার বলেন, অন্যায় ও বেআইনীভাবে বেগম খালেদা জিয়াকে জামিন থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে। : উল্লেখ্য, বিতর্কিত সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান দুর্নীতি দমন কমিশন বা দুদক কুখ্যাত ১/১১ সরকারের সময়ে দেশের দুই নেত্রীর বিরুদ্ধে বেশ কিছু মামলা করে। তারা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে ১০টি মামলা দায়ের করেছিল। আর বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে ৪টি মামলা দায়ের করেছিল। কিন্তু পরে দেখা গেল শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে মামলাগুলো হাওয়া হয়ে গেল। আর বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মামলাগুলো সংখ্যায় বাড়তে থাকলো। যদিও দুর্নীতি দমন ব্যুরো থেকে দুদক একটি কমিশনে রূপান্তরিত হয়েছিল বিএনপি শাসনামলেই। : আইনের শাসন বিষয়ক জটিলতা : সিপিডি’র অন্যতম ফেলো দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য সম্প্রতি এক টিভি -টকে কথা বলছিলেন। দেশের আইনের শাসন সম্পর্কে একটি প্রশ্ন করে বসেন সঞ্চালক। দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য বলেন, দেখুন আমার পিতা বিচার বিভাগে ছিলেন এক সময়। এ কারণে এ বিষয়ে কথাবার্তা বলতে আমি খুবই সতর্ক। : সমঝোতার বিকল্প নেই : মরহুম তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়ার জ্যেষ্ঠ সন্তান ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন পেশাগত ভাবে একজন বিশিষ্ট আইনজীবী। রাজধানীর কাকরাইল এলাকায় একটি ল চেম্বারে (মুসাফির টাওয়ারে) তিনি নিয়মিত বসেন। সম্প্রতি তার চেম্বারে এক সাক্ষাতে তিনি এই প্রতিবেদককে তার লেখা একটি গ্রন্থ উপহার দেন। : গত সোমবার মধ্যরাতে তৃতীয় পক্ষ অনুষ্ঠানে তিনি বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ কথা বলেন। তিনি বলেন, আইনকে তার নিজের পথেই চলতে দেয়া উচিত। তাহলে জামিনযোগ্য মামলার কেন জামিন নেয়ার সুযোগ দেয়া হবে না? : দেশের দুই ধারার রাজনীতির সমালোচক ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন এতে বলেন, সমঝোতার বিকল্প নেই। বিশেষ করে আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সব দলের অংশ গ্রহণ দরকার। : তার ভাষ্যে নির্বাচনের বছরে এখন যা ঘটছে তা সরকারের জন্যও বিপদজনক। নিম্ন আদালতের রায় চ্যালেঞ্জ তো হতেই পারে। এর জন্য আপীল হবেই। চূড়ান্ত রায় না হওয়া পর্যন্ত তো জামিন একটি স্বাভাবিক বিষয় কিন্তু জামিন এ্যাড়াতে এখন যেসব ঘটনা ঘটছে তা বিপজ্জনক বটে। তিনি বলেন, যাবজ্জীবন  রায়ের মামলাতেও জামিন হয়। বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে ৫ বছরেও মামলার রায় সম্পর্কে তিনি বলেন, এখানে তো জামিন পাওয়া তার অধিকার। তার পরেও একটি বিষয় হলো তার বয়স এর বিষয়টি অন্যতম বিবেচ্য বিষয়। তা ছাড়া তিনি তো পালিয়ে ছিলেন না। নিয়মিত হাজিরা দিয়েছেন। বিদেশে গেছেন আবার ফিরে এসেছেন। : দেশনেত্রীর জনপ্রিয়তা অনেক বেড়েছে-মীর নাছির : সাবেক প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট মীর নাছির উদ্দিন বলেছেন, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল এখন অনেক সংগঠিত। দলের চেয়ারপারসন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া কারাগারে যাওয়ার পর তার জনপ্রিয়তা অনেক বেড়েছে-যার প্রমাণ পাওয়া যাচ্ছে। স্বতঃস্ফূর্ত জনতার ঢল নামছে। একটি টিভি-টকে অংশগ্রহণকালে সম্প্রতি তিনি বলেন, বাইরের উসকানিতে বিএনপি ভাঙবে না। কারণ দলে কোন দ্বিমত নেই। চেয়ারপারসন এখন কারারুদ্ধ। দলের ভাইস চেয়ারম্যান জনাব তারেক রহমান এখন ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান। সঞ্চালকের এক প্রশ্নের উত্তরে মীর নাছির বলেন, ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের গাইড লাইনে এখন দল চলছে। সারা দেশের নেতা কর্মীরা এখন চাঙ্গা। : জামিনের সুযোগ আছে-অ্যাড তৈমূর : সুপ্রীয় কোর্টের আপীল বিভাগের সিনিয়র আইনজীবী এ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার এ বিষয়ে দৈনিক দিনকালকে বলেন, এদেশের এখন সাবেক প্রধানমন্ত্রী যদি সুবিচার না পান, তা হলে তা দুর্ভাগ্যজনক। তার প্রাপ্য জামিন নাকচ করতে নতুন নতুন মামলা সামনে আনা হচ্ছে। তা হলে এর আগে তা আনা হয়নি কেন? জামিনের ক্ষেত্রে বয়স একটি বিবেচ্য বিষয়। তাও নিষ্ঠুরভাবে পাশ কাটানোর চেষ্টা চলছে। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে  দেশব্যাপী মানুষ তার পাশে দাঁড়িয়েছে। যার প্রমাণ মিলবে একদিন বলে তিনি উল্লেখ করেন। : :





প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন বলেছেন, বেগম খালেদা জিয়াকে রাজনৈতিকভাবে হয়রানির জন্যই জেলে রাখা হয়েছে। আপনিও কি তাই মনে করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
1789 জন