দেশে নতুন আক্রান্ত নেই : ১ জনের মৃত্যু
Published : Thursday, 26 March, 2020 at 12:00 AM, Update: 25.03.2020 10:13:58 PM
দিনকাল রিপোর্ট
দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। দেশে এই ভাইরাসে এ নিয়ে পাঁচজন মারা গেলেন। গত ২৪ ঘণ্টায় এ ভাইরাসে আক্রান্ত বলে নতুন কোনো রোগী শনাক্ত হয়নি। গতকাল বুধবার সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর) পরিচালক মীরজাদী সেব্রিনা অনলাইন ব্রিফিংয়ে এই তথ্য জানান। মীরজাদী সেব্রিনা বলেন, সকালে ৬৫ বছর বয়সী ওই ব্যক্তির মৃত্যু হয়। তিনি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত এক রোগীর আত্মীয় ছিলেন। মীরজাদী সেব্রিনা জানান, মারা যাওয়া ব্যক্তি গত ১৮ মার্চ আক্রান্ত হন। এরপর একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। ওই ব্যক্তির অবস্থার অবনতি হলে গত ২১ মার্চ তাকে কুয়েত মৈত্রী হাসপাতাল এ নিয়ে আসা হয়। গতকাল সকালে তার মৃত্যু হয়। আইইডিসিআর পরিচালক বলেন, মারা যাওয়া ব্যক্তির ডায়াবেটিস ছিল। হাইপারটেনশনও ছিল। মীরজাদী জানান, গত ২৪ ঘন্টায় সুস্থ হয়ে দুজন বাড়ি ফিরেছেন। এ নিয়ে দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে মোট সাতজন সুস্থ হয়েছেন। মীরজাদী সেব্রিনা বলেন, ২৪ ঘণ্টায় ৮২ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিল। এর মধ্যে কারও শরীরে ভাইরাস শনাক্ত হয়নি। আজ পর্যন্ত মোট আক্রান্ত ব্যক্তির সংখ্যা ৩৯। প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে ৫৭ জন।

সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর)-এর পর ঢাকা ও ঢাকার বাইরের আরো কয়েকটি স্থানে করোনার নমুনা পরীা করা হবে। গতকাল করোনার নিয়ে নিয়মিত অনলাইনলাইভ ব্রিফিংয়ে আইইডিসিআরের পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফোরা এই তথ্য জানিয়েছেন। তিনি আরো বলেন, পরীা প্রাথমিক পর্যায়ে আইইডিসিআরে করা হবে। এখন যেহেতু রোগীর সংখ্যা আগের তুলনায় বেড়েছে, পরবর্তীতে সাসপেক্টেড রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পেতে পারে, সে কথা মাথায় রেখেই আমাদের পরীার পদ্ধতি আরেকটু সম্প্রসারণ করা হয়েছে। তিনি জানান, ঢাকার জনস্বাস্থ্য হাসপাতাল, শিশু হাসপাতাল, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এবং স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এই রোগের নমুনা পরীার ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। আর ঢাকার বাইরে চট্টগ্রামের ফৌজদারহাটে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিকাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিসেস, কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আইইডিসিআরের ফিল্ড ল্যাবরেটরি, ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও বরিশাল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালেও এ পরীা পদ্ধতি সম্প্রসারণ করা হচ্ছে। আইইডিসিআর পরিচালক বলেন, ঢাকার বাইরে আজ বা আগামীকালের মধ্যে পরীা পদ্ধতিগুলো শুরু হয়ে যাবে। তিনি আরো বলেন, এ পর্যন্ত ৭৯৪ জনের নমুনা পরীা করেছে। অনেকে বলবেন, এ সংখ্যা এত কম কেন। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরামর্শ অনুযায়ী যে সমন্ত মানুষের স্বাস্থ্য পরীা করার প্রয়োজন, তার মানে যাদের মনে করা হয়, তাদের মধ্যে এই সংক্রমণ থাকতে পারে, কেবলমাত্র তাদের পরীা করা হয়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সংজ্ঞা মেনে নমুনা সংগ্রহের পাশাপাশি যেসব এলাকায় সংক্রমণ বেশি হয়েছে, সেখানে সংজ্ঞার বাইরে গিয়ে আইইডিসিআর কাজ করছে। সেখানে যদি কারও মধ্যে লণ উপসর্গ থাকে, তার নমুনা এনেও পরীা করছি। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরীা পদ্ধতি ফলো করে যতজনের পরীা করার প্রয়োজন ছিল, ততজনের পরীা করেছি।











প্রথম পাতা'র আরও খবর
অনলাইন জরিপ

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রিজভী আহমেদ বলেছেন, পাপুলদের অপকর্মের দায় সরকার এড়াতে পারে না। আপনি কি তাই মনে করেন?
 হ্যাঁ   না   মন্তব্য নেই
দিনকাল ই-পেপার
পুরনো সংখ্যা