গোবিন্দগঞ্জে রমেশ টুডুর মরদেহ ১৫ মাস পর কবর থেকে উত্তোলন
Published : Thursday, 15 February, 2018 at 12:00 AM
গোবিন্দগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি : গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জের শিনটাজুড়ি গ্রামের সাঁওতাল রমেশ টুডুর মৃত্যুর কারণ নিশ্চিত হওয়ার জন্য ১৫ মাস পর কবর থেকে তার মরদেহ উত্তোলন করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। গত মঙ্গলবার  ম্যাজিস্ট্রেট ও ডাক্তারসহ এলাকাবাসীর উপস্থিতিতে কবর থেকে রমেশ টুডুর মরদেহের হাড়গোড়, মাথার খুলিসহ শরীরের বিভিন্ন অংশ উত্তোলন করা হয়। পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) গাইবান্ধার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন মিয়া বলেন, আমরা প্রথমে রেকর্ডপত্র পর্যালোচনা করে দেখি এই মামলায় তিনজন লোক মারা যাওয়ার অভিযোগ আছে। দুজনের ময়নাতদন্ত হয়েছে, একজনের ময়নাতদন্ত হয় নাই। এ জন্য ময়নাতদন্তের জন্য প্রথমে বাদী পক্ষের লোকজন আদালতে আবেদন করলে সেটি নামঞ্জুর হয়। পরে আমি আবেদন করলে সেটি মঞ্জুর হয়। ২০১৬ সালের ৬ নভেম্বর  রংপুর চিনিকলের শ্রমিক-কর্মচারী ও পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের সময় চাঁপাইনবাবগঞ্জের শ্যামল হেমব্রম ও দিনাজপুরের মঙ্গল মার্ডি মারা যান। ১০ নভেম্বর ২০১৬ সকালে রমেশ টুডুর মৃত্যু হলে সাঁওতলাদের পক্ষ থেকে দাবি করা হয় গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার শিনটাজুড়ি গ্রামের রমেশ টুডুও ওই হামলায় নিহত হয়েছেন। শ্যামল ও মঙ্গলের মরদেহ ময়নাতদন্ত করা হলেও রমেশ টুডুর ময়নাতদন্ত হয়নি। এ ব্যাপারে আদালতে আবেদন করা হলে আদালতের নির্দেশে মঙ্গলবার রমেশের মরদেহ উত্তোলন করা হয়। তিনি বলেন, গাইবান্ধা জেলা সদর হাসপাতালে রমেশ টুডুর মরদেহের ময়নাতদন্ত করা হবে। ময়নাতদন্ত শেষে তার মৃত্যুর কারণ নিশ্চিত হওয়া যাবে। গাইবান্ধা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মেডিকেল অফিসার ডা. শিহাব রেজওয়ানুর রহমান বলেন, রমেশ টুডুকে ময়নাতদন্ত ছাড়াই দাফন করা হয়েছিল। এখন তার মরদেহ গাইবান্ধা জেলা সদর হাসপাতালে নেয়া হয়েছে, সেখানে মেডিকেল বোর্ড তার ময়নাতদন্ত করবেন। এরপর ডিএনএ টেস্ট করার জন্য নমুনা ঢাকায় পাঠানো হবে। এটা একটা সময়সাপেক্ষ ব্যাপার, তবে খুব বেশি দেরি হওয়ার কথা নয়, তাড়াতাড়িই আমরা কারণ জানাতে পারব। : :





দেশের পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

সব দলের অংশগ্রহণে আগামী নির্বাচন দেখতে চায় ইইউ। আগামী নির্বাচন সব দলের অংশগ্রহণে হবে বলে মনে করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা
আজকের মোট পাঠক
2852 জন